‘অযোধ্যা ইস্যুতে রবিশঙ্করের বক্তব্য আদালত অবমাননা’

পার্স টুডে

ভারতে ‘আধ্যাত্মিক গুরু’ হিসেবে পরিচিত শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর অযোধ্যা ইস্যুতে সুপ্রিম কোর্ট, সরকার ও ভারতীয়দের অপমান করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট গীতিকার জাভেদ আখতার।
উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ বনাম রাম মন্দির ইস্যুতে ‘আর্ট অব লিভিং ফাউন্ডেশন’-এর প্রতিষ্ঠাতা শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর সম্প্রতি গণমাধ্যমকে দেয়া সাাৎকারে বলেছেন, ‘অযোধ্যা ইস্যু সমাধান না হলে ভারত সিরিয়ায় পরিণত হবে। রবিশঙ্করের দাবি, অযোধ্যা মুসলিমদের ধর্মীয়স্থল নয়। তাদের ওই ধর্মীয়স্থানের ওপরে নিজেদের দাবি ছেড়ে দিয়ে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করা উচিত।’
রবিশঙ্কর বলেন, ‘আদালত থেকে যে সিদ্ধান্তই দেয়া হোক কোনো প মানতে রাজি হবে না। কোনো এক পকে হার মানতে হবে। পরাজিত প বর্তমানে বিষয়টি মেনে নিলেও কিছু কাল বাদে এ নিয়ে ফের বিতর্ক শুরু হবে, যা সমাজের জন্য ভালো নয়।’
রবিশঙ্করের এ ধরনের মন্তব্যের পর থেকে বিভিন্ন মহলে তার তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে। জাভেদ আখতার গতকাল বলেছেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্ত ভারতীয়দের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে নাÑ এ দাবি করে শ্রী শ্রী রবিশঙ্কর সর্বোচ্চ আদালকে অপমান করেছেন। রবিশঙ্কর ভারতকে সিরিয়ায় পরিণত হওয়ার মন্তব্য করে বর্তমান সরকার ও ভারতবাসীকেও অপমান করেছেন।’
অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ডের মহাসচিব মাওলানা ওয়ালি রহমানি রবিশঙ্করের সমালোচনা করে বলেছেন, তার মন্তব্য ভারতের শান্তির ওপরে হামলা। এটি সুপ্রিম কোর্ট ও মুসলিমদের জন্য হুমকি। মজলিস-ই ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি রবিশঙ্করের সমালোচনা করে বলেছেন, সংবিধান ও আইনের ওপরে তার কোনো বিশ্বাস নেই। তিনি মনে করছেন তিনি নিজেই আইন। এ ধরনের বিবৃতির জন্য তার বিরুদ্ধে উসকানি দেয়ার মামলা হওয়া উচিত। জেডিইউ নেতা শারদ যাদব বলেছেন, একজন আধ্যাত্মিক গুরু হয়ে তার রাজনৈতিক মন্তব্য করা উচিত নয়। রবিশঙ্করের মতো ধর্মীয়গুরুরা দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ও উত্তেজনা সৃষ্টি করতে চাচ্ছেন বলেও শারদ যাদব মন্তব্য করেন।
এদিকে, প্রবল সমালোচনার মুখে রবিশঙ্কর অবশেষে সাফাই দিয়ে বলেছেন, কাউকে হুমকি দেয়া তার উদ্দেশ্য ছিল না। বরং ওই ধরনের পরিস্থিতি যাতে সৃষ্টি না হয় সেজন্য উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলাম।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.