ঢাকা, শুক্রবার,২৭ এপ্রিল ২০১৮

ক্রিকেট

জয়ের নায়কের অনুভূতি

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৭ মার্চ ২০১৮,শনিবার, ১০:২০ | আপডেট: ১৭ মার্চ ২০১৮,শনিবার, ১০:২৭


প্রিন্ট
মাহমুদুল্লাহর জয়োল্লাস

মাহমুদুল্লাহর জয়োল্লাস

মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। বাংলাদেশ দলের আনসাং হিরো। দলের দু:সময়ে প্রতিরোধ প্রাচীর হয়ে দাঁড়ান। সেই প্রাচীর ভাঙা প্রতিপক্ষের জন্য অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। যেমনটা হলো গতকাল শ্রীলঙ্কার বেলায়। শ্বাসরুদ্ধকর মুহূর্তে নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ কিভাবে রাখতে হয় সেটা তিনি খুব ভালো ভাবেই জানেন। ৪ বলে ১২ রানের দম বন্ধ হওয়া সেই মুহূর্তটি তিনি ঠাণ্ডা মাথায় সামলান। শুধু সামলান বললেও ভুল হবে। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সেরা একটি মুহূর্ত বানিয়ে দিয়েছেন। এই আনসাং হিরোই হয়েছেন ম্যান সেরা।

পুরস্কার নিতে এসেও সাবলীল ভাষায় বললেন ম্যাচ সম্পর্কে। জানালেন নিজের অনুভূতি, 'আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস। যখন সাকিব ক্রিজে এলো, তখন জয়ের ক্ষুধা আরো বেড়ে গেলো। ঠিক করলাম, যত শক্তি আছে তা দিয়ে ব্যাট চালাবো। যখন সাকিব আউট হয়ে গেলো, আমি চাপে পড়ে গেলাম। দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগছিলাম কারণ এটি অনেক বড় ঘটনা কিন্তু এটি ভুলে গিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। ম্যাচে এমন কিছু হওয়াটা স্বাভাবিক।'

ছক্কা হাঁকিয়ে জয় নিশ্চিত করার পরই উল্লাসে ফেটে পড়েন মাহমুদুল্লাহ

 

মাহমুদুল্লাহর ছক্কায় ফাইনালে বাংলাদেশ

ম্যাচ জিততে ও ফাইনালে উঠতে শেষ ২ বলে ৬ রান দরকার বাংলাদেশের। স্ট্রাইকে আছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। শ্রীলঙ্কার বাঁ-হাতি পেসার ইসুরু উদানার করা শেষ ওভারের পঞ্চম বলটি মাঠের বাইরে পাঠিয়ে ছক্কা আদায় করে নেন মাহমুদুল্লাহ। আর এ ছক্কাতেই শ্রীলঙ্কারকে ২ উইকেটে হারিয়ে নিদাহাস ট্রফি ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের ফাইনালে উঠলো বাংলাদেশ। গতরাতে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১৫৯ রান করে শ্রীলঙ্কার। জবাবে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ১৮ বলে অপরাজিত ৪৩ রানে ১ বল ও ২ উইকেট হাতে রেখেই অবিস্মরণীয় জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ। চার খেলায় চার পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থেকে ভারতের বিপক্ষে ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করে টাইগাররা।

কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে খেলার শুরুর আগে বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান ইস্যু সবচেয়ে বড় আকার ধারণ করেছিলো ক্রিকেট অঙ্গনে। তিনি কি খেলবেন, নাকি না। অবশেষে অধিনায়ক হিসেবে টস লড়াইয়ে নামেন সাকিব। জয়ও পেয়েছেন তিনি। তাই প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্বান্ত সাকিবের।

শুধুমাত্র ফিল্ডিং করার সিদ্বান্তই নেননি দলের সেরা তারকা সাকিব। ফিল্ডিং-এর সিদ্বান্ত নিয়ে বল হাতে প্রথমেই আক্রমণে হাজির তিনি। নিজের প্রথম ওভারে মাত্র ৩ রান দেন সাকিব। পরের ওভারে দুটি চারে বাংলাদেশের পেসার রুবেল হোসেন দেন ১২ রান। তাই শুরুটা ভালো করার আত্মবিশ্বাস পায় শ্রীলঙ্কারর দুই ওপেনার দানুস্কা গুনাথিলাকা ও কুশল মেন্ডিজ।

তবে ইনিংসের তৃতীয় ওভারে শ্রীলঙ্কারর দুই ওপেনারের আত্মবিশ্বাসে ছেদ কাটেন সাকিব নিজেই। নিজের প্রথম ডেলিভারিতেই গুনাথিলাকাকে বিদায় দেন সাকিব। প্রায় দেড় মাস পর দলে ফিরেই নিজের সপ্তম ডেলিভারিতেই উইকেট শিকারের আনন্দে মাতলেন সাকিব। ৪ রান করেন গুনাথিলাকা।

প্রথম ওভারে রুবেল ব্যয়বহুল হওয়ায় তাকে আক্রমণ থেকে সরিয়ে নেন সাকিব। আক্রমণে নিয়ে আসেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমানকে। সাকিবের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন ফিজ। শেষ ডেলিভারিতে আরেক ওপেনার কুশল মেন্ডিজকে থামান মোস্তাফিজ। তার ওভারটি ছিলো উইকেট মেডেন।

প্রথম উইকেট নিয়ে ক্ষান্ত হননি মোস্তাফিজুর। মেন্ডিজকে ব্যক্তিগত ১১ রানে থামানোর পর নিজের পরের ওভারের চতুর্থ ডেলিভারিতে দাসুন শানাকার উইকেটটিও তুলে দেন ফিজ। এর আগে ওই ওভারের দ্বিতীয় ডেলিভারিতে রান আউট হন উপুল থারাঙ্গা। থারাঙ্গা ৫ ও শানাক শূন্য রানে ফিরেন।

৩২ রানে চতুর্থ উইকেট হারানোয় ধুঁকতে থাকা শ্রীলঙ্কারকে আরো চাপে ফেলে দেন বাংলাদেশের অফ-স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। ছয় নম্বরে নামা জীবন মেন্ডিজকে থামান মিরাজ। মাত্র ৩ রান করেন মেন্ডিজ। এতে ৮ দশমিক ১ ওভারে ৫ উইকেটে ৪১ রানে পরিণত হয় শ্রীলঙ্কা।

এই অবস্থায় ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরিভাবেই নিয়ে নেয় বাংলাদেশ। তবে চাপে পড়েও দমে যায়নি ওই সময় ক্রিজে থাকা দুই ব্যাটসম্যান কুশল পেরেরা ও অধিনায়ক থিসারা পেরেরা। ব্যাট হাতে পাল্টা আক্রমণ চালান তারা। এতে ভড়কে যায় বাংলাদেশের বোলাররা। এই সুযোগে উইকেটে চারপাশে চার-ছক্কার ফুলকি ফোটান দুই পেরেরা। ফলে ১৬তম ওভারের প্রথম বলেই তিন অংকে পৌঁছায় শ্রীলঙ্কার দলীয় সংগ্রহ।

শেষ পর্যন্ত দলীয় ১৩৮ রানে বিচ্ছিন্ন হন দুই পেরেরা। মাত্র ৬১ বলে ৯৭ রান যোগ করেন তারা। টি-২০ ক্যারিয়ারের দশম হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেয়া কুশলকে শিকার করেন সৌম্য। ৭টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪০ বলে ৬১ রান করেন কুশল।

কুশলের মত হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নিয়েছেন পেরেরাও। তবে ৭২ ম্যাচের ক্যারিয়ারে প্রথম। শেষ পর্যন্ত ৩টি করে চার ও ছক্কায় ৩৭ বলে ৫৮ রান করেন তিনি। এ ছাড়া শেষদিকে ইসুরু উদানা অপরাজিত ৭ ও আকিলা ধনঞ্জয়া অপরাজিত ১ রান করেন। ফলে ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৫৯ রান করে শ্রীলঙ্কার। বাংলাদেশের মুস্তাফিজ ২টি, সাকিব-রুবেল-মিরাজ ও সৌম্য ১টি করে উইকেট নেন।

ওভার প্রতি ৮ রান করার লক্ষ্যে নিয়ে বাংলাদেশের ইনিংস শুরু করেছিলেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। শ্রীলঙ্কার পেসার নুয়ান প্রদীপের করা প্রথম ওভার থেকেই ১০ রান তুলে নেন তামিম ও লিটন। দু’টি চারে ৯ রান তুলেন তামিম। ১টি রান ছিলো অতিরিক্ত।

তবে পরের ওভারে বিদায় ঘটে লিটনের। অফ-স্পিনার আকিলা ধনঞ্জয়ার করা বেশ বাইরের ডেলিভারি মিড-অফ দিয়ে মারতে গিয়ে শূন্য হাতে ফিরেন তিনি। তার বিদায়ে ক্রিজে আসেন সাব্বির রহমান। ব্যাটিং অর্ডারে প্রমোশন পেয়ে ভালোই শুরু করেছিলেন তিনি। তিন বাউন্ডারিতে শ্রীলঙ্কার বোলারদের ওপর সৃষ্টি করেছিলেন সাব্বির। কিন্তু বেশিক্ষণ নিজেকে ক্রিজে রাখতে পারেননি সাব্বির। ধনঞ্জয়ার একটি লাইনের ডেলিভারি মিস করে স্টাম্পড হন সাব্বির। ৮ বলে ১৩ রান করেন তিনি।
৩৩ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশকে সামনের দিকে টেনে নিয়ে গেছেন তামিম ও আগের দু’ম্যাচে হাফ-সেঞ্চুরি করা মুশফিকুর রহিম। পাওয়ার প্লে-শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৫০ রানে নিয়ে যান তারা। পরবর্তীতেও রানের চাকা ঘুড়িয়েছেন তামিম ও মুশফিকুর। এ জুটির কল্যাণে ১২তম ওভার শেষে শতরানের কোটা স্পর্শ করার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।
কিন্তু ১৩তম ওভারের তৃতীয় বলে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন লিগ পর্বে শ্রীলংকার বিপক্ষে অপরাজিত ৭২ রানের ম্যাচ জয়ী ইনিংস খেলা মুশফিক। এবার ২৫ বলে ২৮ রান করেন তিনি। তৃতীয় উইকেটে তামিমের সাথে ৫২ বল মোকাবেলা করে ৬৪ রান যোগ করেন মুশি।

এরপর ১২ রান যোগ হলে আরও ২ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ জয়ের পথে বড় ধরনের ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। টি-২০ ক্যারিয়ারের পঞ্চম হাফ-সেঞ্চুরি পাওয়া তামিম থামেন ৫০ রানেই। তার ইনিংসে ৪টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন তিনি। পাঁচ নম্বরে নামা সৌম্য এবার করেন ১১ বলে ১০ রান।

১০৯ রানে পঞ্চম উইকেট হারানোয় শেষ ৩১ বলে ৫১ রান প্রয়োজন পড়ে বাংলাদেশের। লক্ষ্য পূরণের পথেই এগোচ্ছিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও সাকিব আল হাসান। আস্কিং রেটের সাথে পাল্লা দেয়ার চেষ্টাতেও ছিলেন তারা। তবে ১৮তম ওভারের শেষ বলে বিদায় ঘটে সাকিবের। নামের পাশে ৭ রান রেখে ফিরেন তিনি। তাই শেষ ২ ওভারে বাংলাদেশের প্রয়োজন পড়ে ২৩ রান।

টেল-এন্ডার মিরাজকে নিয়ে একাই ১১ রান যোগ করেন মাহমুদুল্লাহ। ওই ওভারের শেষ বলে রান আউটের ফাঁদে পড়েন মিরাজ। শূন্য হাতে ফিরেন তিনি। এরপর শেষ ওভারে বাংলাদেশের দরকার পড়ে ১২ রান।

শ্রীলঙ্কার বাঁ-হাতি পেসার উদানার করা ম্যাচের শেষ ওভারের প্রথম বলে কোন রান নিতে পারেননি মোস্তাফিজুর। পরের ডেলিভারিতে রান নিতে গিয়ে আউট হন তিনি। ফলে স্ট্রাইক পান মাহমুদুল্লাহ। তৃতীয় বলে বাউন্ডারি ও চতুর্থ বলে ২ রান নেন মাহমুদুল্লাহ। ফলে শেষ দুই বলে ৬ রান দরকার পড়ে বাংলাদেশের। পঞ্চম বলে ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগ দিয়ে ফ্লিকড করে ছক্কা মেরে বাংলাদেশকে ফাইনালে নিয়ে যান মাহমুদুল্লাহ। ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ১৮ বলে অপরাজিত ৪৩ রান করেন মাহমুদুল্লাহ।

আগামী ১৮ মার্চ ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫