নারী দিবস

আমি একটি বড় শক্তিশালী ঘোড়া চাই : তাসমিনা, দেশের সেরা ঘোড়সওয়ারী

সাক্ষাৎকার : আব্দুর রশীদ তারেক নওগাঁ

ঘোড়ার পিঠে কিশোরী। এক হাতে লাগম, অন্য হাতে চাবুক আর দুই চোখজুড়ে স্বপ্ন প্রথম হওয়ার। ‘দি হর্স গার্লস’ খ্যাত ঘোড়সওয়ারি নওগাঁর তাসমিনা দিন দিন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে। একের পর এক সেরা পুরস্কার ছিনিয়ে আনছে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার মাঠ থেকে।
ঘোড়সওয়ারি তাসমিনাকে নিয়ে নির্মিত সিনেমা ‘অলিম্পিয়া ফিল্ম ফেস্টিভাল ফর চিলড্রেন অ্যান্ড ইয়াং পিপলস’-এ স্থান পাওয়ার পর বিশ্বব্যাপী পরিচিতি পেয়েছে জেলার ধামইরহাট উপজেলার পূর্বচকসুবল গ্রামের ওবায়দুল হকের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে তাসমিনা। ইতোমধ্যে প্রামাণ্যচিত্র ‘অশ্বারোহী তাসমিনা’ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্রÑ ওমেনস ইন্টারন্যাশনাল এন্টারটেইনমেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভাল। ৫১তম প্রিজনেস ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেনস ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ফেস্টিভাল থিম পুরস্কার এবং জেন্ডার ইকুইটি পুরস্কার। তাসমিনা বর্তমানে উপজেলার শঙ্করপুর উচ্চবিদ্যালয় সপ্তম শ্রেণীতে পড়ালেখা করছে। বাড়িতে ঘোড়া ছিল, তাই খেলার ছলে খেলা শেখা; এমন অবস্থা থেকে বেড়ে ওঠা কিশোরী তাসমিনা এখন দাপিয়ে বেড়াচ্ছে দেশজুড়ে। সারা দেশে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতায় এখন উজ্জ্বল মুখ ১৩ বছর বয়সী তাসমিনা। হাজারো পুরুষ খেলোয়াড়কে পেছনে ফেলে শ্রেষ্ঠ স্থান দখল করে নিয়েছে সে। কেবল দারিদ্র্যকে জয় করতে পারলেই তাসমিনা হয়ে উঠতে পারে দেশে নারী খেলোয়াড়দের পথিকৃৎ। খেলার মাঠে হাজারো দর্শক মাতিয়ে প্রতিযোগীদের পেছনে ফেলে খুব অল্প দিনেই হয়ে ওঠে শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড়। তাই খেলার মাঠে দর্শকের চোখ এখন কেবল তার দিকেই। দরিদ্র পরিবারে জন্ম, তাই সওয়ারিই হয়ে উঠেছে সংসারের সম্বল।
তাসমিনার মা তহুরা বেগম বলেন, এখানেই শেষ নয়, সাহসী তাসমিনা এ পথ ধরে যেতে চায় আরো বহু দূর। তাসমিনাকে আত্মপ্রত্যয়ী ও সাহসী প্রতীক হিসেবে গড়ে তুলতে সর্বদা কাজ করছেন তার মা-বাবা। মেয়েকে নিয়ে নির্মিত সিনেমা গ্রিসে ‘অলিম্পিয়া ফিল্ম ফেস্টিভাল ফর চিলড্রেন অ্যান্ড ইয়াং পিপলস’-এ স্থান পাওয়ায় খুশি তারা। এখন তাদের কাছে মেয়ের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের স্বপ্ন। তাসমিনার বাবা ওবায়দুল হক বলেন, প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে একমুঠো ভাত খেয়ে ঘোড়ার পিঠে ওঠে। দুপুরে এসে দুটো খেয়ে আবার ঘোড়া নিয়ে বের হয়। সারা দিন ঘোড়ার পিঠেই থাকে। তার একটা বড় ঘোড়া চাই। জনগণের সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে একটি বড় ঘোড়া কিনেছি।। তাসমিনা জানায়, তার স্বপ্ন বহু দূর এগিয়ে যাওয়ার। এ জন্য বড় হয়ে সে পুলিশের চাকরি করতে চায়। তাই আমি বড় ও শক্তিশালী একটি ঘোড়া চাই। এ স্বপ্ন বুকে নিয়ে দিন পার করছে সে। তার কথাÑ কেউ কি তাকে একটি বড় ও শক্তিশালী ঘোড়া কিনে দেবে না?

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.