৩৫ বলের নান্দনিক ইনিংস ছেলেকে উৎসর্গ

নয়া দিগন্ত অনলাইন

চট্টগ্রামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের পর রাতেই ঢাকা ফিরেছিলেন মুশফিকুর রহিম। কারণ তার প্রথম সন্তান পৃথিবীর আলোতে আসার সময় হয়ে গিয়েছিল। পরদিন জন্ম হয় তার সন্তানের। ছেলে সন্তানের বাবা হন তিনি। কাল জুনিয়র মুশফিকের বয়স ছিল ৩৫ দিন। সেই একই প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে গতকাল আবারো মাঠে নামেন মুশফিক। তার নৈপুণ্যে জয়লাভ করে বাংলাদেশ। কাকতালীয়ভাবে ৩৫ বলে ৭২ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন মুশফিক। টি-২০ ক্যারিয়ারে নিজের সেরা ইনিংসটি উৎসর্গ করেন ছেলেকে।

জয়ের পর মুশফিকের উদযাপন

 

দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছানো এই নায়ক স্বাভাবিকভাবেই হয় ম্যাচ সেরা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মুশফিক কথা বলেন চোখ ধাঁধানো সেই ইনিংস নিয়ে। বলেন, '১৯০ থেকে ১৯৫ রানটা এই উইকেটের জন্য স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু তামিম আর লিটন যেভাবে শুরু করেছে, প্রথম ছয় ওভারে, সত্যি অসাধারণ। আপনি ক্রিকেটীয় শট খেললে যেকোনো রানই তাড়া করতে পারবেন। আর এই উইকেট ব্যাটিং করার জন্য খুব ভালো উইকেট। আজকের ম্যাচটা আমার ছেলেকে উৎসর্গ করলাম। ওর বয়স মাত্র ৩৫ দিন।'

বাংলাদেশের টি-২০ ইতিহাসে সর্বোচ্চ ২১৫ রান তাড়া করে কাল জিতেছে বাংলাদেশ। আর জয়ের অন্যতম নায়ক মুশফিকের জন্য এই জয়ের আনন্দ সবার চেয়ে আলাদা।

 

সংবাদ সম্মেলনে যা বললেন তামিম

জয়-খরায় ভুগছিল বাংলাদেশ দল। ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই টানা সাত ম্যাচে হেরেছিল টাইগাররা। অবশেষে হারের বৃত্ত থেকে বের হয়েছে তারা। পেয়েছে অতিকাঙ্ক্ষিত সেই জয়। প্রতিপক্ষ সম্প্রতি বাংলাদেশের মাটি দাপিয়ে যাওয়া শ্রীলঙ্কা। এবার তাদের মাঠে গিয়ে ৫ উইকেটে জয় ছিনিয়ে নিলো বাংলাদেশ। দীর্ঘদিন পর এই জয়ে চাঙ্গা মুশফিকরা। এমন একটা জয়ই প্রয়োজন ছিল তাদের। সংবাদ সম্মেলনে সেই কথাই বললেন তামিম ইকবাল।

বাংলাদেশের এই ড্যাশিং ওপেনার বলেন, 'আমরা একটি জয়ের আশায় ছিলাম। সবাই চেষ্টা করছিল, যে করেই হোক একটা ম্যাচ জিততে হবে। আমরা যদি না জিততে পারতাম অনেক পিছিয়ে যেতাম। এখন আমরা তিন দিন সময় পেলাম। এসময় আমরা প্ল্যানিং করবো কিভাবে বোলিংটা ভালো করতে পারি। এখানে আউটফিল্ড অনেক ভালো। সহজ ক্রিকেট খেললেই মনে হয় সবকিছু ঠিক হবে।'

এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজ ফাইনাল, টেস্ট ও টি-২০ সিরিজ হারে বাংলাদেশ। এ ব্যাপারে তামিম বলেন, 'শেষ সিরিজের পর আমরা খুব হতাশ ছিলাম। কারণ আমরা মনে করি না আমরা এত খারাপ দল। আমি সব সময় বলি একটা ভাল খেলা খারাপ খেলা সব কিছুতেই একটা শিখার বিষয় থাকে। খুব ভাল একটা দিক যে আমরা খারাপ কিছু থেকে শিক্ষা নিয়ে আজ (শনিবার) আমরা কাজে লাগাতে পেরেছি। দলের জন্য খুব দরকার ছিল জয়টি। এই জয় আমাদের আত্মবিশ্বাসের জন্য খুব ভালো হবে।'

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.