জলবায়ু প্রকল্পে সাড়ে পাঁচ কোটি ডলার জার্মান অনুদান

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবেলা সংক্রান্ত প্রকল্পে ৪ কোটি ডলার বা স্থানীয় মুদ্রায় প্রায় ৩২০ কোটি টাকা অনুদান দিচ্ছে গ্রিন কাইমেট ফান্ড। জার্মান সরকার দেবে আরো দেড় কোটি ডলার। এ বিষয়ে জার্মান দাতা সংস্থা কেএফডব্লিউ এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। বাংলাদেশে জিসিএফের অনুমোদন পাওয়া এটিই প্রথম প্রকল্প। গতকাল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। 
রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে ইআরডি সম্মেলন কে গতকাল এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব কাজী শফিকুল আযম এবং কেএফডব্লিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য (এশিয়া-ইউরোপ) রোলান্ড সিলার।
অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, গ্রিন কাইমেট ফান্ডের (জিসিএফ) আওতায় এটি প্রথম প্রকল্প। উপকূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা ও সাতীরার ২০ উপজেলায় প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশের ভূমিকা অতি নগণ্য, অথচ বাংলাদেশই জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির সম্মুখীন। একক দেশ হিসেবে প্রতিবেশী ভারত ও চীন সবচেয়ে বেশি কার্বন নিঃসরণ করে। আশার কথা হচ্ছে, দেশ দুটি জলবায়ু ঝুঁকির বিষয়টি বর্তমানে আমলে নিচ্ছে এবং সেই অনুযায়ী পদপেও নিচ্ছে। এর একটা ইতিবাচক প্রভাব এই অঞ্চলে পড়বে বলে মন্ত্রী আশা করেন।
জলবায়ু সহিষ্ণু অবকাঠামো প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ (কাইমেট রেসিলেন্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার মেইনস্ট্রিমিং ইন বাংলাদেশ) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এই অর্থ ব্যয় হবে। প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ কোটি ২৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার। এর মধ্যে জিসিএফের ৪ কোটি ডলার পাওয়া যাবে অনুদান হিসেবে। এ ছাড়া জার্মান সরকার অনুদান সহায়তা হিসেবে দিচ্ছে আরো দেড় কোটি ডলার। আর বাংলাদেশ সরকার অর্থায়ন করছে ২ কোটি ৭৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার।
জানা গেছে, প্রকল্পের আওতায় সংশ্লিষ্ট এলাকায় ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ ও সংস্কার, দুর্গম উপকূলীয় এলাকায় রাস্তা নির্মাণ, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ নগরবাসীর নিরাপত্তার জন্য অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া আবহাওয়া সংক্রান্ত সব প্রয়োজনীয় তথ্য ও দুর্যোগ মোকাবেলার প্রস্তুতিমূলক তথ্যের জন্য একটি জলবায়ু সহিষ্ণু অবকাঠামো উৎকর্ষ কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। ছয় বছর মেয়াদি প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর (এলজিইডি)। প্রকল্পের আওতায় ৪৫টি সাইকোন শেল্টার নির্মাণ, ২০টি বিদ্যমান সাইকোন শেল্টারের সংস্কার, ৮২ কিলোমিটার সড়ক সংযোগ ও ৩২ কিলোমিটার নগর সড়ক উন্নয়ন, ড্রেন নির্মাণ ইত্যাদি কার্যক্রম রয়েছে। 
জিসিএফ জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত জাতিসঙ্ঘের ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশনের (ইউএনএফসিসিসি) আওতায় ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত তহবিল। এর মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য উন্নয়নশীল দেশগুলোর প্রচেষ্টায় অর্থায়ন করা হয়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.