জাতীয় প্রেস কাবের সামনে গতকাল বিএনপির অবস্থান চলাকালে ছাত্রদল নেতা মিজানুর রহমান রাজকে গ্রেফতারে তৎপর হয়ে ওঠে ডিবি পুলিশ। গ্রেফতার এড়াতে একপর্যায়ে রাজ জড়িয়ে ধরেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। তবু শেষ রক্ষা হয়নি : নয়া দিগন্ত
জাতীয় প্রেস কাবের সামনে গতকাল বিএনপির অবস্থান চলাকালে ছাত্রদল নেতা মিজানুর রহমান রাজকে গ্রেফতারে তৎপর হয়ে ওঠে ডিবি পুলিশ। গ্রেফতার এড়াতে একপর্যায়ে রাজ জড়িয়ে ধরেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। তবু শেষ রক্ষা হয়নি : নয়া দিগন্ত

টেনেহিঁচড়ে ছাত্রদল নেতাকে যেভাবে আটক করল পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয় প্রেস কাবের সামনে গতকাল অবস্থান কর্মসূচি চলছিল বিএনপির। এক ঘণ্টার অবস্থান শেষ হবে দুপুর ১২টায়। তখনো ১৫ মিনিট বাকি, শীর্ষ নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন। এমন সময় নেতাকর্মীদের ভেতরে কিছুটা জটলার মতো অবস্থা তৈরি হয়। মনে হচ্ছিল কর্মীরা নিজেদের মধ্যে মৃদু হাতাহাতিতে লিপ্ত হয়েছে। কিন্তু না। ছাত্রদলের এক নেতাকে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে সাধারণ পোশাকধারী পুলিশ। আর রাজ নামে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের ওই নেতাকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন অন্যরা। ছাত্রনেতা রাজও গ্রেফতার এড়াতে যারপরনাই চেষ্টা করছেন। এভাবে টানাটানি করতে করতে তিনি বক্তব্য দিতে থাকা শীর্ষ নেতাদের দিকে এগিয়ে যান। সাদা পোশাকধারী পুলিশও নাছোড়বান্দা। এরই মধ্যে তার শার্ট ছিঁড়ে যায়। শার্টের নিচে থাকা স্যান্ডো গেঞ্জিও ছিঁড়ে ঝুলতে থাকে। প্রায় উদোম শরীরে রাজ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকে দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরেন, যাতে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যেতে না পারে। এরকম একটি হুলুস্থুল অবস্থার মধ্যে মহাসচিব পুলিশদের উদ্দেশ করে বলেনÑ ‘এটা কী ধরনের আচরণ, এমন করছেন কেন, আপনারা চলে যান।’ কিন্তু এসব কথা কোনো কাজে আসেনি। পুলিশ সদস্যরা রাজকে আটক করতে হ্যাচকা টান দেয়। আর এতে করে মহাসচিব নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নেতাকর্মীদের ওপর পরে যান। বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম আজাদ, রফিক শিকদার, যুবদল নেতা মাহবুবুল হাসান পিঙ্কুসহ উপস্থিত নেতারা এ সময় এগিয়ে যান। মহাসচিবকে তুলে দাঁড় করান। এর সাথে সাথেই ছাত্রদল উত্তরের সভাপতি এস এম মিজানুর রহমান রাজকে চ্যাংদোলা করে শূন্যে ঝুলিয়ে নিয়ে চলে যায় ডিবি পুলিশ সদস্যরা। একই সময় পুলিশের লাঠিচার্জ চলতে থাকে। আর নির্ধারিত সময়ের আগেই অবস্থান কর্মসূচি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় বিএনপির। অনুষ্ঠানে মহাসচিব বক্তব্যও দিতে পারেননি।
ছাত্রদলের এক নেতাকে গ্রেফতার করতে এমন হুলুস্থুল অবস্থায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন উপস্থিত নেতাকর্মী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.