ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী নারী রাজনীতিবিদ কে?
ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী নারী রাজনীতিবিদ কে?

ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী নারী রাজনীতিবিদ কে?

নয়া দিগন্ত অনলাইন

নরেন্দ্র মোদি আমলে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সক্রিয়তা অনেক বেড়ে গেছে। টুইটারের মাধ্যমে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা কুড়িয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। ভারতীয়রা তো বটেই, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাহায্য থেকে বঞ্চিত হন না বিদেশী নাগরিকরাও। এমনকি বহু পাকিস্তানি নাগরিককে ভারতে আসার মেডিক্যাল ভিসার ব্যবস্থা করেছেন দিয়েছেন তিনি। আর এবার সাবেক কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকেও পিছনে ফেলে দিলেন সুষমা স্বরাজ। একটি সমীক্ষায় ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা রাজনীতিবিদ নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। দ্বিতীয় স্থানে দেশের প্রথম নারী আইপিএস ও পুডুচেরির রাজ্যপাল কিরণ বেদি। দেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা রাজনীতিবিদ হিসেবে সনিয়া গান্ধীকে ভোট দিয়েছেন মাত্র ১৯ শতাংশ মানুষ।

ভারতের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা রাজনীতিবিদ কে? তা জানতে একটি সমীক্ষা চালিয়েছে ম্যাজিকপিন নামে একটি সংস্থা। দেশের প্রথমসারি উদ্ভাবনী ও বাণিজ্য সংক্রান্ত বলে পরিচিতি ম্যাজিকপিন। সমীক্ষায় দেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা রাজনীতিবিদ হিসেবে সুষমা স্বরাজকে বেছে নিয়েছেন বেশিরভাগ মানুষ। ৩৭ শতাংশ ভোট পেয়েছেন বিজেপির এই মহিলা নেত্রী। ৩৩ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে পুডুচেরির রাজ্যপাল ও দেশের প্রথম মহিলা আইপিএস কিরণ বেদি। আর কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীদের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা রাজনীতিবিদ বলে মনে করছেন মাত্র ১৯ শতাংশ মানুষ। আবার সমীক্ষায় পুরুষ ও মহিলা উভয়েরই সমান ভোট পেয়েছেন বিএসপি নেত্রী ও উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী। অন্যদিকে বলিউডের সবচেয়ে ক্ষমতাবান মহিলা বিভাগে সবচেয়ে বেশি ভোটে পেয়েছেন সদ্য পরলোকগত শ্রীদেবী। আর দেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা ক্রীড়াবিদের শিরোপা জিতেছেন বক্সার মেরি কম।

কংগ্রেস প্রাক্তন সভানেত্রীই শুধু নয়, সনিয়া নেহেরু-গান্ধী পরিবারের সদস্য। পরলোকগত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর রাজীব গান্ধীর স্ত্রী। ইন্দিরা গান্ধীর পুত্রবধূ। এদেশে রাজনৈতিক প্রভাব-প্রতিপত্তিতে অন্য সব মহিলা রাজনীতিবিদের কয়েক যোজন পিছনে ফেলে দিয়েছিলেন সনিয়া গান্ধী। তার নেতৃত্বে দু-দুবার কেন্দ্রে ক্ষমতা দখল করেছিল কংগ্রেস। এখন অবশ্য ছেলে রাহুলের হাতে দলের যাবতীয় দায়িত্ব তুলে দিয়েছেন রাজীব-জায়া। কমেছে রাজনৈতিক প্রভাব-প্রতিপত্তিও। সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা তো অন্তত সেকথা বলছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.