লাল-সাদায় বৈশাখ
লাল-সাদায় বৈশাখ

লাল-সাদায় বৈশাখ

এ কে রাসেল

পয়লা বৈশাখ বাঙালির প্রাণের উৎসব। নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার এই দিনে বাঙালি মেতে ওঠে বর্ণে, সৌরভে ও উচ্ছ্বাসে। উৎসব আর আনন্দের সাথে স্বাগত জানায় নতুন বছরকে। তাই তো পোশাক ও সাজসজ্জাও হয় উৎসবকেন্দ্রিক।

পয়লা বৈশাখের সাজ-পোশাকের রয়েছে আলাদা বৈশিষ্ট্য। যে পোশাক বহন করে নববর্ষের আমেজ। তাই বুটিক হাউজগুলো এসব পোশাক তৈরি করে খুবই যত্নের সাথে। থাকে নিরীক্ষাধর্মী ও মননশীল কাজের প্রকাশ। থাকে পোশাকের মধ্য দিয়েই আমাদের নিজস্ব ঐতিহ্য ও কৃষ্টিকে তুলে ধরার প্রয়াস, প্রচেষ্টা। তাই তো বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী অনুষঙ্গ পোশাকের মোটিফ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। হাতপাখা, কুলা, শিকা, শখের হাঁড়ি, পিঠা, কলকা প্রভৃতি মোটিফ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এ বছরও এর ব্যতিক্রম হয়নি। ফ্যাশন হাউসগুলো বাঙালির কৃষ্টির বিভিন্ন অনুষঙ্গ মোটিফ হিসেবে ব্যবহার করে ডিজাইন করেছে বৈশাখের কালেকশন। সাদাকালো ‘শখের হাঁড়ি’ মোটিফ হিসেবে ব্যবহার করে তৈরি করেছে তাদের বৈশাখী কালেকশন। ইউডোর পোশাকে প্রাধান্য পেয়েছে ফুল ও প্রকৃতি। শীতল পাটি, দেয়াল চিত্র, মঙ্গলঘট, মঙ্গল শোভাযাত্রা, নকশি, পিঠা, রিকশাচিত্র, ফুল, পাখি প্রজাপতি প্রভৃতি মোটিফ হিসেবে উঠে এসেছে বৈশাখের পোশাকে।

পোশাকের ডিজাইনেও রয়েছে পুরনো ও নতুনের সমন্বয়। মেয়েদের জন্য রয়েছে শাড়ির পাশাপাশি সালোয়ার কামিজ, টপস, লং স্কার্ট, পালাজ্জো, গাউন ইত্যাদি। ছেলেদের পোশাকের সম্ভারে রয়েছে পাঞ্জাবি, ফতুয়া, শার্ট, পলোশার্ট, ধুতি ও উত্তরীয়। একই ডিজাইন ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে শিশু, কাপল ও ফ্যামিলি ড্রেস।
রঙ হিসেবে বৈশাখের চিরাচরিত সাদা ও লাল প্রাধান্য পেয়েছে। তবে পাশাপাশি, সবুজ, নীল, কমলা, কালো, মেরুন, হলুদ রঙ ব্যবহার করে স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লকপ্রিন্ট, হ্যান্ড ওয়ার্ক, এমব্রয়ডারি, কারচুপিসহ বিভিন্ন ভ্যালু অ্যাডেড মিডিয়া ব্যবহার করা হয়েছে।

বৈশাখী উৎসবকে ঘিরে আমাদের দেশী ফ্যাশন হাউজগুলো এখন ব্যস্ত পোশাক তৈরিতে। বৈশাখে শতভাগ বাঙালিয়ানা ফুটিয়ে তুলতে চান সবাই বৈশাখের নতুন পোশাকে।
তারই ধারাবাহিকতায় এবারের পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ দেশের অন্যতম ফ্যাশন হাউজ ‘রঙ বাংলাদেশ’ তাদের পোশাকে ফুটিয়ে তুলেছে বৈশাখের ছোঁয়া।

রঙ বাংলাদেশের পোশাক ক্যানভাসে এবার দেখা যাবে বৈশাখ কালেকশনের বিশেষ বৈশিষ্ট্য। বাংলাদেশের পোশাক সংস্কৃতিকে সচেতনভাবে বিবেচনায় রেখেই রঙ বাংলাদেশ তাদের সংগ্রহ সাজিয়ে থাকে। এবারেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বরং এই সময় পারিপার্শ্বিক অবস্থা ও আবহাওয়া পোশাকের উপকরণ নির্বাচনে বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে।

রঙ বাংলাদেশের স্বত্বাধিকারী সৌমিক দাস বলেন, এবারের বৈশাখে তিনটি থিম নিয়ে কাজ করছে রঙ বাংলাদেশ। এগুলো হচ্ছে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটি, মঙ্গল শোভাযাত্রা এবং সাঁওতালচিত্র।
রঙ বাংলাদেশ-এর বৈশাখী পোশাকের আয়োজনের মধ্যে রয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ-ওড়না, সিঙ্গল কামিজ, পাঞ্জাবি, শিশুদের পোশাক, যুগল পোশাক (সালোয়ার-কামিজ+পাঞ্জাবি, শাড়ি+পাঞ্জাবি), ওড়না ও উত্তরীয়। পোশাকে মূল রঙ হিসেবে অফ হোয়াইট, ক্রিম, কোড়া, লাল ও মেরুন ব্যবহৃত হয়েছে। সাহায্যকারী অন্যান্য রঙ হিসেবে কমলা, হলুদ, গেরুয়া, নীল, ফিরোজা, সবুজ, বেগুনি, ম্যাজেন্টা, টিয়া ইত্যাদি ব্যবহৃত হয়েছে। ভ্যালু অ্যাডেড মিডিয়া হিসেবে পোশাকে ব্যবহৃত হয়েছে ব্লকপ্রিন্ট, স্ক্রিনপ্রিন্ট, হ্যান্ড ও মেশিন এমব্রয়ডারি।

রঙ বাংলাদেশের বিভিন্ন পোশাকের বৈশিষ্ট্য এবার বৈশাখে শাড়ির নতুনত্বে রয়েছে স্কার্টপাড়, জোড়াশাড়ি। এই দুয়ের প্রাধান্যই বেশি।

বৈশাখ উপলক্ষে রঙ বাংলাদেশ মোট ৫০টির বেশি ধরনের ডিজাইনের শাড়ি তৈরি করেছে। পাঞ্জাবি ৪৫ ধরনের ডিজাইনের, সালোয়ার-কামিজ ৩০ ধরনের ডিজাইনের, সিঙ্গল কামিজ ৪০ ধরনের ডিজাইনের, শিশুদের পোশাক ২৫ ধরনের ডিজাইনে তৈরি করেছে।

অঞ্জন’স-এর বৈশাখের আয়োজনে মোটিফ ও রঙ বেশি গুরুত্ব পেয়েছে। এবারের আয়োজনে অঞ্জন'স বেশ কয়েকটি মোটিফ নিয়ে কাজ করেছে।
অঞ্জন'স-এর কর্ণধর শাহিন আহমেদ জানান, আমাদের দেশের প্রাচীন ঐতিহ্য শীতলপাটি, জামদানি মোটিফ এবং মঙ্গল শোভাযাত্রা থিম নিয়ে এবারের বৈশাখের আয়োজন করেছে অঞ্জন’স। সাদা ও লাল রঙ প্রাধান্য পেলেও অন্যান্য রঙও ব্যবহৃত হয়েছে এ আয়োজনে।

কে-ক্রাফট
ফ্যাশন হাউজটি এবারের পহেলা বৈশাখে নতুন নতুন ডিজাইনের পোশাক নিয়ে তাদের বৈশাখ প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। আমাদের দেশের ট্র্যাডিশনাল ফোক মোটিফ ও সূচিকর্মকে আধুনিকভাবে উপস্থাপনের জন্য ‘কে-ক্রাফট’ ডিজাইন স্টুডিও কাজ করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। নতুন ডিজাইনের শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, টপস, লং কুর্তা, স্কার্ট-টপস, পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট, ফতুয়া, শিশুদের পোশাকসহ নানা উপহারসামগ্রী ও ঘর সাজানোর বৈশাখী অনুষঙ্গ বাজারে এনেছে বৈশাখ উপলক্ষে। রঙের ক্ষেত্রে লাল ও সাদার পাশাপাশি উজ্জ্বল নীল, নেভি ব্লু, মেরুন, ম্যাজেন্টা, গোলাপি, বেগুনি, ব্রাউন, সবুজ, অফ হোয়াইট, বাসন্তী হলুদ, সি-গ্রিন, ফিরোজা, কমলা, বিস্কুট, রঙের উপস্থাপনা নতুনত্ব আনবে তাদের এই কালেকশনে। যেহেতু বৈশাখে পোশাকে বৈচিত্র্য বেশি থাকে, তাই একে বর্ণময় করতে মোটামুটি সব মৌলিক রঙ ব্যবহার করা হয়।

বাংলার মেলা
বৈশাখকে ঘিরে আমরা আনন্দ করতে পছন্দ করি। খাবার আর পোশাক দুটোই থাকে বৈশাখের আনন্দে। বাংলার মেলা প্রতিবারের মতো বাঙালির ঐতিহ্য বৈশাখের পোশাক নিয়ে এবারও আয়োজন করেছে বিশাল কালেকশন। ধারণাগতভাবে বৈশাখী রঙ লাল-সাদা হলেও কমলা, হলুদ, বাসন্তীসহ নানা রঙ ব্যবহার করা হয়েছে এবারের বৈশাখের আয়োজনে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.