ads

ঢাকা, শুক্রবার,২০ এপ্রিল ২০১৮

নগর মহানগর

ট্রেন দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে টঙ্গীতে রেলের তদন্ত কমিটি ষ

টঙ্গী সংবাদদাতা

১৭ এপ্রিল ২০১৮,মঙ্গলবার, ০১:১৮


প্রিন্ট
টঙ্গী জংশনের আউটার সিগনালে ঢাকাগামী জামালপুর কমিউটার ট্রেনের দুর্ঘটনাস্থল গতকাল সোমবার পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ রেল মন্ত্রণালয়ের রেলপথ সচিব মো. মোফাজ্জল হোসেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন সংশ্লিষ্ট ঘটনায় গঠিত পৃথক দুই তদন্ত কমিটির সদস্যরা।
তদন্ত টিম টঙ্গী রেল স্টেশনের রিলে রুম, সুইচ রুম এবং দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় রেলপথ সচিব মোফাজ্জল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, রেল আইন মোতাবেক নিহতদের ১০ হাজার টাকা করে চারজনকে ৪০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। রোববার রেল মন্ত্রী মুজিবুল হক দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি রেল যাত্রীর হতাহতের ঘটনায় রেলের পক্ষ থেকে যে ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন সে মোতাবেক রেল কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে। তিনি আরো জানান, এ বিষয়ে রেলওয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিভাগীয় পর্যায়ে ৫ সদস্যের এবং জোনাল পর্যায়ে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ সময় তার সাথে ছিলেন, রেলের উপ সচিব নুরে আলাম সিদ্দিকী, এডিজি-অপারেশন মো. মিয়াজান, ডিএসটিই চন্দন কান্তী দাশ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী-ট্র্যাক (পূর্ব চট্টগ্রাম) তানভিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত সিওপিএস (পূর্ব চট্টগ্রাম) সুজিত কুমার বিশ্বাস, ডিটিও-ঢাকা মাহবুবুর রহমান প্রমুখ।
তদন্ত কমিটির সদস্যরা টঙ্গী স্টেশনে অব্যবস্থাপনা ও নোংরা পরিবেশ দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন। তারা স্টেশন মাস্টারের কাছে জানতে চান, রেল দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও অসংখ্য সাংবাদিক দুই দিন ধরে টঙ্গী স্টেশনে আসছেন। এই সময়ে যদি স্টেশনে নোংরা পরিবেশ ও অব্যবস্থাপনা থাকে তাহলে আর ভালো হবে কবে। বিশেষ করে এত গুরুত্বপূর্ণ একটি জংশনের নিয়ন্ত্রণ কক্ষে শীতাতপ (এসি) ব্যবস্থা নেই। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ঊর্র্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে কখনো কোনো নোট দেয়া হয়েছে কি না তাও তারা জানতে চান। এছাড়া স্টেশনের প্লাটফর্ম ও আশপাশে মনুষ্য মল-মূত্রসহ দুর্গন্ধময় ময়লা আবর্জনায় নোংরা পরিবেশ বিরাজমান। স্টেশন সুইপারদের বিলে কে স্বাক্ষর করেন তাও জানতে চায় তদন্ত কমিটি। তদন্তকারী কর্মকর্তারা স্টেশনের রিলে রুম, সুইচ রুম এবং দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে খুঁটিনাটি বিষয় নোট করেন। আরো দুদিন তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে বলেও তারা জানান।

 

ads

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫