ক্যাটরিনা মাইলস ও তার চার সন্তান। এদের সবাইকেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে
ক্যাটরিনা মাইলস ও তার চার সন্তান। এদের সবাইকেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে

একই পরিবারের ৭ জনকে গুলি করে হত্যা

এএফপি

অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাঞ্চলের একটি বাড়িতে একই পরিবারের তিন প্রজন্মের সাতজনকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। ২২ বছরের মধ্যে দেশটিতে এটিই সবচেয়ে ভয়াবহ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের হত্যার পর এটি একটি আত্মহত্যার ঘটনা বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর শনিবার দেশটির জনগণের কাছে এটি ছিল একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা।

শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাঞ্চলের মার্গারেট রিভার এলাকার কাছের একটি বাড়িতে পুলিশ ওই পরিবারের চার শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক তিন ব্যক্তিকে মৃত অবস্থায় দেখতে পায়।

পুলিশ নিহতদের পরিচয় দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

তবে প্রতিবেশীরা স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছে, নিহতরা হলেন ক্যাটরিনা মাইলস নামের এক নারী, তার আট থেকে ১৩ বছর বয়সী শিশু ও তার বাবা-মা।

লাশগুলোর কাছে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া গেছে। পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে সন্দেহ করছে কিনা সে ব্যাপারে কিছু জানায়নি। নিশ্চিত না হলেও তারা একে হত্যার পর আত্মহত্যার ঘটনা মনে করছে।

 

দক্ষিণ আফ্রিকায় ইমামকে হত্যা করে মসজিদে অগ্নিসংযোগ

এক্সপ্রেস ট্রিবিউন

দক্ষিণ আফ্রিকায় একটি মসজিদের ইমামকে গলা গেটে হত্যা করে ওই মসজিদে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। দক্ষিণ আফ্রিকায় এ ধরনের ঘটনা একেবারেই বিরল। ওই হামলায় আরো দু’জন গুরুতর আহত হয়েছেন। পুলিশ এখন তিন হামলাকারীকে খোঁজ করছে। বৃহস্পতিবার ডারবান থেকে ২৭ কিলোমিটার দূরে ভেরুলামের একটি মসজিদে এ হামলা চালানো হয়। ওই হামলার পর ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় মুসলমানদের মধ্যে। তারা এর জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে জবাব চাচ্ছে।

পুলিশের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘হামলার কারণ এখনো স্পষ্ট নয়। দুর্বৃত্তরা হামলা করে পালিয়ে যাওয়ার সময় মসজিদটিতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে যায়। এ ধরনের অপরাধ সহ্য করা হবে না। একটি টিমকে ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’ যে দু’জন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তাদের অবস্থাও গুরুতর। দক্ষিণ আফ্রিকার মোট জনসংখ্যার মাত্র ১ দশমিক ৯ শতাংশ মুসলিম, তাদের বেশির ভাগই সুন্নি মুসলিম। মসজিদে হামলার মতো ঘটনা দক্ষিণ আফ্রিকায় খুবই বিরল, তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম পর্যবেক্ষণ করে বলা হচ্ছে, সেখানে শিয়াবিরোধী কথাবার্তা বলা হচ্ছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.