২২ জুন ২০১৮

গাজীপুরে বেতনের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ 

গাজীপুরের শ্রীপুরে বেতনভাতা ও ঈদবোনাস পরিশোধের দাবীতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ। ছবি - নয়া দিগন্ত।

গাজীপুরের শ্রীপুরে ঈদ বোনাসসহ বকেয়া বেতনভাতা পরিশোধের দাবীতে দু’টি কারখানার শ্রমিকরা মঙ্গলবার পৃথকভাবে বিক্ষোভ ও কর্মবিরতি করেছে। এসময় তারা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারসেল ছুড়েছে।

শিল্প পুলিশের ইন্সপেক্টর হাবিবুর রহমান ও মাওনা হাইওয়ে থানার ওসি দেলোয়ার হুসেনসহ শ্রমিকরা জানায়, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মুলাইদ এলাকার প্যারাডাইস ইলেক্ট্রনিক্স কারখানার শ্রমিকরা বেশকিছুদিন ধরে তাদের পাওনা ঈদ বোনাসসহ বকেয়া দুই মাসের বেতন এবং ওভার টাইমভাতা পরিশোধের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়ে আসছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ একাধিকবার পরিশোধের আশ্বাস দিয়েও পরিশোধ করেনি। এতে শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ দেখা দেয়। বেতন ভাতা না পেয়ে শ্রমিকরা মঙ্গলবার কারখানায় জড়ো হয়ে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা কারখানা থেকে বেরিয়ে এসে পার্শ্ববর্তী ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ করে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশের মধ্যস্থতায় কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শ্রমিক প্রতিনিধিদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কারখানা কর্তৃপক্ষ শীঘ্রই শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা তাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করে।

এব্যাপারে কারখানার জেনারেল ম্যানেজার মশিউর রহমান জানান, ব্যাংকের জটিলতার কারণে কারখানার হিসাবে টাকা স্থানান্তর হতে বিলম্ব হওয়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে একইদিন শ্রীপুর পৌর এলাকার ওয়েষ্টেরিয়া টেক্সটাইল নামের পোশাক কারখানার শ্রমিকরা তাদের পাওনা বেতনভাতা ও ঈদ বোনাস পরিশোধের দাবীতে সকাল হতেই কারখানায় কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করতে থাকে। এতে কর্তৃপক্ষের সাড়া না পেয়ে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা কারখানার পার্শবর্তী ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গড়গড়িয়া মাষ্টারবাড়ী এলাকায় অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। এতে মহাসড়কের উভয় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আন্দোলনরতদের মহাসড়কের উপর থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। একপর্যায়ে পুলিশ টিয়ারসেল ছুড়ে ও লাঠিচার্জ করে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলে প্রায় আধা ঘন্টা পর মহাসড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়।


আরো সংবাদ