প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) ও প্রকল্প পরিচালক (এটুআই) কবির বিন আনোয়ার
প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) ও প্রকল্প পরিচালক (এটুআই) কবির বিন আনোয়ার

‘মেধা ঝড়তে দেবো না, অর্থের অভাব হবে না’

সাইফুল মাহমুদ, ময়মনসিংহ অফিস

‘মেধা ঝরতে দেবো না, অর্থের অভাব হবে না’ এ স্লোগান নিয়ে ১৪৮ জন দরিদ্র শিক্ষার্থীকে প্রতিবছর ৫৫ লাখ টাকা বৃত্তি দেয়ার কথা জানিয়েছেন আসপাডার প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক আলহাজ আব্দুর রশিদ। শুক্রবার ময়মনসিংহের দীঘারকান্দায় আসপাডা ট্রেনিং অ্যাকাডেমিতে জামিরদিয়া আব্দুল গণি মাস্টার স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও আসপাডা পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সাথে শিক্ষা বিষয়ক মতবিনিময় ও আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান।

তিনি আরো জানান- বর্তমানে বৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ১১ জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে, ৯ জন মেডিক্যালে, দুইজন করে বুয়েটে, চুয়েটে ও মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে এবং অন্যরা বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে অধ্যয়ন করছে। এদের সবাইকে অষ্টম শ্রেণী থেকে বৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ঢাকা বিশ্বদ্যিালয় থেকে একজন নৃতত্ত্ব বিভাগে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হয়ে সরকারি স্কলারশিপ নিয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য আমেরিকায় গেছেন। আরো ৯ জন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল ও ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে চাকরি করছেন। বৃত্তিপ্রাপ্তরা শিক্ষাজীবন শেষে চাকরিকালে কমপক্ষে দুইজন দরিদ্র শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার ব্যয় বহন করবেন বলে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলেও জানান তিনি।

আলোচনা সভায় জামিরদিয়া আব্দুল গণি মাস্টার স্কুল অ্যান্ড কলেজের সভাপতি এবং আসপাডা পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) ও প্রকল্প পরিচালক (এটুআই) কবির বিন আনোয়ার।

আসপাডা পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক আব্দুর রশিদ

বক্তব্য দেন- রাজউকের সদস্য (প্রশাসন ও অর্থ) অতিরিক্ত সচিব রোকন-উদ দৌলা, পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. জসীম উদ্দিন, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী উপসচিব এ এইচ এম লোকমান, বাকৃবি পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. আসলাম আলী, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ফারজানা পারভীন, খায়রুল আলম নান্নু ও আব্দুস সাত্তার মাস্টার। মতবিনিময় সভায় বৃত্তিপ্রাপ্ত কয়েকজন শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক স্মৃতিরোমন্থন করেন। অনুষ্ঠানে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকসহ আসপাডার কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি বৃত্তিপ্রাপ্তদের স্মৃতিরোমন্থনে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি ঝুকিপূর্ণ মেধাবীদের লালন করার জন্য আসপাডার নির্বাহী পরিচালকের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি মেধা লালনে যেকোনো সহায়তার আশ্বাস দেন। পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. জসীম উদ্দিন আসপাডা বৃত্তিপ্রাপ্তদের মধ্যে ৫০ জনকে ‘পিকেএসএফ’ বৃত্তি প্রদানের ঘোষণা দেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.