হালিমা বোলান্দ
হালিমা বোলান্দ

হালিমায় মুগ্ধ সৌদি বাদশাহ, দিলেন ৮ লাখ ডলারের উপহার (ভিডিওসহ)

আরব নিউজ ও আল আরাবি

হোটেলে গিয়ে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের (৮২) কাছ থেকে উপহার নিয়েছেন কুয়েতি সংবাদ উপস্থাপিকা আরব সুন্দরী হালিমা বোলান্দ (৩৭)। অনাহূত এ উপহারকে ‘রহস্যময়’ বলে গুঞ্জন তুলেছে কুয়েতের সংবাদমাধ্যম।

একাধারে ফ্যাশন মডেল, টিভি উপস্থাপিকা ও পারস্য উপসাগর কাঁপানো সুন্দরী হালিমা। ২০০৭ সালে কুয়েতের প্রথম নারী হিসেবে আলরাই টিভির উপস্থাপিকা হন। ওই বছরই ‘মিস আরব সাংবাদিক’ পুরস্কার পান তিনি।

গত সোমবার বহুজাতিক মেসেজিং মাধ্যম স্ন্যাপচ্যাট ও যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামের অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিও পোস্ট করেন হালিমা। সেখানে দাবি করা হয়, রিয়াদের হোটেলে গিয়ে সৌদি বাদশাহর কাছ থেকে ৮ লাখ ডলার মূল্যের উপহার গ্রহণ করেছেন তিনি।

ভিডিওতে দেখা গেছে, হোটেলের লবিতে ট্রলিতে করে উপহারের বক্স নিয়ে হাঁটছেন হালিমা। কিছুক্ষণ পর জুয়েলারি, ফুল ও পোশাক ভর্তি একটি বক্স খুলছেন। আরেকটি অলংকৃত বাক্সে ডজন খানেক পারফিউমের বোতল দেখা গেছে।

ওই বক্সের গায়ে লেখা, ‘হালিমা আবদুল জলিল বোলান্দ, বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী, তোমার পায়ের নিচে লুটাবে পুরো পৃথিবী।’ তবে তিনি কবে এ উপহার গ্রহণ করেছেন বা কেন বাদশাহ তাকে উপহার দিয়েছেন, তা উল্লেখ করেননি হালিমা। এ জন্য গণমাধ্যম একে ‘রহস্যময়’ বলে উল্লেখ করেছে।

পুলিশের আচরণে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ডাচ নারী
০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সংযুক্ত আরব আমিরাতের পর্যটন পুলিশ সদস্যদের সহনশীল, মার্জিত ও সভ্য আচার-আচরণে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন ইউরোপীয় এক পর্যটক। ইসলাম ধর্ম গ্রহণকারী ওই নারী পর্যটক হলেন নেদারল্যান্ডসের নাগরিক ক্রিশ্চিনা ডাফানো। আল-জাজিরা, ওয়ার্ল্ড নিউজ।

আমিরাতের পর্যটন বিভাগের মহাপরিচালকের কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ডাচ নারী ক্রিশ্চিনা ডাফানো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন। শনিবার আবু ধাবি পুলিশের এক বিবৃতিতে তার ইসলাম ধর্ম গ্রহণের তথ্য জানানো হয়েছে, এবং এ সংক্রান্ত বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশ করে।

কালেমা পাঠের পর ডাফানো তার নাম পরিবর্তন করে রাখেন নুরা। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইসলাম গ্রহণের পর শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদ পরিদর্শনে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন ওই নারী। পরে তাকে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়।

আমিরাত পুলিশের ডেপুটি পরিচালক কর্নেল আহমাদ আলমুরাউই বলেন, ইসলাম ধর্মের রীতি অনুযায়ী, তাকে সহনশীল এবং শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের দীক্ষা দেয় আমিরাতের পর্যটন পুলিশ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.