ঢাকা, মঙ্গলবার,২৪ এপ্রিল ২০১৮

নগর মহানগর

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যে বিএনপির উপকার হয় : নোমান

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৭ এপ্রিল ২০১৮,মঙ্গলবার, ০০:০০


প্রিন্ট

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের হিংসাত্মক বক্তব্যে বিএনপির উপকার হয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান।
তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য শুনলেই মনে হয় যেন এই একটা আশ্চর্য গলা, স্বর। যে স্বরে কথা বললে আমাদের (বিএনপি) অনেক উপকার হয়। তার হিংসাত্মক যে বক্তব্য, সেই হিংসাত্মক বক্তব্যকে প্রতিহত করার একটি শক্তি অর্জন করে আমাদের নেতাকর্মীরা। তাই তার (ওবায়দুল কাদের) বক্তব্যকে আমরা সব সময় ওয়েলকাম করি। যেন তিনি তার বক্তব্য দিয়ে যান এবং জনগণ আরো বেশি আমাদের পক্ষে আসে।
রাজধানীর সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে গতকাল বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ হওয়ার ছয় বছর পূর্তি উপলক্ষে আলোচনা সভায় নোমান এসব কথা বলেন। সংগঠনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা: রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সঞ্চালনায় এতে আরো বক্তৃতা করেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, মুসলিম লীগের মহাসচিব জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, ইয়ুথ ফোরামের সহসভাপতি মাহমুদুল হাসান শামীম, সাবেক ছাত্রনেতা ভিপি ইব্রাহীম, বিএনপি নেতা ইসমাইল তালুকদার খোকন, কৃষকদলের শাহবাগ থানা সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সভাপতি আমির হোসেন বাদশা প্রমুখ।
আওয়ামী লীগের শাসনামলের সমালোচনা করে আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, আওয়ামী লীগ এমনই একটি দল তাদের রয়েছে প্রতিপক্ষকে নিশ্চিহ্ন করার ইতিহাস। যে দল মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, সেই দল জোরপূর্বক মওলানা ভাসানীকে বের করে দিয়ে শেখ মুজিবুর রহমান সাহেব দখল করেছিলেন। আওয়ামী লীগেরর ভেতরের রূপ স্বৈরাচার। যে স্বৈরাচারের প্রকাশ কয়েকদিন আগে আমরা দেখেছি। ১৯৫৭ সালেও তারা (আওয়ামী লীগ) ডাণ্ডা দিয়ে ঠাণ্ডা করতে চেয়েছিল প্রতিপক্ষকে।
বিএনপি আগামী নির্বাচনে যেতে চায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলতে চাই, দেশে একটা নির্বাচন হবে সেই নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করব। সেই নির্বাচনের আগে আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব, আমরা নির্বাচনের আগে আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীদের মুক্ত করব, আমরা বন্দী মুক্তি আন্দোলন করব। আমরা এই বন্দী মুক্তি ছাড়া এগিয়ে যেতে চাই না। অবশ্যই নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচনের ব্যবস্থা সরকারকে করতে হবে।
একই সাথে গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের দাবিও জানান নোমান।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫