নেতানিয়াহু একজন সন্ত্রাসী, দখলদার: এরদোগান
নেতানিয়াহু একজন সন্ত্রাসী, দখলদার: এরদোগান

নেতানিয়াহু একজন সন্ত্রাসী, দখলদার: এরদোগান

এএফপি

গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি হামলায় ১৭ ফিলিস্তিনি নিহত ও অন্তত দেড় হাজার বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন। গাজায় অমানবিক হামলার জন্য ইসরাইলের নিন্দা জানিয়ে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে একজন সন্ত্রাসী হিসেবে অভিযুক্ত করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।

তুরস্কের উত্তরাঞ্চলের আদানায় টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে রোববার তিনি বলেন, হে নেতানিয়াহু, আপনি একজন দখলদার, একজন দখলদার হিসেবেই আপনি ওই ভূমিতে অবস্থান করছেন। একইভাবে আপনি একজন সন্ত্রাসী। ফিলিস্তিনিদের নিপীড়নে আপনি যাই করুন না কেন, তা ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবে। আমরা কখনই তা ভুলব না। দখলদারদের বিরুদ্ধে কোনো কর্মকাণ্ডে আমাদের কোনো অনুশোচনা থাকবে না।

নিজেদের ভিটেমাটিতে ফিরে যাওয়ার দাবিতে গাজা উপত্যকায় শুক্রবারের বিক্ষোভে গুলি চালিয়ে ইসরাইলি সেনাবাহিনী ১৭ নিরপরাধ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে।

 

যারা সন্ত্রাসীদের সাথে বিছানা ভাগাভাগি করেন, তারা তাদের ভুলগুলো টের পাবেন : এরদোগান

আল-জাজিরা

সিরিয়ায় কুর্দি যোদ্ধা ও আঙ্কারার মধ্যে ফ্রান্সের সমঝোতার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। সিরিয়ায় সক্রিয় কুর্দি ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন পার্টি (পিওয়াইডি) ও তাদের সশস্ত্র শাখা ওয়াইপিজিকে সন্ত্রাসী সংগঠন মনে করে আঙ্কারা। তাদের সঙ্গে কুর্দি ওয়ার্কাস পার্টিরও (পিকেকে) সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন কুর্দিদের একটি প্রতিনিধি দলকে প্যারিসে আমন্ত্রণ জানিয়ে সিরীয় ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সেস (এসডিএফ) ও তুরস্ক সরকারের মধ্যে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছেন। শুক্রবার তা প্রত্যাখ্যান করে রাজধানী আঙ্কারায় এক বৈঠকে ম্যাক্রোঁকে উদ্দেশ্য করে এরদোগান বলেন, একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে তুরস্কের মধ্যস্থতা করতে আসার আপনি কে? এসডিএফকে কুর্দি পিপলস প্রটেকশন ইউনিটস (ওয়াইপিজি) পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আসছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, যারা সন্ত্রাসী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের আমন্ত্রণ জানায়, যাদের দেশে এই সন্ত্রাসীরা স্বাধীনভাবে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারে, তাদের ব্যাপারে সতর্ক হওয়া দরকার। তুরস্কের বিরুদ্ধে তারা শত্রুতা ছাড়া আর কিছু করছে না।

এরদোগান বলেন, পিওয়াইডি ও ওয়াইপিজির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকের পর নিজের মাটিতে কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হামলা নিয়ে অভিযোগ করার অধিকার ফ্রান্সের নেই। যারা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে বিছানা ভাগাভাগি করেন এবং যারা তাদেরকে নিজেদের প্রাসাদে আমন্ত্রণ জানান, আগে-পরে যখনই হোক, তারা তাদের ভুলগুলো টের পাবেন। সিরিয়া ও ইরাক থেকে পালিয়ে যাওয়া সন্ত্রাসীতে ফ্রান্স যখন পূর্ণ হয়ে যাবে, তখন আমাদের কাছে সাহায্য চাওয়ার সাহসও তাদের থাকবে না।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.