ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৬ এপ্রিল ২০১৮

উপমহাদেশ

আসিফার পর চরম নিষ্ঠুরতার শিকার আরেক শিশু : গায়ে ৮৬টি ক্ষত

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৬ এপ্রিল ২০১৮,সোমবার, ১০:৪১


প্রিন্ট
কাঠুয়া ও উন্নাও ধর্ষণ নিয়ে যখন দেশ তোলপাড়, তার মধ্যেই এই ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় ক্ষোভ আরও বেড়েছে।

কাঠুয়া ও উন্নাও ধর্ষণ নিয়ে যখন দেশ তোলপাড়, তার মধ্যেই এই ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় ক্ষোভ আরও বেড়েছে।

ভারতশাসিত কাশ্মীরের কাঠুয়ার আসিফা বানোর মতোই অবস্থা হয়েছিল সুরাটের নাবালিকার? গুজরাটের ভেস্টান এলাকা থেকে ৮৬টি ক্ষতসহ যে কিশোরীর দেহ উদ্ধার করা হয়েছিল, তাকে বন্দি করে রেখে দিনের পর দিন তার উপর যৌন অত্যাচার চালানো হয়েছে বলে মনে করছেন চিকিত্‍‌সকরা।

৬ এপ্রিল একটি ক্রিকেট মাঠের ঝোপের ধারে মেয়েটির দেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন পথচারীরা। শহরের পুলিশ কমিশনার জানিয়েছেন, ‘দেহটি হাইওয়ের ধারে পড়ে ছিল। শিশুটির উপর যৌন নির্যাতন চালানো হয় এবং ৫ এপ্রিল তাকে খুন করা হয়।’ খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

পাণ্ডেসারা পুলিশ স্টেশনের ইন্সপেক্টর কেবি ঝালা জানিয়েছেন, ‘পুলিশ এখনো মেয়েটির পরিচয় জানতে পারেনি। আমরা সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের সাহায্য নিয়েছি। হোয়াটসঅ্যাপসহ অন্যত্র মেয়েটির ছবি ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। কেউ যদি ওকে দেখে চিনতে পায়। মেয়েটির বয়স আনুমানিক ১১ বছর। ’

শহরের যে হাসপাতালে শিশুটির দেহ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে, তার ডাক্তার গণেশ গোভেকর জানিয়েছেন, মৃতার শরীরে ৮৬টি ক্ষতচিহ্ন মিলেছে। গোভেকরের মতে, ‘ক্ষতের ধরন থেকে মনে হচ্ছে, দেহ উদ্ধারের আগে এক সপ্তাহ সময় ধরে সেই আঘাত লেগেছে। এর থেকেই মনে করা হচ্ছে, মেয়েটিকে হয়তো বন্দি করে রেখে, তার উপর অত্যাচার চালানো হয়েছে। হয়তো ধর্ষণও করা হয়েছে।’

শিশুটির সম্পর্কে কোনোরকম তথ্য দিতে পারলে ২০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়া হবে বলে ঘোষণা করেছে পুলিশ। বিষয়টি খতিয়ে দেখছে ফরেনসিক সায়েন্স ল্যাবরেটরি। পক্সো ভারতীয় দণ্ডবিধির অন্যান্য ধারায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

কাঠুয়া ও উন্নাও ধর্ষণ নিয়ে যখন দেশ তোলপাড়, তার মধ্যেই এই ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় ক্ষোভ আরও বেড়েছে দেশবাসীর। ধর্ষকদের কঠোর শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছে সবাই।

আসিফাকে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এক সরকারি কর্মকর্তাসহ চার পুলিশ সদস্যকে অভিযুক্ত করেছেন ভারতের আদালত। মধ্য জানুয়ারির ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মঙ্গলবার দিন অভিযোগপত্র জনসম্মুখে আনা হয়। জানুয়ারিতে এ নিয়ে তেমন উত্তেজনা না হলেও এ ঘটনায় অভিযোগপত্র দেয়ার পর সোচ্চার হয়ে উঠেছে বলিউডসহ সারা ভারত। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শনিবার পদত্যাগ করেছেন রাজ্য সরকারের শরিক বিজেপির দুই মন্ত্রী।

উল্লেখ্য, কাশ্মিরের শিশু আসিফাকে সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এক সরকারি কর্মকর্তাসহ চার পুলিশ সদস্যকে অভিযুক্ত করেছেন ভারতের আদালত। মধ্য জানুয়ারির ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মঙ্গলবার দিন অভিযোগপত্র জনসম্মুখে আনা হয়। জানুয়ারিতে এ নিয়ে তেমন উত্তেজনা না হলেও এ ঘটনায় অভিযোগপত্র দেয়ার পর সোচ্চার হয়ে উঠেছে বলিউডসহ সারা ভারত। আসিফাকে মন্দিরের ভেতর ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়।

অপরদিকে, গত বছর উত্তর প্রদেশের উন্নাওয়ে ১৮ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে রাজ্যের বিধায়ক কুলদীপ সিং সেঙ্গারের বিরুদ্ধে৷ এতোদিন এর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়া হলেও প্রতিবাদের মুখে গত শুক্রবার ভোররাতে কুলদীপকে আটক করে সিবিআই।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫