নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান
নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান

খালেদা জিয়া সূত্রই জানেন না, বিজয়ী হবেন কিভাবে : নৌমন্ত্রী

জামালপুর ও দেওয়ানগঞ্জ সংবাদদাতা

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, খালেদা জিয়ার শিক্ষা-দীক্ষা নাই। তিনি সমস্ত পাপীদের নিয়ে দল করেছেন। তিনি যে আন্দোলন করেন তা জনগণের আন্দোলন নয়। সূত্র না জানলে যেমন অংক মিলবে না। খালেদা জিয়া তো সূত্রই জানেন না। তিনি রাজনীতিতে কিভাবে বিজয় লাভ করবেন।

রোববার দুপুরে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় বালাশী-বাহাদুরাবাদ নৌ-রুটের বাহাদুরাবাদ প্রান্তে ফেরিঘাটসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনাদি নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, যত অপকর্মের নায়ক হচ্ছেন তারেক রহমান। তার বুদ্ধিতে বাংলাদেশে অস্থিতিশীল অবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে তারেক জিয়া হল সবচেয়ে বিপদজনক মানুষ। এই বিষয়টি একটি পত্রিকাতেও প্রকাশিত হয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ কখনোই বিরোধী দলীয় নেত্রীকে কারাগারে রেখে নির্বাচন করবে না। আমরা চাই বিরোধী দলীয় নেত্রী কারাগার থেকে বেরিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে।

বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে ও সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন- সংসদ সদস্য ফরিদুল হক খান দুলাল, জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওয়ারেছ আলী মিয়া, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসতিয়াক হোসেন দিদার, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডর মুক্তিযোদ্ধা খাইরুল ইসলাম, দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার মেয়র শাহ নেওয়াজ শাহানশাহ, পরিবহন শ্রমিক নেতা মশিউর রহমান বাবু, মোতালেব মিয়া, মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী সেলিনা বেগম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) বালাশী ও বাহাদুরাবাদে ফেরিঘাটসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনাদি নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে এক শ ২৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে জামালপুর ও গাইবান্ধা জেলাসহ আশেপাশের জেলার মানুষের মালামাল পরিবহন ও যাতায়াত খরচ কমবে এবং সময় বাঁচবে। ফেরি যোগাযোগ পুনরায় চালু হলে সড়কপথের দূরত্ব স্থানভেদে প্রায় ১০০-১৭০ কি:মি: কমে যাবে। ১৯৯৮ সালে বালাশী-বাহাদুরাবাদে ফেরি যোগাযোগ বন্ধ হয়েছিল বলে জানা গেছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.