কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবেশন করা হলো বাংলাদেশি খাবার
কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবেশন করা হলো বাংলাদেশি খাবার
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও বাংলাদেশ সপ্তাহ উদযাপন

কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবেশন করা হলো বাংলাদেশি খাবার

নিজস্ব প্রতিবেদক

কানাডায় কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আর বাংলাাদেশ সপ্তাহ উদযাপিত হয়েছে। আর পরিবেশনন করা হয়েছে বাংলাদেশি খাবার।

কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্যোগে ১৯ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত ৯ দিনব্যাপী বাংলাদেশ সপ্তাহ ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা সপ্তাহ পালিত হয়েছে। ইকুয়েডর, চিলি, নেপাল, জিম্বাগুয়ে ও চীনের ছাত্র-ছাত্রীরা এতে অংশ নেয়।

অনুষ্ঠানমালায় ছিল বাংলার গল্প বলা ও মৌখিক ইতিহাস। ১৯৭১ সনের মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিতে তৌকির আহমেদ পরিচালিত প্রামাণ্যচিত্র ’জয়যাত্রা প্রদর্শিত হয়।

মাতৃভাষা দিবস স্মরণে আলোচনা ও বিভিন্ন ভাষা-ভাষী ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণের ঐতিহ্যমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রীরা শামসুর রহমানের কবিতা, রবীন্দ্রনাথের সঙ্গীত ও বাউল গান পরিবেশশন করেন।

এতে ইকুয়েডর, চিলি, নেপাল, জিম্বাবুয়ে ও চীনের ছাত্র-ছাত্রীরা নিজ নিজ ভাষায় কবিতা, গান যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন। তবে উল্লেখযোগ্য ছিল ইকুয়েডর, চিলি, নেপাল, জিম্বাবুয়ে ও চীনের ছাত্র-ছাত্রীদের বাংলাদেশি খাবারে আপ্যায়িত করা হয়। এবং সবার মাছে বাংলাদেশি খাবার বেশ প্রশংসাও কুড়ায়।

এমন আয়োজনে অভিভূত হয়ে কিংস্টন মিউনিসিপ্যালিটির ডেপুটি মেয়র জিম নীল নগরীরর নীতিমালায় বহুজাতিক সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্তি ও চর্চায় সহায়ক পরিবেশ গঠনে তার দৃঢ অবস্থান ব্যক্ত করেন। এ সম্পর্কিত একটি জননন্দিত পোস্টার উপস্থাপন করা হয়।

অপরদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট অধ্যাপক গিল স্কট বহু সংস্কৃতির ছাত্র-ছাত্রীদের বৈচিত্রময় উপস্থিতি ও অবর্ণবাদী পরিবেশ সংরক্ষণে কর্তৃপক্ষের অবস্থান তুলে ধরেন ।

আর প্রাধ্যক্ষ অ্যাকাডেমিক দফতরের পরিচালক মিস হিথার কিনকেইড কুইনস বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু সাংস্কৃতিক অবস্থান সংরক্ষণে গৃহীত কার্যক্রম ও সক্রিয়তা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষ থেকে শাহরিয়ার জামান অংশগ্রহণকারী সকল ভাষাভাষী ছাত্র-ছাত্রীদের ধন্যবাদ জানান। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

বাংলাদেশি কমিউনিটির পক্ষ থেকে ছাত্র-ছাত্রী কর্তৃক বাংলাদেশ সপ্তাহ উদযাপনে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়। অনুষ্ঠান পরিকল্পনায় ও অলংকরণে বাংলাদেশি ছাত্র-ছাত্রী গোলাম রাব্বানী শিহাব, তানজিয়া তাহেরীন ও রেশমা পারভীনকে ধন্যবাদ জানান হয়। অনুষ্ঠান সঞ্চালনে ও সার্বিক বস্থাপনায় ছিলেন নাজিফা চৌধুরী, আনিকা মজুমদার এবং বাসমাহ্ রহমান।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.