হাইনান দ্বীপ
হাইনান দ্বীপ

ভিসা ছাড়াই ঘুরে আসতে পারবেন এই দ্বীপে

নয়া দিগন্ত অনলাইন

চীন বুধবার তার দক্ষিণাঞ্চলীয় হাইনান দ্বীপ ভিসা ছাড়াই সফর করার অনুমতি দিচ্ছে। খবর এএফপি’র।

বেইজিংয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রাষ্ট্রীয় অভিবাসন প্রশাসনের উপ-পরিচালক কু ইনহাই বলেন, নতুন এই নীতিমালা আগামী মে মাস থেকে চালু করা হবে। এর আওতায় বিশ্বের ৫৯টি দেশের পর্যটকরা ভিসা ছাড়াই ৩০ দিনের জন্য হাইনান সফরের সুযোগ পাবেন।

চীনের সরকারি বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানায়, এই কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে এমন আরো দেশের মধ্যে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানির নাম রয়েছে।

নতুন নিয়মে চীনের বাকি অংশের তুলনায় হাইনান সফরে ভিসা জটিলতা সহজ হবে। এ ছাড়া এই আইনে বিদেশে চীনের কনস্যুলেটের মাধ্যমে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন পর্যটকরা।

 

চীনের টেলিকমসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

রয়টার্স

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে চীনভিত্তিক টেলিকমসামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেডটিই করপোরেশনের পার্টস ও সফটওয়্যার বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। মার্কিন বাণিজ্য দফতরের এই নিষেধাজ্ঞা আগামী সাত বছরের জন্য এই বিধিনিষেধ কার্যকর থাকবে।

মার্কিন বাণিজ্য দফতরের এই নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে চীন। দেশটি বলছে, চীনা প্রতিষ্ঠানগুলোর সুরক্ষায় যে কোনো পদক্ষেপ নিতে তারা প্রস্তুত রয়েছে। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে রিপাবলিকান পার্টির দুই সিনেটর যুক্তরাষ্ট্রের টেলিকম খাতে এ দুই প্রতিষ্ঠানের প্রবেশ ঠেকাতে কংগ্রেসে একটি বিল তোলেন। তাদের বক্তব্য, চীনা প্রতিষ্ঠানের সরঞ্জাম ব্যবহার করলে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা হুমকিতে পড়তে পারে। এর মধ্যেই সাত বছরের জন্য জেডটিই বর্জনের ঘোষণা দিলো যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দফতর। সিনেটে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব উত্থাপনকারী দুই সিনেটর হচ্ছেন ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান পার্টি থেকে নির্বাচিত ফ্লোরিডার মার্কো রুবিও এবং আলাস্কার টম কটন। এর আগে দলটির আরো দুজন আইনপ্রণেতা মাইকেল কোনাওয়ে ও লিজ চেনি একই ধরনের বিল তুলেছিলেন।

মার্কিন হাউজ ইন্টেলিজেন্স কমিটির ২০১২ সালের এক রিপোর্টে বলা হয়, জেডটিইর সাথে চীন সরকারের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। ফলে তাদের সরঞ্জাম ব্যবহারে তথ্য চুরির আশঙ্কা থাকে। নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরানের সাথে ব্যবসায়িক লেনদেন এবং বেআইনিভাবে দেশটিতে মার্কিন প্রযুক্তি সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। জেডটিই অবশ্য বরাবরই দাবি করে আসছে, তাদের সরঞ্জাম গ্রাহকদের জন্য নিরাপদ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.