মানববন্ধনে বক্তারা

ভারতের পানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভারত ৫৪টি যৌথ নদীতে বাঁধ দিয়ে একতরফাভাবে প্রত্যাহার করে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পানি আগ্রাসন চালাচ্ছে। উজানে বাঁধ দিয়ে পানি লুটে নিয়ে ভারত ক্ষান্ত হয়নি; আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প হাতে নিয়েছে, যা বাংলাদেশের জন্য জীবনঘাতী। ফারাক্কা-গজলডোবা বাঁধের প্রভাবে ইতোমধ্যে বাংলাদেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে মরুকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। পানির অভাবে কৃষি ও মৎস্য উৎপাদন, চাষাবাদ, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও পরিবেশের ভারসাম্য হুমকিতে। ভারতের পানি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে দেশের জনগণকে দল-মত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়াতে হবে। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন।
নাগরিক পরিষদ ও ফেনী অধিকার ফোরামের উদ্যোগে ‘গঙ্গা ব্যারাজ নির্মাণ কর-বাংলাদেশ রক্ষা কর’, ‘ফারাক্কা-গজলডোবা-টিপাই বাঁধ-বাংলাদেশের মরণফাঁদ’, ‘ফেনী নদীর পানি লুট, রুখে দাঁড়াও’ দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ শামসুদ্দীন। বক্তব্য দেন ফেনী অধিকার ফোরামের আহ্বায়ক মিনহাজ উদ্দিন সেলিম, দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনের আহ্বায়ক মো: হারুন অর রশিদ খান, আবু মহি মুসা, ফেনী অধিকার ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আমানুল্লাহ মাহফুজ, সদস্যসচিব গোলাম মাওলা সোহাগ, শ্রমিক নেতা মো: এনামুল হক, গণঐক্য নেতা আরমান পলাশ ও অধ্যাপক তারেক।
বক্তারা বলেন, ফারাক্কা-গজলডোবার ক্ষতি মোকাবেলা করতে, জলবিদ্যুৎ উৎপাদন, পানি সংরক্ষণ, চাষাবাদ, জীববৈচিত্র্য এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় আমরা গঙ্গা ব্যারাজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছি। তিস্তাচুক্তি করে পানি পাওয়ার চেষ্টায় বারবার ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ। ভারত তিস্তাচুক্তি নিয়ে কেন্দ্র-প্রদেশ টালবাহানার খেলা খেলছে। ৪৫ দিনের পরীক্ষামূলক ফারাক্কা চার যুগেও শেষ হয়নি। ভারত একটি আধিপত্যবাদী আগ্রাসী শক্তি বিধায় দ্বিপক্ষীয় চেষ্টা সময়ক্ষেপণ ছাড়া কিছুই নয়। তাই গঙ্গা ব্যারাজ নির্মাণ করে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন, পানি সংরক্ষণ, চাষাবাদ, জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে দেশের মরুকরণ প্রতিরোধ এবং অবিলম্বে পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ে জাতিসঙ্ঘ পানিপ্রবাহ আইনের ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক ওই সংস্থায় বিল উত্থাপনের দাবিতে এবং বাংলাদেশের একক মালিকানার ফেনী নদীর পানি লুটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা প্রহণ করতে হবে।
তারা আরো বলেন, বাংলাদেশের শতভাগ মালিকানার ফেনী নদীর নো ম্যানস ল্যান্ডে পাম্প বসিয়ে পানি লুট করে নিয়ে যাচ্ছে ভারত। ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীর সুপেয় পানির চাহিদা পূরণে পাইপলাইনে এ নদীর পানি সরবরাহ করলে নগরবাসীর জীবন রক্ষা হবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.