ঢাকা, সোমবার,২৩ এপ্রিল ২০১৮

ক্রিকেট

হঠাৎ থাইল্যান্ডে তামিম

নয়া দিগন্ত অনলাইন

২২ মার্চ ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ১৫:২২ | আপডেট: ২২ মার্চ ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ১৫:৪০


প্রিন্ট
ব্যাট করছেন তামিম ইকবাল

ব্যাট করছেন তামিম ইকবাল

নিদাহাস ট্রফির ফাইনাল খেলে শ্রীলঙ্কা থেকে সরাসরি থাইল্যান্ডে গিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। পেশোয়ার জালমির হয়ে খেলেছিলেন প্রথম এলিমিনেটর ম্যাচ। কিন্তু ইনজুরির কারণে নামা হয়নি দ্বিতীয় এলিমিনেটরে। চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতে থাইল্যান্ডে গেছেন বাংলাদেশের এই ড্যাশিং ওপেনার।

পাকিস্তানি সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, হাঁটুর ইনজুরিতে ভুগছেন তামিম। উন্নত চিকিৎসার জন্য পাকিস্তান থেকে তিনি চলে গেছেন ব্যাংককে। সেখানে চিকিৎসকদের পরামর্শ নেবেন। প্রয়োজনে পরে পেশোয়ারে যোগ দিবেন। তবে এ বিষয়ে বিসিবির পক্ষ থেকে কিছুই জানানো হয়নি।

এদিকে বুধবার কামরান আকমলের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে করাচিকে ১৩ রানে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে দলটি। চলতি পাকিস্তান সুপার লিগে পেশোয়ারের হয়ে ৫ ম্যাচ খেলার পর জাতীয় দলে খেলতে ফিরে আসেন তামিম। মোট ৬ ম্যাচ খেলে ১৬১ রান করেছেন ৩২.২০ গড়ে। আগামী ২৫ মার্চ ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের বিপক্ষে ফাইনালে মাঠে নামবে পেশোয়ার।

 

পিএসএলের ফাইনালে পেশোয়ার

কামরান আকমলের দুর্ধর্ষ ব্যাটিংয়ে ভর করে পাকিস্তান সুপার লিগের ফাইনালে ওঠে গেল পেশোয়ার জালমি। বুধবার তারা ১৩ রানে হারিয়ে দিয়েছে করাচি কিংসকে।

লাহোরে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে কামরানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ের সুবাদে পেশোয়ার করে ৭ উইকেটে ১৭০ রান। জবাবে করাচি ২ উইকেটে করে ১৫৭ রান। বৃষ্টির কারণে ২০ ওভারের বদলে খেলা হয় ১৬ ওভারের।

কামরানের ২৭ বলে ৭৭ রানই ছিল ম্যাচের প্রধান আকর্ষণ। এর ফলে পেশোয়ার টানা দ্বিতীয়বারের মতো পিএসএলের ফাইনালে ওঠে গেল। করাচি অবশ্য ভুল কৌশলের কারণে হেরে যায়। দ্বিতীয় উইকেটে ১১৭ রানের পার্টনারশিপ গড়েও তারা পিছিয়ে পড়ে। শেষ দুই ওভারে তাদের প্রয়োজন ছিল ৪৪ রানের। কিন্তুতা করার মতো সামর্থ্য থাকলেও তা প্রয়োগ করতে পারেনি।

তবে আকমলের ঝড়ো ইনিংসটিই ম্যাচের গতি পাল্টে দিয়েছিল। ২৭ বলে ৫টি চার আর ৮টি ছক্কার ঝলমলে ইনিংসের কাছে অন্য সবকিছুই ম্লান হয়ে গেছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫