সচেতনতা সৃষ্টির মধ্য দিয়ে পালিত হলো বিশ^ কিডনি দিবস

নিজস্ব প্রতিবেদক
সেমিনার, শোভাযাত্রা, লিফলেট বিতরণ ও বিনামূল্যে কিডনি চিকিৎসা দেয়ার মাধ্যমে পালিত হয়েছে বিশ^ কিডনি দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল ‘কিডনি ও নারী স্বাস্থ্য’। 
নারীরা পুরুষের চেয়ে কিডনিসংক্রান্ত জটিলতায় বেশি ভোগেন। কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা: এম এ সামাদের তথ্য অনুযায়ী ১৪ শতাংশ নারী কিডনি সমস্যায় ভোগে থাকেন কিন্তু পুরুষেরা ভোগেন ১২ শতাংশ। নারী চিকিৎসা নেয়ার ক্ষেত্রে বেশি অবহেলিত। সময় মতো প্রয়োজনীয় চিকিৎসা তারা পান না। ফলে কিডনি অকার্যকর হয়ে মৃত্যু হয় অনেকের। 
বাংলাদেশে কী পরিমাণ কিডনি রোগী অথবা কত মানুষ বছরে এ রোগে মারা যান এ সংক্রান্ত সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থার আনুমানিক হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে বছরে আট লাখ মানুষের কিডনি বিকল হয়। এ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, প্রতি বছর নতুন করে ৩০ হাজার মানুষের কিডনি নষ্ট হয়। কিডনি বিকল হলে প্রতিস্থাপন অথবা ডায়ালাইসিস করে বেঁচে থাকা যায়। কিন্তু বাংলাদেশে কিডনি প্রতিস্থাপন অথবা ডায়ালাইসিস কোনোটাই সহজ ও সুলভ না। এতে বাংলাদেশে বছরে ৪০ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটে। 
সরকারি হাসপাতালে সুযোগ খুব বেশি নেই। বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় ডায়ালাইসিসের খরচ দরিদ্র অথবা নিম্নবিত্ত মানুষের নাগালের মধ্যে নেই। বেসরকারি হাসপাতালে ডায়ালাইসিস করতে প্রতিবার তিন হাজার ৫০০ থেকে পাঁচ হাজার ৫০০ টাকা খরচ হয় ওষুধ ও ইনজেকশন ছাড়া। সপ্তাহে কমপক্ষে দুইবার ডায়ালাইসিস করতে হয় কিডনি বিকল রোগীকে। ডায়ালাইসিস করে রোগীর দেহ থেকে ক্ষতিকর পদার্থ বের করে দেয়া হয় রক্ত পরিশোধন করে। এত টাকা দরিদ্র অথবা মধ্যবিত্ত মানুষ সংস্থান করতে না পারায় অবশেষে কিছুদিন ডায়ালাইসিস করার পর মাঝপথে চিকিৎসা বন্ধ করে মৃত্যকেই বেছে নিতে হয় অনেককে। আবার অনেকেই বেঁচে থাকার জন্য পরিবারের শেষ সম্বলটিও বিক্রি করে চেষ্টা করেন বাঁচতে কিন্তু পরিবারের অবিশষ্ট সদস্যরা পড়েন চরম অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তায়। রাজধানী ঢাকায় ধানমন্ডির গণস্বাস্থ্য ডায়ালাইসিস সেন্টারে প্রতিদিন কিছু দরিদ্র মানুষ বিনামূল্যে অথবা নামমাত্র মূল্যে ডায়ালাইসিস করতে পারছেন। এ ছাড়া দরিদ্র মানুষ মাত্র এক হাজার ১০০ টাকায় ডায়ালাইসিস করাতে পারছেন। 
কিডনি দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ^বিদ্যালয় আগামী ১১ মার্চ শিশু কিডনি বিষয়ে আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন করবে। নগরীর ইনসাফ বারাকাহ হাসপাতাল আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত মাসব্যাপী কিডনি বিষয়ক চিকিৎসা দেবে। তারা  ইউরিন আর/ই, সিরাম ক্রিয়েটিনিন, আরবিএস এবং ডেন্টাল চেকআপ ফ্রি করবে এবং ৮০০ টাকায় হেলথ চেকআপ করার ঘোষণা দিয়েছে।
কিডনি অ্যাওয়ারনেস মনিটরিং অ্যান্ড প্রিভেনশন (ক্যাম্পস), রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, কিডনি ফাউন্ডেশন যৌথভাবে গতকাল রাজধানীতে বিশ^ কিডনি দিবস উপলক্ষে আলোচনা আয়োজন করে। রাজধানীর আইডিইবি মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন রেনাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক মো: রফিকুল আলম। প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। বক্তব্য রাখেন কিডনি ফাউন্ডেশনের অধ্যাপক মো: হারুন অর রশীদ, ক্যাম্পসের অধ্যাপক এম এ সামাদ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.