রাত পোহাবার কত দেরী পাঞ্জেরী?

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দু’টি ব্যাপার খুব ভয় করে। এক, সুষ্ঠু, অবাধ; নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন। এই ভীতি থেকে সংবিধান সংশোধন করে নির্বাচনকে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছে। তারা নিজেরা এবং তাদের মুরুব্বিরা ভালো করেই জানে, অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তারা গো-হারা হারবে। সংসদে আসন সংখ্যা অন্তত ছয় দশকের ঘরে নেমে আসবে। কিছু আসনে জামানত খোয়া যেতে পারে। গল্পের মিসেস প্যাক লেটটেন্ড একটি অতি বৃদ্ধ চলৎশক্তিহীন বাঘকে খাঁচায় রেখে বন্দুক দিয়ে শিকার করে ‘বাঘ শিকারি’ হয়েছিলেন। তবে গুলি বাঘের গায়ে লাগেনি, বাঘটি গুলির শব্দেই মারা যায়। আওয়ামী লীগ সফল দলের অংশ গ্রহণে ওই রকম বাঘ শিকারের নির্বাচন করতে চায়ং। সে নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়া, বিএনপি থাকবে না। ‘সকল দলের’ অংশ গ্রহণের গরজে বিএনপির একটি বিকলাঙ্গা টুকরো নির্বাচনে এনে সংসদে হিজড়া বিরোধী দল বানানোর চেষ্টা চলতে পারে। যে হামলায় হোক, খালেদাকে বাদ দিয়ে কোনো নির্বাচন ‘অংশগ্রহণমূলক’ বলে স্বীকৃতি পাবে না। আর আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় ভয়ের কারণ ‘খালেদা জিয়া’। তার নাম শুনােল তাদের হৃৎকল্প শুরু হয়। তাই তো শীর্ষ থেকে তৃণ পর্যন্ত জলাতঙ্ক রোগীর মতো তার বিরুদ্ধে অশালীন অশোভন অযৌক্তিক প্রলাপোক্তি। নির্দলীয় সরকারের অধীন একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের গণদাবির প্রতি বিএনপির সাথে একাত্ম হলেও বহু ক্ষেত্রে তাদের সাথে একমত নই।
তবে মনে হচ্ছে খালেদা জিয়া জেলে গিয়ে দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতীকে পরিণত হতে যাচ্ছেন। মওলানা ভাসানী, সোহরাওয়ার্দী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মহাত্মা গান্ধী, মাওলানা মোহাম্মদ আলী, জাতীয় কবি নজরুল, মার্টিন লুথার কিং, লেনসন ম্যান্ডেলা প্রমুখ ব্যক্তিত্ব জেল খেটে কিংবদন্তি হয়েছিলেন।
তবে এ জন্য কত প্রতীক্ষাÑ ‘রাত পোহাবার আর কত দেরী পাঞ্জেরী?’
মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন
নূরীয়া লাইব্রেরী, ঝালকাঠি

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.