আরো শরণার্থী নেবে জার্মানি, ক্ষিপ্ত অস্ট্রিয়া সরকার
আরো শরণার্থী নেবে জার্মানি, ক্ষিপ্ত অস্ট্রিয়া সরকার

আরো শরণার্থী নেবে জার্মানি, ক্ষিপ্ত অস্ট্রিয়া সরকার

বিবিসি

আন্তর্জাতিক স্তরে সংহতির প্রশ্নে আবারও এগিয়ে এসেছে জার্মানি৷ উত্তর আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে ১০ হাজার শরণার্থীকে নেবে জার্মানি। শরণার্থীর পুনর্বাসন, আইনসম্মত এবং সুশিক্ষিত পথে ঠাঁই দিতে নেয়া ইইউ প্রকল্পের আওতায় ২০১৯ সালের মধ্যে অন্তত ৫০ হাজার উদ্বাস্তুকে অসুরক্ষিত স্থান থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে জায়গা করে দেয়া হবে৷

শরণার্থীদের জন্য খরচ বাবদ ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিভিন্ন দেশকে ৫০০ মিলিয়ন ইউরো অর্থসাহায্য দেবে৷ ২০১৫ সালে জার্মানিতে থাকার জন্য আবেদন করেছিলেন ১০ লাখ মানুষ৷ ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি শরণার্থী জার্মানিতে এসেছেন সিরিয়া, আফগানিস্তান, ইরাক, ইরিত্রিয়া থেকে৷ জানাচ্ছে জার্মানির অভিবাসন ও উদ্বাস্তু দফতর৷

এদিকে জার্মানি উদারতা দেখালেও অস্ট্রিয়া শরণার্থীদের নিয়ন্ত্রণে কঠোর ব্যবস্থা নিতে চলেছে৷ বুধবার অস্ট্রিয়া সরকার একটি বিল এনেছে, যাতে বেআইনিভাবে অস্ট্রিয়ায় বাস করা শরণার্থীদের দেশে পাঠানোর কথা বলা হয়েছে৷ এমনকি প্রয়োজনে শরণার্থীদের কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করার সংস্থান রাখা হয়েছে নতুন বিলে৷

সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে সিদ্ধান্ত হয়েছে ১ লাখ ২০ হাজার শরণার্থীকে ভাগ করে দেয়া হবে৷ জার্মানি নেবে ৩১ হাজার ৪৪৩ জন৷ বছর শেষে জার্মানিতে আগত মোট শরণার্থী ৮ লাখে হয়ে যেতে পারে৷

নতুন বিলটি পার্লামেন্টে পাস হলে শরণার্থী হওয়ার খরচ বাবদ ৮৪০ ইউরো দিতে হবে আবেদনকারীকে৷ দেখা হবে তার কোনো অপরাধের রেকর্ড আছে কিনা৷ যদি তিনি ইউরোপের অন্য কোনো দেশে প্রথম এসে থাকেন, তাকে সেই দেশেই পাঠিয়ে দেবে অস্ট্রিয়া৷

দেশটির অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী হার্বাট কিকল জানান, তারা যতটা সম্ভব কঠোর শরণার্থী নীতি তৈরি করছেন৷ ২০১৫ সালে দেড় লাখ আবেদন আসে অস্ট্রিয়ার কাছে, যা ৮ দশমিক ৭ মিলিয়ন জনসংখ্যার দেশের জনসমষ্টির ১ দশমিক ৭ শতাংশ৷

শরণার্থীরা অপরাধ করলে দ্রুত তাদের অস্ট্রিয়া থেকে বহিষ্কার করা নতুন বিলের গুরুত্বপূর্ণ দিক৷ অপরাধী নাবালক হলেও ছাড় পাবে না৷ শরণার্থীরা ছয় বছর অস্ট্রিয়ায় থাকলে নাগরিক হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতেন৷ তা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হচ্ছে৷ ২০১৬ থেকে শরণার্থীর সর্বোচ্চ সংখ্যা বেঁধে দিয়েছে অস্ট্রিয়া৷ ২০১৮ সালে মাত্র ৩০ হাজার শরণার্থীকে জায়গা দেয়া হবে সে দেশে৷

এদিকে ভিয়েনার একটি মসজিদে তুর্কি পতাকা হাতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের এক ঘটনা তুলে ধরেছিল একদল শিশু। বিষয়টি অস্ট্রিয়ার সরকারকে এতটাই ক্ষিপ্ত করেছে যে চ্যান্সেলর সেবাস্টিয়ান কুর্যের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। তিনি বলেন, মসজিদে যা ঘটেছে তার স্থান নেই অস্ট্রিয়ায়। এর বিরুদ্ধে সরকার 'জিরো টলারেন্সের' নীতি নেবে। পূর্ণশক্তি দিয়ে সরকার এসবের মোকাবেলা করবে। প্রয়োজনে অস্ট্রিয়ার আইন অনুযায়ী মসজিদটি বন্ধ পর্যন্ত করে দেয়া হতে পারে।

ভিয়েনার এক মসজিদে একটি অনুষ্ঠানে একদল শিশু সামরিক ইউনিফর্ম পরে তুর্কি পতাকা হাতে মিছিল করে। এর পর যুদ্ধে গুলি খেয়ে মারা যাওয়ার ভান করে। এই অনুষ্ঠানের ছবি ও খবর প্রকাশিত হওয়ার পর ভীষণ ক্ষুব্ধ অস্ট্রিয়ার ডানপন্থী সরকার। ভিয়েনার যে মসজিদে এ ঘটনা ঘটেছে, সেটি চালায় তুর্কি ইসলামিক কালচারাল অ্যাসোসিয়েশন। এটির মূল দফতর জার্মানির কোলন শহরে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.