স্ত্রীর পরেই স্বামীর মৃত্যু
স্ত্রীর পরেই স্বামীর মৃত্যু

স্ত্রীর পরেই স্বামীর মৃত্যু

বরিশাল ব্যুরো

প্রায় ৬০ বছরের দাম্পত্য জীবনে কেউ কাউকে ছেড়ে কখনো দুরে থাকেননি। তাই মৃত্যুও তাদের আলাদা করতে পারেনি। আমরণ একসাথে থাকার পাশাপাশি একসাথে চলে যাবার বাসনাতে তাই বাঁধ সাধেননি মহান স্রষ্টা। অসুস্থ্য স্ত্রীর মৃত্যুর ২০ মিনিটের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পরেছেন সুস্থ্য স্বামী।

এ নিয়ে পুরো এলাকা জুড়ে ব্যাপক আলোড়নের পাশাপাশি শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নের রাকুদিয়া গ্রামে। মঙ্গলবার রাতে ওই দম্পতির জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে পাশাপাশি দাফন করা হয়েছে।

জানা গেছে, ওই গ্রামের মুনসুর আলী হাওলাদারের (৮০) স্ত্রী নুরজাহান বেগম (৭০) দীর্ঘদিন থেকে অসুস্থ্য ছিলেন। বাড়িতে শয্যাশায়ী স্ত্রীর সেবা যত্ন মুনসুর আলী নিজ হাতেই করতেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নুরজাহান বেগম মারা যান।

প্রিয়তমা স্ত্রী বিয়োগের শোক সইতে না পেরে এ ঘটনার ২০ মিনিটের মধ্যেই হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরেন মুনসুর আলী হাওলাদার। এ দম্পতির পুত্র আনোয়ার হাওলাদার জানান, আমৃত্যু তার বাবা-মায়ের মধ্যে মধুর সম্পর্ক ছিলো। জীবদ্দশায় তারা একদিনের জন্যও কেউ কাউকে রেখে দুরে থাকেননি। তার মা বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ্য থাকলেও বাবার তেমন কোনো রোগ ছিলোনা। তিনি আরও জানান, তারা (ছেলে-মেয়েরা) অসুস্থ্য মায়ের সেবা করতে চাইলেও বাবা নিজের হাতেই মায়ের সেবা করতে বেশি পছন্দ করতেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন জানান, মুনসুর আলী ও নুরজাহান এ যুগের দাম্পত্য প্রেমের অমর দৃষ্টান্ত। ভালবাসার অনন্য নজির স্থাপনকারী প্রবীণ দম্পতির মৃত্যুর খবর পেয়ে শেষবারের মতো তাদের একনজর দেখার জন্য শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে ভীড় করেন। প্রায় ৬০ বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের ৪ পুত্র, ৩ কন্যাসহ অসংখ্য নাতি-নাতনি রয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.