২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

গাজীপুরে বিএনপির কর্মসূচিতে পুলিশের গুলি ॥ আটক ৯

-

কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সোমবার অনুষ্ঠিত গাজীপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ ও টিআরসেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের লাঠিপেটায় জেলা মহিলা দলের সাবেক সভানেত্রী আনোয়ারা বেগমসহ অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। আহতদের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সোমবার গাজীপুর জেলা শহরের রাজবাড়ি সড়কের দলীয় কার্যালয়ের সামনে দলের নেতা-কর্মীরা রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে মানববন্ধন কর্মসূচি শুরু করে। মানববন্ধনকালে গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি একেএম ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এসময় পুলিশ তাদের বাঁধা দেয়। পুলিশের বাঁধাকে উপেক্ষা করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করতে থাকে বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা। পুলিশ তাদের সরিয়ে দিতে গেলে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এসময় পুলিশকে লক্ষ্য করে বিএনপি’র নেতা কর্মীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে আতংকিত হয়ে পথচারী ও ব্যবসায়ীসহ আশেপাশের লোকজন দিগবিদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। এঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ ও সর্টগানের ৩২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে মানববন্ধনে অংশ নেয়াদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনার সময় জেলা মহিলা দলের প্রাক্তন সভানেত্রী আনোয়ারা বেগমসহ অন্ততঃ ১০ জন আহত হয়েছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে বিএনপির প্রয়াত নেতা সাবেক মন্ত্রী বিগেডিয়ার জেনারেল (অবঃ) আ স ম হান্নান শাহের ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হান্নান মিয়া হান্নুসহ নয়জনকে আটক করে পুলিশ।
জয়দেবপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, বেআইনীভাবে সড়কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে সমাবেশ করায় যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটে। এসময় তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে তারা পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ সর্টগানের ৩২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থল থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।


আরো সংবাদ