জাকারবার্গের মেসেজ! অতঃপর যা ঘটল
জাকারবার্গের মেসেজ! অতঃপর যা ঘটল

জাকারবার্গের মেসেজ! অতঃপর যা ঘটল

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ফেসবুকে একটা নোটিফিকেশন পেয়ে ঘুম ভেঙে গিয়েছিল গ্যারি বার্নহার্টের। গত বছর নভেম্বরের সেই রাতে খোদ ‘মার্ক জ়াকারবার্গ’-এর থেকে একটি মেসেজ পান তিনি। বার্তাটি ছিল— ‘‘ফেসবুক লটারিতে আপনি ৭ লক্ষ ৫০ হাজার ডলার জিতেছেন।’’

জ়াকারবার্গের থেকে এই ‘শুভেচ্ছাবার্তা’ পেয়ে স্বাভাবিক ভাবেই উচ্ছ্বসিত হয়েছিলেন ৬৭ বছর বয়সি গ্যারি। হ্যাম লেকের বাসিন্দা সাবেক এই সেনাকর্মী উত্তেজনায় সারা রাত ঘুমোতে পারেননি। ওই অর্থ হাতে পাওয়ার আগে তাঁকে ২০০ ডলারের আইটিউন গিফট কার্ড পাঠাতে বলা হয় নির্দিষ্ট ঠিকানায়। তাই করেন গ্যারি। কিন্তু এ রকম ‘উপহার’-এর দাবিদাওয়া চলতেই থাকে। পরে গ্যারি বুঝতে পারেন, জালিয়াতির ‘বলি’ হয়েছেন তিনি। তত দিনে তার পকেট থেকে আরও বেশ কিছু ডলার বেরিয়ে গিয়েছে।

শুধু গ্যারিই নন, এ রকম জালিয়াতির শিকার আরো অনেকে। তথ্য ফাঁস কাণ্ডে বিপর্যস্ত ফেসবুক যখন নিজেদের ভাবমূর্তি রক্ষায় উঠেপড়ে লেগেছে, ঠিক তখনই ফেসবুক মালিক জ়াকারবার্গ কিংবা সংস্থার চিফ অপারেটিং অফিসার শেরিল স্যান্ডবার্গের নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট খুলে এ ধরনের জালিয়াতি অব্যাহত।

সম্প্রতি একটি মার্কিন দৈনিকের অন্তর্তদন্তে উঠে এসেছে এই তথ্য। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী, ফেসবুকে এ রকম অন্তত ২০৫টি অ্যাকাউন্ট রয়েছে। কোনওটি জ়াকারবার্গ, কোনওটি স্যান্ডবার্গের নামে। ইনস্টাগ্রামেও এক দশা। ওই দৈনিকের দাবি, এর মধ্যে ৫১টি ভুয়ো অ্যাকাউন্টই (এর মধ্যে ৪৩টিই রয়েছে ইনস্টাগ্রামে) ‘লটারি’র নামে দুর্নীতি চালাচ্ছে।

আইফোন টেন উৎপাদন বন্ধ!

বিশ্বের জনপ্রিয় প্রযুক্তিপণ্য ও সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপল আইফোন উন্মোচনের দশকপূর্তি সংস্করণ আইফোন টেনের উৎপাদন বন্ধ করছে। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের মতে, বিক্রির দিক থেকে আইফোন টেন প্রত্যাশা না পাওয়ায় স্থায়ীভাবে ডিভাইসটির উৎপাদন বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অ্যাপল নতুন করে আর এক ইউনিটও আইফোন টেন উৎপাদন করবে না। ডিভাইসটি নিয়ে অ্যাপলের অনেক উচ্চাকাক্সা ছিল। কিন্তু প্রত্যাশা অনুযায়ী বিক্রি হয়নি। আইফোন টেন উৎপাদন বন্ধের বিষয়ে অ্যাপলের বিনিয়োগকারীরা ডিভাইসটির বিক্রি প্রত্যাশা ছুঁতে না পারার জন্য হতাশা ব্যক্ত করেছেন। গত বছর আইফোন টেন উন্মোচন মঞ্চে সংশ্লিষ্টরা দাবি করেছিলেন, দশকপূর্তি সংস্করণের মাধ্যমে আইফোনের সংজ্ঞাই বদলে দেয়া হবে। আইফোন ৬ ও ৬ প্লাস দিয়ে বড় ডিসপ্লের স্মার্টফোন বাজারে প্রবেশ করেছিল অ্যাপল।

সর্বশেষ আইফোন টেনের অল-স্ক্রিন ডিজাইন এবং এজ-টু-এজ ডিসপ্লে চমক সৃষ্টি করে। ডিভাইসটির ওএলইডি (অর্গানিক লাইট-এমিটিং ডায়োড) ডিসপ্লে, যা এলসিডি ডিসপ্লের তুলনায় কয়েক গুণ ভালো। আইফোন এক্সে ২৪২৬-১১২৫ রেজুলুুশনের ৫ দশমিক ৮ ইঞ্চি সুপার রেটিনা ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়। আইফোন টেনের মাধ্যমে হোম বাটনের প্রচলন বন্ধ করা হয়। টাচ আইডির প্রচলনেরও সমাপ্তি টানা হয়েছে।

আইফোন টেন আনলক করতে আঙুলের ছাপ নয়, ফেস ডিটেকশন প্রযুক্তি আনা হয়েছিল। যাকে বল হয় ‘লার্ন ইওর ফেস’ প্রযুক্তি। এতে ‘ট্রু- ডেপথ ক্যামেরা সিস্টেম’ ব্যবহার করা হয়েছে। ব্যবহারকারীর চেহারার সঙ্গে হুবহু মিল রেখে তৈরি থ্রিডি মাস্ক দিয়েও অন্য কেউ ফোন খুলতে পারবে না। ডিভাইসটিতে এ১১ বায়োনিক প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। আনা হয়েছে ইমোজির প্রাণবন্ত সংস্করণ অ্যানিমোজি।

ডিভাইসটিতে কিউআই ও এয়ারপাওয়ার ওয়্যারলেস চার্জার নতুনত্ব হিসেবে পরিচয় করানো হয়। আইফোন টেনে ১২ মেগাপিক্সেলের ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স এবং জুম করার জন্য দ্বিতীয় একটি টেলিফোটো লেন্স রয়েছে। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির দাবি, আইফোন ৭-এর তুলনায় নতুন আইফোনের ক্যামেরা ফিচার ব্যাপক উন্নত করা হয়েছে। বিশেষ করে অ্যাম্বিয়েন্ট লাইট বা অন্ধকার ঘরেও ভালো ছবি তোলা যাবে। ৭ মেগাপিক্সেল ট্রু-ডেপথ ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরার সাহায্যে পোর্ট্রেট মোডে সেলফি তোলা যাবে আরো নিখুঁতভাবে। ডিভাইসটির বেস মূল্য নির্ধারণ করা হয়ছিল ৯৯৯ ডলার। তবে অভ্যন্তরীণ তথ্য সংরণ ও র‌্যামের ওপর ভিত্তি করে ডিভাইসটির জন্য ১৪০০ ডলার গুনতে হয়েছে গ্রাহকদের। স আহমেদ ইফতেখার

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.