ঢাবিতে যেভাবে হয়রানি করা হচ্ছে ছাত্রীদের
ঢাবিতে যেভাবে হয়রানি করা হচ্ছে ছাত্রীদের

ঢাবিতে যেভাবে হয়রানি করা হচ্ছে ছাত্রীদের

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) হলে প্রশাসন কর্তৃক ছাত্রীদের ডেকে ডেকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে হলের সাধারণ ছাত্রীদের মধ্যে ভয় ও নিরাপত্তাহীনতা তৈরি হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে ঢাবির কবি সুফিয়া কামাল হলে এ ঘটনা ঘটে। হলটির একাধিক ছাত্রী ও তাদের পরিবার হয়রানির অভিযোগ করেন।

এর আগে ছাত্রী নিপীড়নের ঘটনায় গঠিত হলের ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটির বিরুদ্ধেও সাক্ষাৎকার গ্রহণের নামে ছাত্রীদের হয়রানির অভিযোগ ওঠে।

ছাত্রী নিপীড়নকারী হল শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ইফফাত জাহান ইশার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার ঘটনায় সন্দেহভাজনদের ডেকে এমন হয়রানির অভিযোগ ওঠে। এমনকি ছাত্রীদেরকে ডেকে হল ত্যাগে বাধ্য করা, মুঠোফোন জব্দ, অজ্ঞাতনামা মামলায় জড়িয়ে দেয়ার হুমকি এবং অভিভাকদের ফোন দিয়ে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে হলের এক ভূক্তভোগী ছাত্রীর পরিবারের এক সদস্য তার বোনের নাম ও পরিচয় গোপন রাখার নিশ্চয়তা চেয়ে বলেন, রাত সাড়ে আটটার দিকে আমার বোনকে ফোন দিলে এক শিক্ষিকা তা রিসিভ করে বলেন ‘হলে সমস্যা হয়েছে। আপনার বোনকে হল থেকে নিয়ে যান, তার ফোন জব্দ করা হয়েছে।’ তিনি বলেন, ওই শিক্ষিকাকে অনুরোধ করি আমার বোনকে ফোনটি দেয়ার জন্য। পরে বোন ফোন রিসিভ করে কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথা বলেন। এ সময় সে তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করে লাইন কেটে দেয়। এরপর থেকে আর ফোন রিসিভ করছে না সে। এমন ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমার বোন যদি কোনো অপরাধ করে থাকে, তাহলে তার বিচার হতেই পারে কিংবা আমাদের কাছেও অভিযোগ জানাতে পারে। কিন্তু সে ফোন রিসিভ করছে না কেন? আমি আমার বোনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আছি।

এদিকে, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রীসহ কয়েকজনকে হল থেকে বের হয়ে যেতে বলা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের অন্তি নামের এক ছাত্রীকে হাউজ টিউটরদের কক্ষে আটকে রেখে হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ এসেছে। পরে রাত ১০টার দিকে তার নম্বরে ফোন দিলে অন্য একজন কল রিসিভ করেন। তিনি বলেন, এখন তাকে (অন্তি) দেয়া যাবে না। পরে ফোন করেন।

এদিকে, অন্তি নামের এক ছাত্রীকে হল থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে হলের ছাত্রীরা সংগঠিত হয়ে প্রতিবাদ করার প্রস্তুতি নেয়। পরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অন্তিকে বের করে দেয়া হয়নি আশ্বাসের ভিত্তিতে হলের ছাত্রীরা শান্ত হন। এছাড়া আজ শুক্রবার রাতে ছাত্রীদের সাথে হল প্রশাসনের আলোচনায় বসার কথা জানিয়েছেন হলের একাধিক ছাত্রী।

ছাত্রীদের হয়রানির বিষয়ে জানতে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সাবিতা রেজওয়ানা রহমানকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ফেক আইডির মাধ্যমে অনেকে হলের বিরুদ্ধে গুজব ছড়াচ্ছে। তাই তাদেরকে ডেকে এনে মোবাইল চেক করা হচ্ছে। এমন কাউকে পাওয়া গেলে তার পরিবারকে ডেকে আনা হবে। এখন পর্যন্ত কারো মোবাইলে সন্দেহজনক কিছু পেয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি লাইনটি কেটে দেন। পরে একাধিক ফোন দিলে রিসিভ না করে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান বলেন, এ অভিযোগ সত্য নয়। এগুলো গুজব। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে একটি দুষ্ট চক্র গভীর ষড়যন্ত্রে নেমেছে।

এর আগে সুফিয়া কামাল হলে ছাত্রী লাঞ্ছনাসহ ১১ এপ্রিলের ঘটনায় পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে হল প্রশাসন। কমিটি ছাত্রী লাঞ্ছনার অভিযোগ থেকে ইশাকে অব্যাহতি দিয়ে উল্টো ২৬ ছাত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। অথচ ইশা কর্তৃক ছাত্রীদের ডেকে নিয়ে বিভিন্ন হুমকি-ধমকি ও হয়রানির রেকর্ড বের হলেও সেই ঘটনায় কোনো ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.