ডিজে আভিচি
ডিজে আভিচি

জনপ্রিয় সুইডিশ ডিজে তারকার মৃত্যু, কারণ গোপণ রাখা হয়েছে

এএফপি

সুইডিশ জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী ও ডিজে আভিচি শুক্রবার ওমানে মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছিল মাত্র ২৮ বছর। অত্যন্ত সফল এই তরুণ ডিজে বিশ্বের ইলেক্ট্রোনিক সংগীত জগতের তারকাদের মধ্যে অগ্রগামী ছিলেন। ওমানের রাজধানী মাস্কাটে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে।

মাস্কাট হিলস রিসোর্টের ডিজে মৈত্রী জোশি বলেন, তিনি আভিজিকে ওমানের রাজধানীতে দেখতে পান। তিনি বুঝতে পারেন সে সংগীত তারকা তার বন্ধুদের সাথে প্রথমবারের মতো ওমানে ঘুরতে এসেছেন।

সুইডেনের নাগরিক আভিচির আসল নাম ছিল টিম বার্গলিং। ২০০৮ সালে সংগীতশিল্পী হিসেবে কাজ শুরু করেন তিনি।
আভিচি ইলেকট্রনিক ডান্স মিউজিক স্টার হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এক রাতে আড়াই লাখ ডলার আয় করার রেকর্ড আছে তার।
অন্যান্য সংগীতশিল্পীদের সাথে যৌথভাবে সংগীত তৈরিতে যুক্ত ছিলেন তিনি।

আভিচির মৃত্যুর কারণ জানানো হয়নি।

তার মুখপাত্র জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে আর কোনো তথ্য জানানো হবে না। তার শোকার্ত পরিবারকে গোপনীয়তা বজায় রাখার সুযোগ দিতে অনুরোধ করেন ওই মুখপাত্র।

আভিচির স্বাস্থ্য অনেকদিন ধরেই অবনতির দিকে ছিল। অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যার পাশাপাশি অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে অ্যাকিউট প্যানক্রিয়াটাইটিসে ভুগছিলেন তিনি। ২০১৪ সালে তার গল ব্লাডার এবং অ্যাপেন্ডিক্স অপসারণ করা হয়। এরপর স্বাস্থ্যগত কারণে ২০১৬ সালে তিনি অবসরে যাবার সিদ্ধান্ত নেন।

 

জীবনটা 'ছারখার' করে দিয়েছেন শাহরুখ খান!

'কিং অব রোমান্স' বলা হয় তাকে। তিনি নাকি একটি গাছের সাথেও প্রেম করতে পারবেন। অনেক সাক্ষাৎকারে নিজের মুখে এই কথা বলেছেন বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। কিন্তু তিনি কারো জীবন 'নষ্ট' করে দিতে পারেন? বিশ্বাস করতে পারেন এমন কোনো দাবি? নিশ্চয় অবাক লাগছে শুনে। তাহলে পুরো ঘটনা শুনুন।

সম্প্রতি মুম্বইয়ের এক নারী দাবি করেছেন, শাহরুখ খান নাকি তার জীবন একেবারে 'ছারখার' করে দিয়েছেন। প্রশ্ন আসাটাই স্বাভাবিক, কিভাবে?

তিনি দাবি করেছেন, শাহরুখ খানের সিনেমায় যেমন দেখা যায়, কারো জীবনে ভালোবাসা কড়া নাড়লে নাকি পরিবর্তন হয় অনেক কিছুরই। জীবনে ভালবাসা এলে কখনও হাওয়ায় উড়ে লম্বা চুল, আবার কখনও কানের পাশে এসে কেউ ফিঁসফিঁসিয়ে নাকি প্রেম নিবেদন করে যান সবার অগোচরে (যেমন দেখা গিয়েছিল শাহরুখের ম্যায় হু না সিনেমায়)। আবার কেউ হাঁটু মুড়ে বসে তার ভালবাসার কথা প্রেমিকার সামনে জাহির করেন। কেউ কখনও ভায়োলিন বাজিয়েও প্রেম নিবেদন করেন (এই সবকিছুই শাহরুখ খানের সিনেমায় দেখা যায়)। কিন্তু তার সাথে নাকি এমন কিছুই ঘটেনি। কখনও হাঁটু মুড়ে তাকে ভালোবাসার কথাও কেউ জানাননি, আবার কখনও কেউ তাঁকে 'সারপ্রাইজ'ও দেননি।

সবকিছু মিলিয়ে তার জীবনে 'ফিল্মি' কিছুই ঘটেনি, যেমন দেখানো হয় শাহরুখ খানের বেশিরভাগ সিনেমায়। যা তিনি ছোট থেকে বিশ্বাস করে এসেছেন। আর সেই কারণেই নাকি শাহরুখ খান তার জীবনকে একেবারে 'ছারখার' করে দিয়েছেন।

'হিউম্যানস অব বোম্বে' নামক একটি পেজে ওই নারী এই কথাগুলো বলেছেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.