Naya Diganta

নির্ভীক কলেজছাত্রীর হাতে কুপোকাত ডাকাত সর্দার

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৮:৫২


নির্ভীক কলেজছাত্রীর হাতে কুপোকাত ডাকাত সর্দার

নির্ভীক কলেজছাত্রীর হাতে কুপোকাত ডাকাত সর্দার

মেয়েরা এখন আর অবলা নয়, তারাও পারে পুরুষের চেয়ে বেশি সাহসিকতার পরিচয় দিতে। এমনি এক ঘটনা ঘটেছে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে। শাহিদা আক্তার একা (১৭) নামে এক কলেজে পড়ুয়া ছাত্রী তার সাহসী ভূমিকা ও বুদ্ধিমত্তায় কুপোকাত হয়েছে মিলন মিয়া (৪৫) নামে এক ডাকাত সর্দার।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের উত্তর পূর্বচর পাড়াতলা গ্রামে। শাহিদা আক্তার একা সাবেক সেনা সদস্য মো. শহিদুল্লার মেয়ে এবং কটিয়াদী ডা. আব্দুল মান্নান মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। ডাকাত সর্দার মিলন মিয়ার বাড়ি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলায়।

এ ঘটনায় গৃহকর্তাসহ আহত হয়েছেন ৫ জন। তারা হচ্ছেন মো. শহিদুল্লাহ (৫৫), জাহানারা (৩৫), সাবিনা আক্তার (২৫), শাহিদা আক্তার একা (১৭) ও জুনায়েদ হোসেন অপু (১৬) নামের এক এসএসসি পরীক্ষার্থী। আহতদেরকে স্বজনরা উদ্ধার করে কটিয়াদী উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেছেন।

কলেজপড়ুয়া ছাত্রীর হাতে ডাকাত সর্দার আটকের ঘটনাটি এখন টক অব দ্যা কটিয়াদী। শাহিদাকে এক নজর দেখতে শত শত উৎসুক মানুষ ভিড় জমাচ্ছে ।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টা দিকে একদল ডাকাত দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাবেক সেনা সদস্য মো. শহিদুল্লার বাড়িতে ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে তার স্ত্রী জাহানারা শরীরে থাকা স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নিতে চাইলে তার ডাক-চিৎকারে পাশের ঘরে থাকা গৃহকর্তা শহিদুল্লাহ দরজা খুলতেই ডাকাতরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে আহত করে ফেলে।

এ সময় এসএসসি পরীক্ষার্থী জুনায়েদ হোসেন অপুকে এক ডাকাত মারপিট করতে থাকলে তার বড় বোন শাহিদা আক্তার একা ডাকাত সর্দারকে জাপটিয়ে ধরেন। এ অবস্থায় ডাকাত তার মাথায় ও হাতে প্রচণ্ড আঘাত করে ছুটে যেতে চাইলেও শাহিদা তাকে ছাড়েননি। তাদের চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে ডাকাত দল পিছু হঠতে বাধ্য হয়। এ সময় শাহিদার হাতে ধরা পড়া ডাকাত পালিয়ে যাওয়ার জন্য তাকে টেনে হিঁচড়ে অনেক দূর নিয়ে গেলও তিনি তাকে ছাড়েননি।

এ সময় এলাকাবাসী এসে ডাকাত সর্দার মিলনকে আটক করে উত্তম মধ্যম দিয়ে বেঁধে রেখে কটিয়াদী মডেল থানায় খবর দিলে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ডাকাতের হামলায় আহত সাবেক সেনা সদস্য মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ৭/৮ জনের এক দল ডাকাত আমার বাড়িতে ডাকাতি করতে এসে আমাদেরকে মারপিট করে মালামাল নিয়ে যায়। ডাকাতের হামলায় আমি এবং আমার স্ত্রী ছেলে মেয়েসহ ৫ জন মারাত্মকভাবে আহত হয়েছি। পুলিশ এই ঘটনায় চুরির মামলা দায়ের করতে বলছে।

এ বিষয়ে কটিয়াদী মডেল থানার ওসি জাকির রব্বানি বলেন, এটি একটি চুরির ঘটনা হতে পারে। একজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাটির বিষয়ে তদন্ত চলছে।

Logo

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,    
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫