ঢাকা, সোমবার,২৫ মার্চ ২০১৯

আরো খবর

সিদ্ধিরগঞ্জে কলেজছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা

সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা

১৪ মার্চ ২০১৮,বুধবার, ০০:০০


প্রিন্ট
নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জে ইফতিখার মুসফিক জয় (১৮) নামে এক কলেজছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করেছে পুলিশ।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জের নয়াআটি মুক্তিনগর এলাকা থেকে আহত অবস্থায় এলাকাবাসী উদ্ধার করে শহরের খানপুর এলাকার ৩০০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। 
ইফতিখার মুসফিক সিদ্ধিরগঞ্জের হিরাঝিল এলাকার ব্যবসায়ী আকরাম হোসেনের ছেলে। তিনি রাজধানীর যাত্রাবাড়ী দনিয়া কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন। এ ছাড়াও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলামের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন।
নিহতের বাবা আকরাম হোসেন বলেন, সোমবার (১২ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টায় কে বা কারা ফোন দিয়ে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। রাত সাড়ে ১২টায় জয়ের মোবাইলে ফোন দিলে ফোন বন্ধ পাই। পরে গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টায় এক সিএনজিচালক ফোন দিয়ে জানান জয়কে আহত অবস্থায় ৩০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। পরে হাসপাতালে গিয়ে জয়ের লাশ দেখতে পাই।
তিনি আরো বলেন, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত খুনিদের বিচারের দাবি জানাই আমি। 
এসআই রফিকুল ইসলাম বলেন, নিহত জয় মাঝেমধ্যেই তথ্য সরবরাহ করত। জয়ের সাথে বিভিন্ন সোর্সের ভালো সম্পর্ক ছিল। সে হিসেবেই আমার সাথে সম্পর্ক ছিল।
ঘটনাস্থলে যাওয়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কামরুল ইসলাম জানান, নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে বাঁশ কিংবা রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনজন লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। তাদের মধ্যে থেকে আওলাদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সাত্তার জানান, সকালে খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। যে তিনজন লাশ উদ্ধার করতে এসেছিলেন তাদের মধ্য থেকে আওলাদকে সদর থানা পুলিশ আটক করেছেন। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন ওসি। 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫