১৭ জুন ২০১৯

টাঙ্গাইল-৪আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হলেন ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী

টাঙ্গাইল-৪আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হলেন ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী - ছবি : সংগৃহীত

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হলেন ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী (কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ)। টাঙ্গাইলের আটটি আসনের মধ্যে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে দুটি আসন ছেড়ে দেয়া হয়েছে। অন্যটি হচ্ছে টাঙ্গাইল-৮ (সখিপুর-বাসাইল)। টাঙ্গাইল-৮ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তমের মেয়ে কুঁড়ি সিদ্দিকী।

টাঙ্গাইল-৮ আসনটি যে কাদের সিদ্দিকীর দলকে দেয়া হবে এবং সেখানে তার মেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এ নিয়ে কোন বিতর্ক ছিল না। তবে আলোচনা চলছিল কালিহাতী আসন নিয়ে। ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে দলের উপজেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগে যোগ দেন। একই সাথে তিনি জেলা পরিষদের সদস্য পদ থেকেও পতদ্যাগ করেন। পরে তিনি কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের পক্ষে মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন এবং যথাসময়ে দাখিল করেন। তখন থেকেই তাকে নিয়ে শুরু হয় গুঞ্জন-আলোচনা। তাহলে কি তিনিই ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হচ্ছেন? অবশেষে এই প্রশ্নের উত্তর মিলল। ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলীই ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে আবির্ভুত হল।

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের পক্ষে বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম এবং তার ছোটভাই আজাদ সিদ্দিকী মনোনয়পত্র জমা দেন। কিন্তু ঋণখেলাপির কারণে কাদের সিদ্দিকীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। আর রোববার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে আজাদ সিদ্দিকী তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এছাড়া টাঙ্গাইল-৪ ও টাঙ্গাইল-৮ আসন বাদে জেলার অন্য সব আসন থেকেই কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রার্থীরা তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

টাঙ্গাইল-৪ আসনে বিএনপি থেকে লুৎফর রহমান মতিন, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল হালিম মিয়া ও বেনজীর আহমেদ টিটোকে মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়। তারা মনোনয়নপত্রও দাখিল করেন। অবশেষে ঐক্যফ্রন্টের জন্য এ আসনটি ছেড়ে দেয়ায় তারা তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

কালিহাতী আসনের নতুন মুখ ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলীর সাথে মূলত লড়াই হবে শক্তিশালী দু’জন প্রার্থীর। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান এমপি আলহাজ্ব হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারী এবং আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা সাবেক মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী (স্বতন্ত্র)।


আরো সংবাদ