যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে ভয়াবহ নির্যাতন, দু’নারী আটক
যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে ভয়াবহ নির্যাতন, দু’নারী আটক

যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে ভয়াবহ নির্যাতন, দু’নারী আটক

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা

কালিগঞ্জে যৌতুকের জন্য এক গৃহবধূকে ভয়াবহ নির্যাতন করেছে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির অন্যান্য লোকজন। নির্যাতিত ওই নারীর নাম মাহফুজা খাতুন (৩০)। তিনি শ্যামনগর উপজেলার নূরনগর ইউনিয়নের দক্ষিণ হাজিপুর গ্রামের আব্দুল গফ্ফারের মেয়ে। মাহফুজার স্বামী উপজেলার রতনপর ইউনিয়নের আড়ংগাছা গ্রামের অহিদুল্লাহ গাজী। নির্যাতনের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ মাছুমা বেগম (৩০) ও মর্জিনা বেগম (২৫) নামে দু’জনকে আটক করেছে। এছাড়া আহত গৃহবধূকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে।

মাহফুজা খাতুনের বড় ভাই বাবলু মোল্যা জানান, প্রায় ১৪ বছর আগে তার বোন মাহফুজার সাথে কালিগঞ্জ উপজেলার আড়ংগাছা গ্রামের অহিদুল্লাহ গাজীর বিয়ে হয়। তাদের তাপসিয়া (১৩) ও তন্বী (৮) নামে দু'টি মেয়ে রয়েছে। বিয়ের সময় বিভিন্ন উপঢৌকন দেয়ার পরও সম্প্রতি যৌতুক চাওয়ায় তার বোন ও ভগ্নিপতির সাথে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে মাহফুজা বাবার বাড়ি চলে আসে। কিছুদিন পর অহিদুল্লাহ গাজী তালাকনামা পাঠায়। পরবর্তীতে পুলিশ ও গণমান্য ব্যক্তিবর্গ বিষয়টি নিরসনের প্রচেষ্টা চালানোর এক পর্যায়ে গত শনিবার সকালে মাহফুজা খাতুন স্বামীর বাড়িতে ফিরে যায়। ওই দিন বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ঘর থেকে মাহফুজা খাতুনকে টেনেহিছড়ে বের করে স্বামী ও পরিবারের সদস্যরা। এরপর গাছের সাথে বেঁধে রড, তালগাছের বেকো ও সাবল দিয়ে ব্যাপক মাররধর করে। এক পর্যায়ে মাহফুজাকে মৃত ভেবে পরিবারের সবাই বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা কালিগঞ্জ থানায় খবর দিলে পুলিশ গুরুতর আহত অবস্থায় মাহফুজাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করে।

কালিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুবীর দত্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ আহত গৃহবধূকে উদ্ধার করে কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। এ ঘটনায় গৃহবধূর ছোট ভাই লাভলু মোল্লা ভগ্নিপতি অহিদুলসহ তার পরিবারের ৭ জনের নামে থানায় মামলা করেছে (মামলা নম্বর: ৯, তারিখ: ১৭/০৩/১৮ খ্রি.)। পুলিশ গৃহবধূর ননদ মাছুমা বেগম ও জা (স্বামীর বড় ভাইয়ের স্ত্রী) মর্জিনা বেগম নামে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানান।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.