‘কান’-এর রেড কার্পেটে পাকিস্তানি অভিনেত্রীকে চুম্বন সোনমের
‘কান’-এর রেড কার্পেটে পাকিস্তানি অভিনেত্রীকে চুম্বন সোনমের

‘কান’-এর রেড কার্পেটে পাকিস্তানি অভিনেত্রীকে চুম্বন সোনমের

নয়া দিগন্ত অনলাইন

প্রতিবেশী পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো নেই ভারতের। সে দেশের শিল্পীদেরও ভারতে কাজ করা বারণ। ভারতের শিল্পীরাও পাকিস্তানে যাওয়ার আগে বেশ কয়েকবার ভাবেন। তবে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের অবস্থা যাই হোক, শিল্পীদের মধ্যে সখ্যতা বজায় রয়েছে। এই সখ্যতার নমুনা আগেও মিলেছে। মাহিরা খানের সঙ্গে বিদেশের রাস্তায় ধূমপান করতে দেখা গেছে রণবীর কাপুরকে। তা নিয়ে বিতর্কও বিস্তর হয়েছে। কিন্তু দু’জনের বন্ধুত্বে চিড় ধরেনি। ‘সুলতান’ সালমান খানও অরিজিৎ সিংয়ের বদলে রাহাত ফতেহ আলি খানের কণ্ঠই বেশি পছন্দ করেন। দু’জনের মধ্যে বেশ ভালোই বন্ধুত্ব রয়েছে। এমনই এক বন্ধুত্বের সাক্ষী সিনেপ্রেমীরা হলেন সাম্প্রতিক কান চলচ্চিত্র উৎসবে। রেড কার্পেটে পাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহিরা খানকে চুম্বন করে সে বন্ধুত্বের প্রমাণ দিলেন সোনম কাপুর। দুই দেশের দুই নায়িকার এই ছবিই হয়েছে ভাইরাল।

পাকিস্তানি শিল্পীদের অনেকের সঙ্গেই বন্ধুত্ব রয়েছে সোনমের। ‘খুবসুরত’ সিনেমায় পাকিস্তানের হার্টথ্রব ফওয়াদ খানের সঙ্গে কাজও করেছেন তিনি। যাদের সঙ্গে কাজ করেননি তাদের সঙ্গেও যোগাযোগ রয়েছে অনিল-কন্যার। কিছুদিন আগেই মুম্বইতে ধুমধাম করে প্রেমিক আনন্দ আহুজার সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন। আসতে না পারলেও বন্ধুকে বিয়ের শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন মাহিরা। সোনম উত্তরও দিয়েছিলেন। জানিয়েছিলেন ‘কান’-এ দেখা হবে দু’জনের।

বিয়ে মিটতেই ‘কান’-এর উদ্দেশ্যে রওনা দেন সোনম। সাদা লেহঙ্গায় রেড কার্পেটে হেঁটে সকলের নজর কাড়েন। পাশেই ছিলেন মাহিরা। কালো গাউনে তিনিও পোজ দিচ্ছিলেন পাপারাজ্জিদের। বন্ধুকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান সোনম। আলিঙ্গন করে তাকে চুম্বন করেন। মাহিরাও হাসিমুখে শুভেচ্ছা জানান বন্ধুকে।

সোনম যতটা সুন্দর ততটাই বন্ধুসুলভ
আলমগীর কবির, কান, ফ্রান্স থেকে

কাপুর পরিবারের সদস্য হওয়ায় ছোট বেলা থেকেই সোনমের আলাদা পরিচিতি রয়েছে। সিনেমায় খুব একটা সুবিধা করতে না পারলেও ভারতের যেকোন বড় আয়োজনে প্রথম সারির মডেল হিসাবে তার উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।

বাবা অনিল কাপুর সব সময়ই মেয়েকে নিয়ে গর্ব করেন। একাধিক সাক্ষাতকারে অনিল বলেছেন, সোনম একদিন বলিউডের রানী হবে। তার এই কথার সত্যতা নির্ণয় করবে সময়; কিন্তু ব্যক্তি সোনমের ব্যবহারে কিন্তু রয়েছে সেই আভাস। গত কয়েক দিনে হলিউড এবং বলিউডের অনকে জনপ্রিয় তারকাকে কাছে থেকে দেখা হয়েছে কিন্তু সোনম অন্যদের চেয়ে আলাদা। রেড কার্পেটে বের হয়ে যাওয়ার সময় হঠাৎই তার সাথে দেখা। অপেক্ষা করছিলন নির্ধারিত গাড়ির জন্য। সদ্য বিবাহিতা সোনমের আঙুলে আংটি, হাতে মেহেদি, পায়ে পায়ে বসন্ত, গোলাপি ঠোঁট আর রূপের জৌলুস।

সোনমকে জায়গা করে দিতে আমি একপাশ করে দাড়িয়ে গেলাম। গাড়ি আসতে দেড়ি হচ্ছে তাই সোনম যাচ্ছে না। তখন সোনম হঠাৎই আমাকে প্রশ্ন করলেন, ইউ কাম ফ্রম পাকিস্তান?

হেসে জবাব দিলাম, নো, আই অ্যাম ফ্রম বাংলাদেশ। সোনম বললেন, ইউর নোজ লাইক পাকিস্তানি গাইস। ততক্ষণে নিরাপত্তা কর্মীরা জানিয়ে দিলেন, কোন প্রশ্ন করা যাবে না। সোনম ও চুপ, আমিও চুপ। তখন চিন্তা করলাম একটা সেলফি তুলে রাখি। মোবাইল বের করতেই সোনম বললেন, আরামসে, আরামসে।

ছবি তোলার পর তিনি অগ্রসর হলেন। গাড়িতে উঠার আগে আবারও হাত নাড়লেন।

ক’দিন আগেই সোনমের বিয়ে হয়েছে। লালগালিচায় তার অনামিকায় বর আনন্দ আহুজার দেয়া বিয়ের আংটি চোখ এড়ায়নি কারো। হাতের মেহেদিও স্পষ্ট। গত ৮ মে দীর্ঘদিনের প্রেমিকের সাথে সাত পাকে বাঁধা পড়েন তিনি। বিয়ের পর ফ্যাশন স্কোয়াডে তার ফেরা ইতিবাচকভাবে দেখা হচ্ছে। তার মেকআপ আর্টিস্ট ছিলেন নম্রতা সোনি।

৩২ বছর বয়সী এই অভিনেত্রীকে জৌলুস ছড়াতে দেখে আনন্দিত ভক্তরাও। চমৎকার অফ হোয়াইট লেহেঙ্গা পরে লালগালিচা মাতিয়েছেন সোনম। এটি দেখতে অনেকটা বল গাউন স্কার্টের মতো। এই পোশাকের ডিজাইনার অস্ট্রেলিয়ার টামারা র‌্যালফ ও মাইকেল রুশের প্রতিষ্ঠান র‌্যালফ অ্যান্ড রুশো। সোনমের সাথে তখন ছিলেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহিরা খান। বিশ্বখ্যাত প্রসাধন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান লরিয়েলের প্রতিনিধি হিসেবে কান উৎসবে এসেছেন এ দুই তারকা।

ভারতীয় তারকাদের মধ্যে সোনমকে সবাই ফ্যাশন সচেতন হিসেবেই জানে। কানে আবারও পা রেখে সেই প্রমাণ দিলেন তিনি। সোমবার দিনের প্রথম ভাগে সাদাকালো ম্যাক্সি পরে বেরিয়েছিলেন ‘নীর্জা’ তারকা। এর ডিজাইনার লন্ডনের মাদার অব পার্ল। তিনি উঠেছেন হোটেল মার্টিনেজে।
লালগালিচায় সোনম এ নিয়ে অষ্টমবার কান চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিলেন সোনম। সোমবারের মতো মঙ্গলবারও লালগালিচায় দ্যুতি ছড়াতে দেখা গেছে তাকে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.