উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

উত্তর কোরিয়ার নেতার সাথে বৈঠকে ট্রাম্পের সম্মতি

বিবিসি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জন উনের সাথে বৈঠক করতে রাজি হয়েছেন।

ওয়াশিংটনে অবস্থানরত দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা এ ঘোষণা দিয়েছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের হাতে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জন উনের একটি আমন্ত্রণ পত্র হস্তান্তর করেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বৈঠক অনুষ্ঠিত হবার আগ পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া তাদের সব পারমানবিক এবং মিসাইল কার্যক্রম বন্ধ রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

গত কয়েক মাস ধরে উত্তর কোরিয়া এবং আমেরিকার মধ্যে হুমকি ও পাল্টা হুমকির মাঝে এ ধরণের বৈঠকের বিষয়টি বড় ধরনের অগ্রগতি।

চলতি সপ্তাহের প্রথম দিকে দক্ষিণ কোরিয়ার নেতারা পিয়ংইয়ং-এ উত্তর কোরিয়ার নেতার সাথে একটি নজিরবিহীন বৈঠক করেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হোয়াইট হাউজ থেকে বের হয়ে জানিয়েছেন, মে মাসের মধ্যে দুই নেতার বৈঠক অনুষ্ঠিত। বৈঠকের সুনির্দিষ্ট তারিখ এবং স্থান এখনো নির্ধারিত হয়নি।

উত্তর কোরিয়ার আলোচনা প্রস্তাবে সতর্কতার আহ্বান জাপানের
এএফপি

জাপানের প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সতর্ক করে বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার যুক্তরাষ্ট্রের সাথে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের আলোচনার প্রস্তাব সময়ক্ষেপণ হতে পারে। তিনি এ ক্ষেত্রে পিয়ংইয়ংয়ের সুস্পষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে কূটনৈতিক অগ্রগতি দৃষ্টিগোচর হওয়ার পর জনসম্মুখে এই প্রথমবারের মতো শিনজো আবে বলেন, কেবল আলোচনার জন্য আলোচনা অর্থহীন। আবে এমপিদের বলেন, ‘আমি আবারো বলছি যে, উত্তর কোরিয়াকে সর্বোচ্চ চাপের মুখে রেখে আমরা এমন একটি পরিস্থিতি তৈরি করেছি যাতে পিয়ংইয়ং যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনায় বসতে চায়।’

এ আলোচনার ব্যাপারে অ্যাবে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, অতীতেও দেখা গেছে যে, উত্তর কোরিয়া আলোচনার কথা বলে তাদের পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা বাড়াতে সময়ক্ষেপণ করেছে। জাপানের চৌকস এ প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘কেবল আলোচনার জন্য আলোচনা অর্থহীন। কেবল উত্তর কোরিয়া আলোচনা শুরু করলেই আমারা তাদের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করব না। এ ক্ষেত্রে পিয়ংইয়ংকে অবশ্যই সুস্পষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে।’

উল্লেখ্য, দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিক গেমসকে কেন্দ্র করে আবারো সুসম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সিউল ও পিয়ংইয়ং অনেকটা কাছাকাছি আসে। এ প্রেক্ষাপটে উত্তর কোরিয়া জানায়, তাদের দেশের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দেয়া হলে এর বিনিময়ে তারা পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি পরিত্যাগ করার কথা বিবেচনা করবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.