তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে তিন অভিযোগ : কী শাস্তি হবে তার
তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে তিন অভিযোগ : কী শাস্তি হবে তার

তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে তিন অভিযোগ : কী শাস্তি হবে তার

ডয়চে ভেলে

মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগে তদন্ত হচ্ছে৷ আসামি ওয়াহিদুল হকের সঙ্গে গোপন বৈঠক, মামলার নথি তার কাছে হস্তান্তর ও মামলার মেরিট নিয়ে কথা বলা৷

অভিযোগের প্রমাণ ও অডিও রেকর্ড এরইমধ্যে আইন মন্ত্রণালয়ে হস্তান্তর করেছে ট্রাইব্যুনালের চিফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিপ টিপু৷ প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তুরিন আফরোজকে ট্রাইব্যুনালের সব মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়৷ গোলাম আরিপ টিপু বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আইন মন্ত্রণালয় তদন্ত করছে৷ তিনি দোষী হলে অবশ্যই তার শাস্তি হবে৷'' আইনমন্ত্রী আনিসুল হকও বুধবার তুরিন আফরোজের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর কথা জানিয়েছেন৷

মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) মুহাম্মদ ওয়াহিদুল হককে গত ২৪ এপ্রিল গ্রেপ্তার করে৷ পর দিন ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়৷ এই মামলার প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ এবং তদন্ত কর্মকর্তা মতিউর রহমান৷ গত বছর তদন্ত শুরু হওয়ার পর ১১ নভেম্বর তুরিন আফরোজকে মামলা পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়৷

অভিযোগ উঠেছে, ওয়াহিদুল হককে গ্রেফতারের আগে গত নভেম্বর তুরিন আফরোজ প্রথমে তাকে টেলিফোন করে দেখা করার সময় চান৷ এরপর একটি হোটেলে ওয়াহিদুল হকের সঙ্গে গোপন বেঠকও করেন তিনি৷ এ সংক্রান্ত দু'টি অডিও-রেকর্ড পুলিশের মাধ্যমে তদন্ত সংস্থার হাতে এলে তা চিফ প্রসিকিউটরকে হস্তান্তর করা হয়৷ অডিও-রেকর্ড দু'টি ওয়াহিদুল হক গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়৷

ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সিনিয়র সমন্বয়ক সানাউল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দু'টি অডিওর মধ্যে একটি টেলিফোন কথোপকথনের রেকর্ড৷ এটা চার মিনিটের মতো৷ অন্য অডিওটি ঐ গোপন বৈঠকের, প্রায় পৌনে তিন ঘণ্টার মতো৷ টেলিফোনে কথা হয় গত বছরের ১৮ নভেম্বর আর বৈঠকটি হয় ঢাকার অলিভ গার্ডেন নামে একটি রেস্তোরাঁর গোপন কক্ষে পরদিন, অর্থাৎ ১৯ নভেম্বর৷ সেখানে তুরিন আফরোজ, তাঁর সহকারী ফারবি, আসামি ওয়াহিদুল হকসহ মোট পাঁচজন ছিলেন৷''

সানাউল হক জানান, ‘‘টেলিফোন রেকর্ডে তুরিন আফরোজ জানিয়েছেন যে তিনি বোরকা পড়ে ওই হোটেলে যাবেন৷ তাঁর সঙ্গে থাকেবে সহকারী ফারাবি, যাকে তিনি নিজের স্বামী পরিচয়ে সেখানে নিয়ে যাবেন৷''

বৈঠকের অডিও-রেকর্ডে কী আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘যা বলা সম্ভব তাই বলছি৷ বৈঠকে তুরিন আফরোজ মামলার মেরিট নিয়ে আসামির সঙ্গে দীর্ঘ কথা বলেন এবং মামলার পুরো ডকুমেন্টের এক সেট ফটোকপি আসামিকে হস্তান্তর করেন৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে সানাউল হক বলেন, ‘‘তুরিন আফরোজের সহকারী ফরাবি বারবার ওয়াহিদুল হকের কাছে তার আর্থিক অবস্থার কথা জানতে চান৷ ওয়াহিদুল হককে বলেন, আপনি তো অনেক গুরুত্বপূর্ণ শীর্ষ পদে চাকরি করেছেন৷ আপনার তো অনেক টাকা-পয়সা থাকার কথা৷''

সানাউল হকের কথায়, ‘‘এখানে আসলে তিনটি বিষয় বিবেচ্য৷ আসামির সঙ্গে গোপনে ছদ্মবেশে দেখা করা, তাকে মামলার গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট হস্তান্তর করা এবং মামলার মেরিট নিয়ে আসামির সঙ্গে আলোচনা করা৷ এর কোনোটিই তিনি করতে পারেন না৷ আইন মন্ত্রণালয় এখন পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে৷ আসামি মামলার ডকুমেন্ট পাবে আদালতের নির্দেশে৷ প্রসিকিউটর ব্যক্তিগতভাবে আসামির সঙ্গে দেখা করতে পারেন না৷ এমনকি মামলার মেরিট নিয়েও আসামির সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন না প্রসিকিউটর৷''

সানাউল হক জানান, ‘‘গুলশান থানার পুলিশ এপ্রিল মাসে ওয়াহিদুল হককে গ্রেপ্তারের পর, মামলার জন্য তার মোবাইল ফোনসহ আরো কিছু প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট জব্দ করে৷ মোবাইল ফোন পরীক্ষা করে গুলাশান থানার ওসি ঐ দু'টি অডিও রেকর্ড পান, যা তিনি শোনার পর নিয়ম অনুয়ায়ী কপি করে আমাদের (তদন্ত সংস্থার) কাছে হস্তান্তর করেন৷ আমরা অডিও রেকর্ড শুনে তা ট্রাইব্যুনালের চিফ প্রসিকিউটরকে দেই৷ তারপর ব্যবস্থা নেয়া শুরু হয়৷''

এ নিয়ে কথা বলার জন্য তুরিন আফরোজের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি৷ তবে তিনি একটি ফেসবুক পোস্টে ওয়াহিদুল হকের সঙ্গে বৈঠকের কথা স্বীকার করে বলেছেন, ‘‘আমি তদন্তের জন্য যে কোনো কৌশল অবলম্বন করতে পারি৷ আর আমি যা করেছি, আমার ঊর্ধতনদের জানিয়ে করেছি৷ আমার বিরুদ্ধে কুৎসা রটানো হচ্ছে৷''

তবে সানাউল হক বলেন, ‘‘তুরিন আফরোজ মামলার তদন্তকারী নন৷ তদন্ত করছেন উপ-পরিচালক মতিউর রহমান৷ সুতরাং তুরিন আফরোজের তদন্তের প্রশ্নই ওঠে না৷ তাছাড়া তিনি আসামির সঙ্গে গোপন বৈঠক করবেন বা দেখা করবেন – এটা আমাদের বা চিফ প্রসিকিউটরকে জানাননি৷ জানালেও অনুমতি পেতেন না৷ কারণ এটা বেআইনি৷''

মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আরেকজন প্রসিকউটর রানা দাশগুপ্ত ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা প্রমাণ হওয়ায় প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে তুরিন আফরোজকে সব মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে৷ তবে প্রসিকিউটরদের নিয়োগ দেয় সরকার৷ তাই তাঁর বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে আইন মন্ত্রণালয়৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘আইন মন্ত্রণালয়ের তদন্তে যদি তুরিন আফরোজ চূড়ান্তভাবে দোষী প্রমাণিত হন, তাহলে প্রসিকিউশনে কোনো প্রভাব বড়বে না৷ কিন্তু প্রসিকিউটরদের ওপর সাধারণ মানুষের এক ধরনের আস্থাহীনতা তৈরি হবে৷''

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.