সজ্জিত করা হচ্ছে মার্কিন অস্ত্র, বরদাস্ত করবে না চীন
সজ্জিত করা হচ্ছে মার্কিন অস্ত্র, বরদাস্ত করবে না চীন

সজ্জিত করা হচ্ছে মার্কিন অস্ত্র, বরদাস্ত করবে না চীন

নয়া দিগন্ত অনলাইন

তাইওয়ানকে বিচ্ছিন্ন করার তৎপরতা বন্ধ করতে সেখানকার নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে চীন। চীন সরকারের তাইওয়ান বিষয়ক দপ্তরের মুখপাত্র এন ফেংশান বলেছেন, তাইওয়ানকে মার্কিন অস্ত্রে সজ্জিত করা হচ্ছে। তবে বেইজিং কখনোই তাইওয়ানকে বিচ্ছিন্ন হতে দেবে না।

তিনি আরো বলেছেন, চীনের যুদ্ধ-সক্ষমতা বাড়াতে তাইওয়ান প্রণালীতে বিশাল মহড়ার আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে বোমারু বিমানসহ বিভিন্ন ধরণের বিমান অংশ নিচ্ছে। গত শুক্রবার থেকেই সেখানে মহড়া চলছে বলে তিনি জানান। তাইওয়ানকে চীন থেকে আলাদা করার জন্য স্বাধীনতাকামীরা যে চেষ্টা চালাচ্ছে তা সফল হবে না।

চীন মনে করে তাইওয়ান সেদেশেরই অংশ। এটি চীন থেকে বেরিয়ে যাওয়া একটি প্রদেশ। তাইওয়ানেরও অনেকেই নিজেদেরকে চীনের অংশ বলে মনে করে।

চীনের বিমানবাহী রণতরী সমুদ্রে, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র
সিনহুয়া ও রয়টার্স

প্রথমবারের মতো নিজেদের তৈরি যুদ্ধবিমানবাহী একটি রণতরী সমুদ্রে ভাসালো চীন। রোববার দেশটির লিয়নিং প্রদেশের একটি বন্দর থেকে রণতরীটি সমুদ্রে যাত্রা করে।

জানা গেছে, ৫০ হাজার টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এ যুদ্ধজাহাজ ২০২০ সাল নাগাদ পরিপূর্ণভাবে ব্যবহারের উপযোগী হয়ে উঠবে এবং চীনা নৌবাহিনীতে যোগ দেবে। এটি সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের যুদ্ধজাহাজ কুজনেতসব এর আদলে তৈরি করা হলেও রণতরীটির নাম এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। আপাতত এই রণতরীর নাম রাখা হয়েছে টাইপ ০০১এ।

নতুন এ যুদ্ধজাহাজ নির্মাণের মাধ্যমে চীন তার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরো শক্তিশালী করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী। দক্ষিণ চীন সাগরের মালিকানা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই যুদ্ধজাহাজবাহী নিজেদের তৈরি রণতীর পরীক্ষামূলক যাত্রা শুরু করলো বেইজিং।

এটি চীনের দ্বিতীয় রণতরী হলেও নিজের তৈরি প্রথম রণতরী। এই রণতরীটির আকার আরো বড় করা হবে। করা হবে আরো উন্নত। চীন প্রথম রণতরীটি ২০১২ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে কিনেছিল। সেটি ছিল সোভিয়েত ইউনিয়নের সময়কার একটি বিমানবাহী রণতরী।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.