Naya Diganta

গর্বিত অমিতাভ

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৬ এপ্রিল ২০১৮,সোমবার, ২১:৩৮


অমিতাভ বচ্চন

অমিতাভ বচ্চন

শুধু অভিনেতা হিসাবে নন, ব্যক্তি অমিতাভ বচ্চনও  ভারতবাসীর কাছে অনেক বেশি জনপ্রিয়।  আর এই জনপ্রিয়তার পেছনে রয়েছে তার দায়িত্ববোধ।  সব কিছুই তিনি করবেন; তবে অবশ্যই সেখানে অনুসরণ করা হবে নির্দিষ্ট নীতি।   এই নীতিবোধ থেকেই তিনি স্ত্রী-ছেলে-মেয়ে, কারো উপড়ই কিছু চাপিয়ে দেননি।  তার পরিবারের সবাই যখন রুপালি জগতের বাসিন্দা তখন মেয়ে শ্বেতা বচ্চন হলেন ব্যতিক্রম।  ছোট বেলা থেকেই লিখতে ভালো লাগে তার।  সেই সূত্র ধরেই শিগগিরই লেখক হিসাবে আত্ম প্রকাশ ঘটবে শ্বেতার। মেয়ের এই পরিচয় নিয়ে বাবা অমিতাভ বেশ গর্বিত। 

হারপার কোলিন্স ইন্ডিয়া নামের একটি প্রকাশনা সংস্থা শ্বেতার লেখা উপন্যাস প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে। নিজের প্রথম উপন্যাসের নাম শ্বেতা দিয়েছেন ‘প্যারাডাইজ টাওয়ারস’। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে তিনি লিখেছেন, ‘একদিন প্রাতর্ভ্রমণের সময় আমার মাথায় প্যারাডাইজ টাওয়ারের ভাবনা আসে।  আমি গল্প লেখক পরিবার থেকে এসেছি।  শৈশবে আমাদের সব সময় পড়তে ও লিখতে উৎসাহিত করা হতো। তখনই আমাদের কল্পনাগুলোকে ডানা মেলার জন্য একটি মুক্ত রাজ্য দেওয়া হয়েছিল।’

শ্বেতার দাদা প্রয়াত হরিবংশ রাই বচ্চন ভারতের একজন প্রখ্যাত কবি। হিন্দি সাহিত্যে অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৮৬ সালে তিনি পদ্মভূষণ পান। মেয়ের প্রথম উপন্যাস প্রকাশ পাওয়ার খবরটি শেয়ার করে অমিতাভ টুইটারে লেখেন, ‘অবশেষে হরিবংশ রাই বচ্চনের কোনো উত্তরাধিকারী পরিবারে তার প্রতিফলন রাখতে চলেছে।’ এই মুহূর্তে নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে গর্বিত বাবা মনে করছেন অমিতাভ। তিনি বলছেন, ‘আমার মেয়ে সেরা ও সবচেয়ে ভালো।’

শ্বেতা বচ্চনের এই বইটি বাজারে আসবে আগামী অক্টোবর মাসে। তিনি বলেন, ‘কোনো গল্পের ধারণা মাথায় আসা আর তা কাগজে-কলমে লিপিবদ্ধ করা সম্পূর্ণ দুই জিনিস। আমার প্রথম বই প্রকাশ পেতে যাচ্ছে, এটি ভেবে আমি অবশ্যই উচ্ছ্বসিত। তবে পাঠক আমার উপন্যাস কীভাবে নেবেন, সেটা ভেবে কিছুটা চিন্তিতও বটে।’ শ্বেতা ভারতীয় ব্যবসায়ী নিখিল নন্দাকে বিয়ে করেছেন।  তাদের সংসারে দুই সন্তান নব্য নাভেলি ও অগস্ত্যা। এর মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে মেয়ে নব্য নাভেলি ইতিমধ্যেই তারকা বনে গেছেন

Logo

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,    
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫