বক্তব্যে এরদোগান ‘তুরস্কের সংকটপূর্ণ সময়ে নির্বাহী ক্ষমতাসম্পন্ন একজন প্রেসিডেন্ট দরকার’ বলে জোর দেন।
বক্তব্যে এরদোগান ‘তুরস্কের সংকটপূর্ণ সময়ে নির্বাহী ক্ষমতাসম্পন্ন একজন প্রেসিডেন্ট দরকার’ বলে জোর দেন।

কেন আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দিলেন এরদোগান?

নয়া দিগন্ত অনলাইন

আগাম প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। নির্ধারিত মেয়াদের এক বছরেরও বেশি আগে আগামী ২৪ জুন একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন।

বুধবার আঙ্কারার প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে এক বক্তৃতায় এরদোগান বলেন, নির্বাহী প্রেসিডেন্সি এখন দেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, নির্বাচনের তারিখ ঠিক করবে নির্বাচন কমিশন, তবে এখনই প্রস্তুতি শুরু হওয়া দরকার।

ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টির(এমএইচপি) ডেভলেত বাহচেলির সাথে বৈঠকের পর এই ঘোষণা দেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট। বাহচেলি এরদোগানের সাথে বৈঠকের একদিন আগে আগাম নির্বাচনের দাবি করেছিলেন।

স্বাভাবিক নিয়মে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন ২০১৯ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

গত বছর এক গণভোটের মাধ্যমে সংসদীয় ব্যবস্থা থেকে প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির শাসন ব্যবস্থায় রূপান্তরিত হয়েছে তুরস্ক যা পরবর্তী নির্বাচনের পর সেটি কার্যকর হওয়ার কথা।

কিন্তু কেন আগাম এ নির্বাচনের ঘোষণা দিলেন এরদোগান?

তুরস্কের নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ২৪ জুন ভোট হবে। এই প্রথম নতুন পদ্ধতির অধীনে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন হতে যাচ্ছে দেশটিতে। নির্বাচনে জয়লাভ করলে নতুন সংবিধান অনুসারে অতিরিক্ত ক্ষমতা পাবেন এরদোগান।

গত বছরের এপ্রিলে সংবিধান সংশোধনে গণভোট ডাকে তুরস্ক। সামান্য ব্যবধানে জিতে যায় ‘হ্যাঁ’। ফলে সংসদীয় ব্যবস্থা থেকে রাষ্ট্রপতিশাসিত ব্যবস্থায় চলে যায় দেশটি।

সাংবিধানিক এই পরিবর্তনের ফলে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট যেসব ক্ষমতা পাবেন, তা হচ্ছে : ভাইস-প্রেসিডেন্ট, মন্ত্রী, সরকারি উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও সিনিয়র বিচারক নিয়োগের মতো অধিকার। চাইলে যেকোনো সময় সংসদও ভেঙে দিতে পারবেন প্রেসিডেন্ট, জারি করতে পারবেন যেকোনো নির্বাহী আদেশ ও জরুরি অবস্থা।

আগাম নির্বাচন ঘোষণার সময় তুরস্কের ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির নেতা এরদোগান ‘তুরস্কের সংকটপূর্ণ সময়ে নির্বাহী ক্ষমতাসম্পন্ন একজন প্রেসিডেন্ট দরকার’ বলে জোর দেন।

তিনি বলেন, ‘যদিও প্রেসিডেন্ট ও সরকার যতটা সম্ভব সঙ্গতি রেখে কাজ করছে, কিন্তু পুরনো রোগ প্রত্যেক পদক্ষেপে আমাদের বাধা দিচ্ছে। সিরিয়া ও অন্যান্য জায়গার পরিস্থিতি নির্বাহী পদ্ধতিকে আরো জরুরি করে তুলেছে।’

গত জানুয়ারির শেষের দিকে তুর্কি বাহিনী ও সিরিয়ার বিদ্রোহী গোষ্ঠী ফ্রি সিরিয়ান আর্মি (এফএসএ) সিরিয়ার আফরিনে সামরিক অভিযান শুরু করে। সেখান থেকে মার্কিন সমর্থিত ওয়াইপিজি কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সরিয়ে দেয় তারা।

সিরিয়াভিত্তিক কুর্দিস ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন পার্টি (পিওয়াইডি) ও এর সশস্ত্র গোষ্ঠী ওয়াইপিজিকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে দেখে তুরস্ক। নিষিদ্ধ ঘোষিত কুর্দিস ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) সঙ্গেও এর সম্পর্ক আছে বলে মনে করে দেশটি।

আফরিনে তুরস্কের ওই অভিযানে ক্ষুব্ধ যুক্তরাষ্ট্র। তবে কুর্দি গোষ্ঠীকে সমর্থন দেয়ায় আবার ন্যাটো মিত্রদের ওপরও চটেছে তুর্কি প্রশাসন। এরইমধ্যে সিরিয়া যুদ্ধ নিয়ে ইরান ও রাশিয়ার সঙ্গে কাজ শুরু করেছে দেশটি।

গত ১৫ বছর ধরে তুরস্কের ক্ষমতায় আছেন এরদোগান- কখনো প্রধানমন্ত্রী আবার কখনো প্রেসিডেন্ট হিসেবে। তার নেতৃত্বেই দেশটির অর্থনীতি উদীয়মান অবস্থায় পৌঁছেছে। এরদোগান প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগের বছর ২০০১ সালে তুরস্কে মুদ্রাস্ফীতি ছিল ৭০ শতাংশ। গত বছর তা কমে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১২ শতাংশে।

তবে অর্থনীতি নিয়ে উদ্বেগ এখনো কাটেনি। কোনো কোনো বিশ্লেষক মনে করছেন, প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট- দুই নির্বাচনে জিততে এটা এরদোগান ও বাহজেলি জোটের একটি যৌক্তিক সিদ্ধান্ত।

তুর্কি রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দভুতগ্লুর প্রাক্তন উপদেষ্টা এতিয়েন মাহজুপায়ান মনে করেন, আগাম নির্বাচনের পেছনে মূল কারণ অর্থনৈতিক সমস্যা ও সিরিয়া যুদ্ধ।

তিনি বলেন, ‘দ্রুত নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার মানে, শক্তিশালী কোনো প্রতিপক্ষকে এরদোগানের বিরুদ্ধে প্রচারণার সময় না দেয়া ও সাধারণ নির্বাচনের জন্য সংগঠিত হতে বিরোধীদের পর্যাপ্ত সময় না দেয়।’

এই রাজনৈতিক বিশ্লেষক আরো বলেন, ‘এরদোগানের মিত্র এমএইচপি মনে করে ২০১৯ সালে নির্বাচন হলে জয়লাভ কঠিন হতে পারে। তারা একটি সুবিধাজনক সময়ে নির্বাচনে যেতে চায়।’

এতিয়েন মাহজুপায়ানের সঙ্গে একমত পোষণ করেন তুরস্কের আরেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক তাহা আয়কল। বিশেষ করে জাতীয়তাবাদী দল লি পার্টির জনপ্রিয়তা বেড়ে গেলে তাতে সমস্যা হতে পারে একে পার্টি ও এমএইচপির বলে মনে করেন তিনি।

আয়কল মনে করেন, তিনটি বড় বিরোধী দল আলাদাভাবে নির্বাচন করবে। তাদের মধ্যে জোট হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। এটা একে পার্টি ও এমএইচপির জন্য বড় সুযোগ।

তিনি বলেন, ‘দেশে বর্তমানে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি রয়েছে। তবে মুদ্রাস্ফীতি, সুদের হার এখনো বেশি। অন্য দেশের মতো অর্থনৈতিক পরিস্থিতিও আগামী নির্বাচনে তুরস্কের জন্য বড় বিষয় হয়ে দাঁড়াবে। একে পার্টি ও এমএইচপি এর ঝুঁকি নিতে চায় না।’

সূত্র: আল জাজিরা

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.