ads

ঢাকা, শনিবার,২১ এপ্রিল ২০১৮

অনলাইন জগৎ

থার্ড পার্টির অ্যাপ ব্যবহারে সতর্কতা

আহমেদ ইফতেখার

৩১ মার্চ ২০১৮,শনিবার, ১৫:৪৫


প্রিন্ট


সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে, শুধু সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমেই তথ্য চুরি হতে পারে এমনটা নয়। স্মার্টফোনে থার্ড পার্টির অ্যাপ ব্যবহার করলেও ব্যক্তিগত তথ্য চুরির ঝুঁকি থাকে। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের অনেকেই তাদের ডিভাইসে থার্ড পার্টির অ্যাপ ব্যবহার করেন। এ ধরনের অ্যাপ ব্যবহার করলে তথ্য চুরির আশঙ্কা থাকে। এ কারণে থার্ড পার্টির অ্যাপ ব্যবহার না করতে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের পরামর্শ দিয়েছেন নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা। সম্প্রতি ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা নামে একটি ব্রিটিশ রাজনৈতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ২০১৪ সাল থেকে ফেসবুকের পাঁচ কোটির বেশি গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে।

ফেসবুক গ্রাহকদের না জানিয়ে এসব তথ্য জোগাড় করেছে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৫ সালে এ বিষয়টি ফেসবুকের নজরে আসে। তখন থেকেই সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্টটি ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার কাছে এসব তথ্য মুছে ফেলার দাবি জানিয়ে এলেও তা মুছে ফেলা হয়নি। বিপুলসংখ্যক গ্রাহকের তথ্য কাজে লাগিয়ে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা গত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে প্রভাবিত করে। প্ল্যাটফর্মে বিভিন্ন থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহারের অনুমতি দিয়ে আসছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা যে বিপুলসংখ্যক ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে, তার প্রধান উৎস ছিল একটি অ্যাপ।

বিভিন্ন থার্ড পার্টি অ্যাপের মতোই গ্রাহকদের জন্য ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার অ্যাপ ব্যবহার অনুমোদন দিয়েছিল ফেসবুক। অ্যাপটির ডেভেলপার ডাউনলোডকারী ফেসবুক গ্রাহকের পাশাপাশি তার বন্ধুদের পর্যন্ত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছিল এবং পরে এসব তথ্য ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার কাছে হস্তান্তর করেছে।
সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ক্যাসপারস্কি ল্যাবের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক শ্রেণিক ভায়ানি জানিয়েছেন, সাইবার নিরাপত্তা প্রশ্নে ফেসবুকের ঘটনা আমাদের সবার জন্যই শিক্ষণীয়। আমরা এ ধরনের ক্ষতির শিকার হতে পারি, তা কল্পনাতীত ছিল। গ্রাহক সংখ্যার ভিত্তিতে ভারত প্রযুক্তিপণ্যের বৃহৎ বাজার। এ কারণে থার্ড পার্টির অ্যাপের ডেভেলপার ও তথ্য সংগ্রহকারীদের কাছে দেশটি খুবই আকর্ষণীয়।

 

ads

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫