বোনের জন্মদিনে মাঠে থাকেন না নেইমার
বোনের জন্মদিনে মাঠে থাকেন না নেইমার

বোনের জন্মদিনে মাঠে থাকেন না নেইমার

নয়া দিগন্ত অনলাইন

বোনের জন্মদিনে কখনো মাঠে থাকেন না ব্রাজিলিয়ান ফুটবল সুপারস্টার নেইমার। অদ্ভূত সমীকরণ! প্যারিস সাঁ জা’র সমর্থকদের ক্ষুন্ন করতে পারে এমন ফর্মুলা। তবে দিব্যি রয়েছেন ‘ওয়ান্ডার কিড’। পিএসজি’র ‘সর্বনাশে’ খোশমেজাজে ‘পৌষমাস’ উপভোগ করছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা।

ফুটবলবিশ্বে অলিখিত নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহে নেইমারকে ফুটবল মাঠে ধরে রাখা সম্ভব নয়। রহস্যটা জানতে সত্যানুসন্ধানীর প্রয়োজন নেই। তবে মার্সেইয়ের। বিরুদ্ধে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলারের চোট পাওয়ার পিছনে এমন কোনও রহস্য আছে কিনা, তা খুঁজে বের করতে শার্লক হোমসের শরণাপন্ন হতে হবে পিএসজি-কে।

১১ মার্চ তারিখটা নেইমারের কাছে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এদিন নেইমারের বোন রাফায়েলা স্যান্টোসের জন্মদিন। ঠাসা ক্রীড়াসূচি উপেক্ষা করে নেইমারের মতো তারকার পক্ষে বোনের জন্মদিনে ব্রাজিলে উড়ে যাওয়া কঠিন৷তা সত্ত্বেও পর পর চার বছর রাফায়েলার বার্থ-ডে পার্টিতে হাজির থাকলেন নেইমার।

বার্সেলোনা ও প্যারিস সাঁ জা’র মতো বড় ক্লাবে খেলা সত্ত্বেও কীভাবে ছুটি ম্যানেজ করেন নেইমার? উত্তরটা বেশ আকর্ষনিয়। আসলে মার্চের প্রথম সপ্তাহেই নেইমার হয় কার্ড সমস্যায়। সাসপেন্ড হয়েছেন, নতুবা চোটের জন্য মাঠের বাইরে থেকেছেন।

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫, গ্রানাদার বিরুদ্ধে পঞ্চম হলুদ কার্ড দেখে পরের ম্যাচে নির্বাসিত হয়েছিলেন নেইমার। ফলে ৮ মার্চ ভ্যালেকানোর বিরুদ্ধে বার্সার হয়ে মাঠে নামতে পারেননি ব্রাজিলীও তারকা। পরের বছর ৩ মার্চ রায়ো ভ্যালেকানোর বিরুদ্ধে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয়। পঞ্চম হলুদ কার্ড দেখে ৬ মার্চ গেটাফে ম্যাচ খেলতে পারেননি নেইমার।

গত বছর প্যারিস সাঁ জা’র বিরুদ্ধে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সার দুরন্ত জয়ের ম্যাচে চোট পেয়েছিলেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। ফলে ১২ মার্চ ডেপোর্টিভোর বিরুদ্ধে মাঠে নামার মতো অবস্থায় ছিলেন না তিনি। তিনবারই বার্সেলোনা তাকে ব্রাজিল উড়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছিল।

চলতি বছর ২৬ ফেব্রুয়ারি মার্সেই ম্যাচে গোড়ালি মচকায় নেইমারের। মেটাটারসালে চিড় ধরায় পায়ে অস্ত্রোপচার করাতে ব্রাজিল উড়ে যেতে হয় তাকে। ফলে রিয়ালের বিরুদ্ধে চ্যাম্পিয়ান লিগের ফিরতি প্রি-কোয়ার্টারসহ বাকি মরশুম থেকেই ছিটকে যান তিনি।

‘সঠিক সময়ে’ চোট পাওয়ায় বোনের ২২তম জন্মদিনের পার্টিতে যোগ দিতে অসুবিধা হয়নি নেইমারের। ইনস্টাগ্রামে বোনের সাথে ছবি পোস্ট করে পার্টিতে উপস্থিত থাকার কথা নিজেই জানান নেইমার।

বোনের প্রতি ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারের এমন অকৃত্তিম ভালোবাসার কথা জানে তার সতীর্থরাও। স্বাভাবিকভাবেই এমন বিশেষ সংযোগের দিকটি নজর এড়ায়নি নেইমারের সহখেলোয়াড়দেরও। তারা বিষয়টি নিয়ে কৌতুক করতেও শুরু করেছেন ইদানিং। প্যারিস সাঁ জা থেকে নেইমারের রিয়ালে খেলার সম্ভাবনা প্রসঙ্গে সার্জিও রামোসকে প্রশ্ন করা হয়েছিল তিনি স্যান্টিয়াগো বার্নাব্যু-তে নেইমারের দেখতে চান কি না? উত্তরে রিয়াল অধিনায়ক বলেন, ‘আমি সেরাদের সাথে খেলতে পছন্দ করি এবং নেইমার তেমনই একজন। আশা করি তেমন কিছু ঘটবে। তবে ওর বোনের জন্মদিনের সময়টা আমাদের মাথায় রাখতে হবে৷’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.