ইউএস বাংলা বিমানটি কি উড্ডয়নের উপযোগী ছিল? 
ইউএস বাংলা বিমানটি কি উড্ডয়নের উপযোগী ছিল? 

ইউএস বাংলা বিমানটি উড্ডয়নের উপযোগী ছিল : সিএএবি চেয়ারম্যান

বাসস

ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে সোমবার বিধ্বস্ত ইউএস বাংলা ড্যাশ মডেলের এয়ারক্রাফটটি ঢাকা ত্যাগ করার আগে উড়ার সম্পূর্ণ উপযোগী ছিল। সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব বাংলাদেশ (সিএএবি) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম নাইম হাসান মঙ্গলবার এখানে একথা বলেন।

সিএএবি সদর দপ্তরে এক ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘এয়ার ক্রাফটটি উড়ার আগে নিরাপত্তার সব প্রক্রিয়া আমরা পর্যবেক্ষণ করেছি।’
এয়ারক্রাফটটি কাঠমান্ডুর উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ার আগে সকালে একই এয়ারক্রাফট ঢাকা-চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যদি এয়ারক্রাফটটি উড়ার উপযোগী না হতো তাহলে এটি চট্টগ্রাম রুটে উড়তে ব্যথ হতো।’
সিএএবি চেয়ারম্যান বলেন, দুর্ঘটনাকবলিত এয়ারক্রাফটটির ব্লাক বক্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কানাডার বোমবারডিয়ারে পাঠানো হবে।
তিনি বলেন, ‘ব্লাক বক্স ডিকোডিংয়ের পরে আমরা বলতে পারবো বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পেছনে যান্ত্রিক ত্রুটি ছিল নাকি মানুষের ভুল ছিল।’

নাইম বলেন, এই দুর্ঘটনা তদন্তে নেপাল সরকার ইতোমধ্যেই একজন সাবেক সচিবের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। ‘আমাদের পক্ষ থেকে আমরা তিন সদস্যের টিম গঠন করেছি। টিমের সদস্যরা এখন কাঠমান্ডু রয়েছেন।’

তিনি বলেন, ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন এর আইন অনুযায়ী, আমরা নেপালে তদন্ত পরিচালনা করতে পারি না। যে দেশে দুর্ঘটনা ঘটে, সেই দেশেরই তদন্তের দায়িত্ব পালন করতে হয়। তবে আমাদের টিম নেপালের তদন্ত দলকে সহযোগিতা দেবে।

বাসস
বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে গেলেন মুন্সীগঞ্জের রিপন
নেপালের কাঠমান্ডুতে বিমান দুর্ঘটনায় বেঁচে গেলেন মুন্সীগঞ্জের ইয়াকুব আলী (রিপন)।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলার কামারখাড়া ইউনিয়নের বেশনাল গ্রামের ইউনুছ বেপারীর ছেলে রিপন বিধ্বস্ত বিমানের যাত্রী ছিলেন। বর্তমানে তিনি নেপালের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এসব তথ্য দিয়ে ইয়াকুব আলী রিপনের ছোট ভাই টিপু বেপারী জানান, ‘মঙ্গলবার আমার ছোট ভাই দীপু বেপারী সরকারি প্রতিনিধি দলের সাথে নেপাল গিয়েছিল। সে দুপুর ১টার দিকে ফোন করে জানান আমাদের বড় ভাই ইয়াকুব আলী রিপন নেপালের কাঠমান্ডু এলাকার নবলিব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।’

দীপু হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকের সাথে কথা বলে জানতে পারে বর্তমানে তার বড় ভাই রিপন আইসিইউতে আশংকামুক্ত অবস্থায় রয়েছেন। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। টিপু আরও জানায় ৬ ভাইবোনের মধ্যে রিপন সবার বড়। টিপু তার ভাইয়ের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.