ঢাকা, সোমবার,২৩ এপ্রিল ২০১৮

ফুটবল

সিটিকে শিরোপা উপহার দিলো ইউনাইটেড

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৬ এপ্রিল ২০১৮,সোমবার, ১৩:০১ | আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৮,সোমবার, ১৩:০৬


প্রিন্ট

ওয়েস্ট ব্রুমের কাছে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ১-০ গোলে পরাজিত হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। আর এতেই পাঁচ ম্যাচ হাতে রেখে ম্যানচেস্টার সিটির এবারের আসরের প্রিমিয়ার লীগের শিরোপা নিশ্চিত হয়ে গেছে।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইউনাইটেডের থেকে ১৬ পয়েন্টের সুস্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে সিটির শিরোপা জয় নিশ্চিত হয়। বাকি ম্যাচগুলো থেকে ইউনাইটেড সর্বোচ্চ ১৫ পয়েন্ট সংগ্রহ করতে পারবে। টেবিলের তলানিতে থাকা ওয়েস্ট ব্রুমের বিপক্ষে জয় তুলে নিয়ে ইউনাইটেড গাণিতিক ভাবে হয়ত সিটির শিরোপা জয় কিছুটা বিলম্বিত করতে পারবো। কিন্তু ৭৩ মিনিটে জে রড্রিগুয়েজের হেড স্বাগতিক সমর্থকদের হতবাক করে দেয়, একইসাথে শেষ পর্যন্ত মৌসুমে একবারের জন্য হলেও ওয়েস্ট ব্রুমউইচের খেলোয়াড়রা কোচ ড্যারেন মুরকে ইতিবাচক কিছু উপহার দিতে পারলো। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে পেপ গার্দিওলাকে ধরার মত এখন আর কোন দলই থাকলো না। এর মাধ্যমে ইংলিশ ফুটবলে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রথমবারের মত প্রিমিয়ার লীগের শিরোপা জয়ের স্বাদ পেলেন কাতালান কোচ গার্দিওলা।

মৌসুমের প্রায় অর্ধেকটা সময় জুড়েই আধিপত্য ধরে রাখা সিটির জন্য পঞ্চমবারের মত ইংলিশ লীগের শিরোপা দখল সময়ের ব্যাপার ছিল। কিন্তু মাত্র এক সপ্তাহ আগে নগর প্রতিদ্বন্দ্বি ইউনাইটেডের কাছে ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ৩-২ গোলে পরাজিত হয়ে একটু আগে ভাগেই শিরোপা উৎসব থেকে বঞ্চিত হয়েছিল সিটিজেনরা। একইসাথে ইউনাইটেডও শিরোপা জয়ের ক্ষীণ একটি আশা নিয়ে একটু একটু করে এগিয়ে যাচ্ছিল। প্রথমার্ধে ২-০ গোলে পিছিয়ে থাকার পরেও হোসে মরিনহোর দলের ৩-২ গোলের জয় অনেকটাই আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছিল সমর্থকদের। যে কারনে রোববার ম্যাচের আগে অনেকটাই নির্ভার ছিল ইউনাইটেড খেলোয়াড়রা। জানুয়ারির পর থেকে লীগে যে দলটি একটি ম্যাচও জিততে পারেনি তাদের বিপক্ষে নির্ভার থাকাটাই স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু মূল ধারার বাইরে গিয়ে ইউনাইটেডের এই হতাশাজনক পরাজয় অনেককেই মেনে নিতে পারছে না।

মাত্র চার মাসের মেয়াদে দলকে ১৮ ম্যাচে একটি জয় উপহার দেয়া কোচ এ্যালান পারডেওকে এপ্রিলের শুরুতে বরখাস্ত করেছিল ওয়েস্ট ব্রুম। যদিও ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের এই জয় ব্যাগিসদের জন্য কিছুটা দেরীই হয়ে গেছে। লীগে তাদের আর মাত্র চারটি ম্যাচ বাকি রয়েছে। কিন্তু এখনো তারা রেলিগেশন জোন থেকে বাঁচতে নয় পয়েন্ট দুরে রয়েছে।

ম্যাচের শুরুতে ইউনাইটেড পজিশনের দিক থেকে আধিপত্য ধরে রেখেছিল। কিন্তু রোমেলু লুকাকু ও এ্যালেক্সিস সানচেজ প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগের ওপর খুব একটা চাপ সৃষ্টি করতে পারেনি। লুকাকুর একটি শট ওয়েস্ট ব্রুম গোলরক্ষক বেন ফস্টার সহজেই আটকে দেন। প্রথম ৪৫ মিনিটে সফল না হওয়ায় বিরতির পরে এ্যান্ডার হেরেরার স্থানে জেসে লিনগার্ডকে মাঠে নামান মরিনহো। আর এতে ইউনাইটেডের আক্রমনের ধার বাড়ে। ওয়েস্ট ব্রুমও বেশ কয়েকটি আক্রমন করলেও ইউনাইটেডের রক্ষণভাগের দৃঢ়তায় সফল হয়নি। ৫৮ মিনিটে পল পগবার স্থানে মাঠে নামেন এ্যান্থনি মার্শাল। এতে করে ওল্ড ট্র্যাফোর্ড কিছুটা হলে প্রাণ ফিরে পায়। ৭৩ মিনিটে ক্রিস ব্রান্টের কর্ণার থেকে রড্রিগুয়েজের হেড ওয়েস্ট ব্রুমকে এগিয়ে দেয়।

এই গোল পরিশোধ করার আর কোনো সুযোগ পায়নি ইউনাইটেড। আর এতেই ক্লাব ইতিহাসে অন্যতম স্মরণীয় এক জয় তুলে নেয় ওয়েস্ট ব্রুম। বিশেষ করে সিটি সমর্থকরা এই ম্যাচটির কথা নিঃসন্দেহে অনেকদিন মনে রাখবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫