Naya Diganta

ট্যাক্সের টাকা ও ডাক্তার কাহিনী

ডা: মো: মাকসুদ উল্যাহ্

১১ ডিসেম্বর ২০১৭,সোমবার, ১৮:৪১


ট্যাক্সের টাকা ও ডাক্তার কাহিনী

ট্যাক্সের টাকা ও ডাক্তার কাহিনী

আমাদের দেশে যে শিশুটি ‘ব’-এর নিচে একটি বিন্দু দিতেও জানে না, সেই শিশুটিও অন্য সবার দেখাদেখি ডাক্তারদের উদ্দেশে বলতে পারে- ‘সরকার আপনাদের জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ করে পড়ায়, তার কী প্রতিদান দিয়েছেন আপনারা?’ অনেকেই বলেন, ‘দেশের প্রতিটি নাগরিকের ট্যাক্সের টাকায় আপনাদের পড়ানো হয়েছে। কতটুকু, কী করেছেন আপনারা দেশের জন্য? নাগরিকদের জন্য?’

তারা কি এমন প্রশ্নগুলো ভেবে দেখেছেন- ১. ডাক্তারদের পক্ষ থেকে দেশকে কী কী দেয়া উচিত ছিল অথচ তারা দেননি?

২. ডাক্তাররা কী থেকে বঞ্চিত করেছে আপনাদের?

৩. জনগণের ট্যাক্সের টাকায় আর কেউ পড়ে কি না? আপনি কি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে জনগণের ট্যাক্সের টাকায় পড়েননি? আপনি জনগণকে কতটুকু প্রতিদান দিয়েছেন?

৪. জনগণের ট্যাক্সের টাকা ভোগ করে না এমন কোনো নাগরিক এ দেশে আছে কি? দেশে কি এমন কেউ আছে, যারা জনগণের ট্যাক্সের টাকায় তৈরি করা রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে না? সে ক্ষেত্রে তারা জনগণকে কী প্রতিদান দিয়েছেন?

৫. জনগণ তাদের ট্যাক্সের টাকায় ডাক্তার বানায় কেন? ট্যাক্সের টাকা দিয়ে ডাক্তার বানিয়ে যদি জনগণ কোনো উপকার না পেয়ে থাকে, তাহলে ডাক্তার বানানো বন্ধ করে দিলেই তো পারে সরকার! সেটা করছে না কেন?

৬. ডাক্তাররা কি জনগণের অংশ নন? তারা কি ট্যাক্স দেন না? তাহলে তাদের ট্যাক্সের টাকাগুলো দিয়ে কাদের পড়ানো হয় এবং সেই ব্যক্তিরা দেশকে কী দিচ্ছেন বা দিয়েছেন?

৭. যারা ডাক্তার হন, তাদের পেছনে কি শুধু জনগণের ট্যাক্সের টাকাই খরচ হয়? তাদের বাপ-ভাইয়ের কিছু খরচ হয় কি না। তাদের নিজেদের কোনো কষ্ট করতে হয় কি না। নাকি এক রাতে ঘুমিয়ে পড়লে দেখা যায় তার পেছনে জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ হয়ে গেছে আর সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখেন, তিনি ডাক্তার হয়ে গেছেন?

৮. আপনারা কি কোনো দিন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেননি?
সারা দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রতিদিন জনগণ যে চিকিৎসা নেয়, তার বাজারমূল্য কি কখনো হিসাব করেছেন? আপনি কি জানেন, সারা দেশের সরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রতিদিন কত হাজার চিকিৎসক জনগণকে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন? জনগণ কতটা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে?

যদি বলেন, সরকারি হাসপাতালে কোনো চিকিৎসা হয় না; তাহলে সারা দেশে একযোগে সরকারি হাসপাতালগুলো ৫ মিনিট বন্ধ রাখতে একমত হওয়ার জন্য আপনার সাহস আছে কি?

জ্ঞানী লোকদের অবশ্যই এ কথা বুঝতে হবে, আবেগ দিয়ে কারো বিরুদ্ধে অপপ্রচার মানে দেশের বিরুদ্ধেই অপপ্রচার। সবাইকে এ কথা বুঝতে হবে, ডাক্তাররা দেশ-জাতির অংশ। একটি গল্প আছে। নাক, কান, চোখ, হাত ও পা সবাই বলছে- ‘পেট শুধু খায়, কিন্তু কোনো কাজ করে না!’ হাত বলে, আমি কাজ করি। পা বলে, আমি হাঁটার কাজ করি। চোখ বলে, আমি দেখার কাজ করি। কান বলে, আমি শোনার কাজ করি। দাঁত বলে, আমি চিবানোর কাজ করি। পেটটা শুধু আকামের। সে শুধু খায়!’ তাই এক সময় তারা সবাই তাদের কাজ বন্ধ করে দিলে পেটে আর খাবার গেল না! কিছু দিন যাওয়ার পর দেখা গেল- পেটকে খাবার না দেয়ার কারণে হাত, পা, নাক, কান ও চোখ সবাই অসুস্থ হয়ে গেল। তারা বুঝল, পেটকে খেতে না দেয়ার কারণে আজ তারা নিজেরাই অস্তিত্বের সঙ্কটে। তারা লজ্জা পেয়ে নিজেদের গরজেই আবার পেটকে খাওয়ানো শুরু করল!

ডাক্তারদের ব্যাপারটা পেটের মতো। সারা দেশে একযোগে মাত্র ১০ মিনিট সরকারি হাসপাতালে ডাক্তারদের কাজ বন্ধ রাখলে জনজীবনে দুর্ভোগ চরমে উঠবে।

লেখক : চিকিৎসক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

Logo

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,    
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫