Naya Diganta

যৌন হয়রানিতে হলিউড নারীরা

রয়টার্স ও বিবিসি

০৩ জানুয়ারি ২০১৮,বুধবার, ০৬:৫৮


যৌন হয়রানি রুখতে লড়বেন হলিউড নারীরা

যৌন হয়রানি রুখতে লড়বেন হলিউড নারীরা

চলচ্চিত্রাঙ্গন ও অন্য কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করতে তিন শ’রও বেশি অভিনেত্রী, লেখক ও পরিচালকের সমর্থনে যুক্তরাষ্ট্রে নতুন একটি প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। নিউ ইয়র্ক টাইমসে পুরো পৃষ্ঠাজুড়ে বিজ্ঞাপন দিয়ে ‘টাইমস আপ’ নামের নতুন এই উদ্যোগের কথা ঘোষণা করা হয়েছে।

উদ্যোগের সঙ্গে সম্পৃক্তরা একে ‘বিনোদন জগতের নারীদের পক্ষ থেকে সর্বক্ষেত্রে নারীদের জন্য পরিবর্তনের সমন্বিত ডাক’ হিসেবে অভিহিত করছেন। চলচ্চিত্র প্রযোজক হার্ভি ওয়েইনস্টেইনের বিরুদ্ধে খ্যাতনামা অভিনেত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগের পর যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে একের পর এক অভিযোগের মুখে নতুন এ প্রকল্পের কাজ শুরু হলো। নাতালি পোর্টম্যান, রিজ উইদারস্পুন, কেট ব্লানচেট, ইভা লনগোরিয়া ও এমা স্টোনের মতো শতাধিক অভিনেত্রী এ প্রকল্পের সঙ্গে আছেন।

প্রকল্পের জন্য ‘টাইমস আপ’ এরই মধ্যে প্রাথমিক ১৫ মিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রার ১৩ মিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থ তুলতে পেরেছে। কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির শিকার নারী-পুরুষের আইনি সহায়তা দিতে এ অর্থ ব্যয় করা হবে।

কৃষি বা কলকারখানার শ্রমিক, তত্ত্বাবধায়ক ও ওয়েট্রেসদের মধ্যে যাদের আইনি লড়াই চালানোর সামর্থ্য নেই, প্রাথমিকভাবে তাদেরকেই এই অর্থ দেয়া হবে বলে টাইমস আপ জানিয়েছে। ‘লিঙ্গ বৈষম্য ও ক্ষমতার ভারসাম্যহীনতার’ বিরুদ্ধেও লড়াইয়ের কথা জানিয়েছে তারা; বলছে প্রতিষ্ঠানের শীর্ষপদে নারীদের জায়গা করে নেয়া এবং মজুরি সমতার প্রয়োজনীয়তার কথাও।

যৌন নির্যাতন ও হয়রানির বিরুদ্ধে মুখ খোলা নারী-পুরুষের ‘সাইলেন্স ব্রেকারস’ অ্যাখ্যা দিয়ে ডিসেম্বরে তাদেরকে বর্ষসেরার খেতাব দিয়েছিল টাইমস ম্যাগাজিন। গত বছর বিশ্ব ‘মি টু হ্যাশট্যাগের’ উত্থানও দেখেছে; যা নারী ও পুরুষের তাদের ওপর হওয়া নির্যাতন ও হয়রানির গল্প জানাতে উৎসাহিত করেছিল। টুইটারে অভিনেত্রী এলিসা মিলানো যৌন নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিদের প্রতি সংহতি জানাতে সবাইকে এগিয়ে আসতে বলার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই আন্দোলন গতি পায়। গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে ফেসবুক ও টুইটারে এই হ্যাশট্যাগ ৬০ লাখ বারের বেশি ব্যবহৃত হয়েছে।

প্রতিবাদী কিশোরী তামিমিকে আটকের মেয়াদ বৃদ্ধি

আনাদোলু
ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলনে প্রতীক হয়ে ওঠা কিশোরী আহেদ তামিমিকে আটকের মেয়াদ তৃতীয়বারের মতো বাড়িয়েছে ইসরাইলি আদালত। দখলদার ইসরাইলি সেনাকে থাপ্পড় মারার অভিযোগে ১৬ বছরের এ কিশোরীকে গ্রেফতার করা হয়।

ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, আহেদ তামিমি ও তার মা নারিমানকে আরো আট দিন আটক রাখার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বিবৃতিতে বলা হয়, তার বিরুদ্ধে আনা পাঁচটি অভিযোগের মধ্যে রয়েছে, ইসরাইলি সেনাদের হুমকি, সেনাকে আক্রমণ, সেনাদের দায়িত্ব পালনে বাধা, প্ররোচনা ও সম্পত্তি নষ্ট করা। তামিমির মায়ের বিরুদ্ধেও এসব অভিযোগের পাশাপাশি ভিডিওটি ফেসবুকে প্রকাশ করে অন্যদের এসব কাজে উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগ আনা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ শুনানির অংশ হিসেবে তাদের আটকের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

তবে তার কাজিন নূরকে ৪৮ ঘণ্টার জন্য জামিন দেয়া হয়েছে। ইসরাইলি সেনাদের বিরুদ্ধে তামিমির এমন দুঃসাহসিক অবস্থান নেয়া একটি ভিডিওটি বিশ্বজুড়ে আলোচনার জন্ম দেয়। তার মুক্তির জন্য যুক্তরাজ্য থেকে মিসরে আওয়াজ উঠেছে। তিনি হয়ে উঠেছেন ফিলিস্তিনি জনগণের মুক্তি আন্দোলন ও তৃতীয় ইন্তিফাদার প্রতীকী চরিত্র।

Logo

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,    
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫