পদত্যাগের হিড়িক
পদত্যাগের হিড়িক

পদত্যাগের হিড়িক

নয়া দিগন্ত অনলাইন

শ্রীলঙ্কার জোট সরকারের ছয় মন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার কাছে তারা পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, জোট সরকারের সঙ্গে কাজ অব্যাহত রাখতে তারা অপারগ। 

পদত্যাগ করা এই ছয় মন্ত্রী প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার নেতৃত্বাধীন শ্রীলঙ্কা ফ্রিডম পার্টির (এসএলএফপি) সদস্য। শ্রীলঙ্কার জোট সরকারে ক্ষমতাসীন ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির একটি অংশীদার দল হচ্ছে এসএলএফপি।

আর ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির নেতৃত্বে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। পদত্যাগ করা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়কমন্ত্রী অনুড়া প্রিয়াদর্শনা ইয়াপা সাংবাদিকদের বলেন, এই ছয় মন্ত্রী পদত্যাগের মধ্যদিয়ে এসএলএফপির মোট ১৬ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী তাদের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন।

বুধবার সন্ধ্যায় ওই ১৬ জনের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা। পদত্যাগ করা পূর্ণ মন্ত্রীরা হচ্ছেন-ক্রীড়ামন্ত্রী দয়াসিরি জয়াসেকারা, সামাজিক ক্ষমতায়ন ও কল্যাণ বিষয়কমন্ত্রী এস.বি দিসসানায়াকে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়কমন্ত্রী অনুড়া প্রিয়াদর্শনা ইয়াপা, শ্রমমন্ত্রী জন সেনেভিরত্নে, বিজ্ঞান, তথ্য ও গবেষণা বিষয়কমন্ত্রী সুসীল প্রেমাজয়ন্ত এবং দক্ষতা উন্নয়ন ও ভোকেশনাল ট্রেনিং বিষয়কমন্ত্রী চান্দিমা বিরাক্কোদি।

এদিকে প্রেসিডেন্ট অফিসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এই ১৬ আইনপ্রণেতা সরকারে না থাকলেও তারা প্রেসিডেন্ট সিরিসেনার প্রতি তাদের সমর্থন অব্যাহত রাখবেন।

অন্যদিকে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার প্রদানকারী সম্মানজনক প্রতিষ্ঠান সুইডিশ অ্যাকাডেমির প্রধান সারা দানিয়ুস পদত্যাগ করেছেন। একটি যৌন কেলেঙ্কারি নিয়ে তদন্ত নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির সমালোচনার মুখে সারা পদত্যাগ করলেন। 

একাডেমির এক সদস্যের স্বামীর বিরুদ্ধে যৌন অসদাচরণ অভিযোগ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি কয়েক সপ্তাহ ধরেই বেশ চাপের মুখে ছিল। বিশ্বব্যাপী চলমান ‘মি টু’ আন্দোলনে অনুপ্রাণিত হয়ে গেলো বছরের নভেম্বরে ১৮ জন নারী সুইডিশ অ্যাকাডেমির সদস্য কাতারিনা ফ্রোস্টেনসনের স্বামী জ্যঁ ক্লদ আরনলের বিরুদ্ধে যৌন অসদাচরণের বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনে।

সারা দানিয়ুস বলেন, যৌন কেলেঙ্কারি নোবেল পুরস্কারের কার্যক্রমকে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে এবং এটা একটি বড় সমস্যা। সারা বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, অ্যাকাডেমির ইচ্ছা ছিল আমি যেন পার্মানেন্ট সেক্রেটারির পদ থেকে সরে দাঁড়াই। তাই আমি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেটি এই মুহূর্ত থেকে কার্যকর হবে।
সুইডিশ অ্যাকাডেমির সদস্যরা ‘কার্যত’ পদত্যাগ করতে পারেন না। তবে তারা অ্যাকাডেমির কার্যক্রম থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিতে পারেন।

ওই কেলেঙ্কারির পর তদন্তের ঘোষণা দেয় সুইডিশ অ্যাকাডেমি। কিন্তু পুরো বিষয় নিয়ে একটা ‘ধোঁয়াশা’ তৈরি করে প্রতিষ্ঠানটি। এর আগে ১৮ সদস্যের সুইডিশ অ্যাকাডেমি কমিটির তিন সদস্য পদত্যাগ করেন। এদিকে জ্যঁ ক্লদ আরনল তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.