থাইল্যান্ড উইক ২০১৮ শুরু

থাইল্যান্ডের সাথে এফটিএ হচ্ছে বাণিজ্য ব্যবধান কমবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক

থাইল্যান্ডে রফতানি বৃদ্ধি করতে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) সই হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, এ বিষয়ে উভয় দেশ কাজ করছে। প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পন্ন হলে বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড এফটিএ সই করবে। এর ফলে উভয় দেশের বাণিজ্য ব্যবধান অনেক কমে আসবে।
গতকাল রাজধানীর প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে চার দিনব্যাপী থাই পণ্য মেলা ‘থাইল্যান্ড উইক ২০১৮’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। ঢাকাস্থ থাই অ্যাম্বাসেডর পানপিমোন সোয়ানাপঙ্গসের সভাপতিত্বে মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ থাই অ্যাম্বাসির মিনিস্টার কাউন্সিলর (কমার্শিয়াল) সুবেসাক ডাংবনরিং বক্তব্য রাখেন। থাইল্যান্ড উইক-২০১৮ আগামী ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এবং প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ মুহূর্তে থাইল্যান্ড বাংলাদেশকে ৬,৯৯৮টি পণ্য রফতানিতে ডিউটি ফ্রি সুবিধা প্রদান করছে। উভয় দেশের বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ইতোমধ্যে পাটজাত পণ্য ও তৈরী পোশাক রফতানিতে ডিউটি ফ্রি অথবা ন্যূনতম ডিউিটি সুবিধা চেয়েছে বাংলাদেশ। থাইল্যান্ড বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে। বাংলাদেশীদের জন্য থাইল্যান্ডের ভিসা সহজ করারও আহ্বান জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাই রাষ্ট্রদূতকে উদ্দেশ্য করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ম্যাডাম আপনাদের ভিসা পাওয়া খুবই জটিল। আমি অনুরোধ করব ভিসা পদ্ধতিটা সহজ করার জন্য। যাতে সহজে বাংলাদেশের মানুষ ভ্রমণের জন্য, ব্যবসার জন্য, স্বাস্থ্যসেবার জন্য থাইল্যান্ড যেতে পারেন।
রফতানির েেত্র শুল্কমুক্ত সুবিধা দাবি করে তোফায়েল বলেন, আমি থাইল্যান্ডের বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠককালে তাকে অনুরোধ করেছিÑ যে পণ্যগুলো আমরা রফতানি করতে পারি তা শুল্কমুক্ত করা বা শুল্ক কমিয়ে দেয়ার। তিনি নীতিগতভাবে মত দিয়েছেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.