কুইন সাউথ টেক্সটাইলের লেনদেন ১৩ মার্চ শুরু

পুঁজিবাজারে লেনদেন ও সূচকের ফের অবনতি

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক

আবারো অবনতি ঘটল পুঁজিবাজার সূচকের। সোমবারের বড় দরপতনের পর মঙ্গলবার বাজার কিছুটা ঘুরে দাঁড়ালেও গতকাল আবারো বিক্রয়চাপে ছিল দেশের দুই পুঁজিবাজার। এ দিন চট্টগ্রাম শেয়ারবাজারে লেনদেন সামান্য বাড়লেও অবনতি হয়েছে ঢাকা শেয়ারবাজারের লেনদেনে। লেনদেন শুরুর আধঘণ্টার মাথায় বিক্রয়চাপের মুখে পড়া বাজারগুলো দিনের শেষ পর্যন্ত আর সামলে উঠতে পারেনি। এভাবে উভয় পুঁজিবাজারেই লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের বেশির ভাগই দরপতনের শিকার হয়।
প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গতকাল ২৫ দশমিক ৬২ পয়েন্ট হ্রাস পায়। ৫ হাজার ৮৪৭ দশমিক ৮১ পয়েন্ট থেকে দিন শুরু করা সূচকটি গতকাল দিনশেষে নেমে আসে ৫ হাজার ৮২২ দশমিক ১৮ পয়েন্টে। একই সময় ডিএসই-৩০ ও ডিএসই শরিয়াহ সূচকের অবনতি হয় যথাক্রমে ১২ দশমিক ৩৩ ও ১ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট।
দেশের দ্বিতীয় পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক ও সিএসসিএক্স সূচকের অবনতি হয় যথাক্রমে ৭৩ দশমিক ৩৩ ও ৪৪ দশমিক ৯৯ পয়েন্ট। এখানে সিএসই-৫০ ও সিএসই শরিয়াহ সূচক হারায় যথাক্রমে ৬ দশমিক ৬১ ও দশমিক ৩৫ পয়েন্ট।
সূচকের পাশাপাশি অবনতি হয় ডিএসইর লেনদেনের। ঢাকা শেয়ারবাজারে গতকাল ৪০৫ কোটি টাকার লেনদেন নিষ্পত্তি হয়, যা আগের দিন অপেক্ষা ২১ কোটি টাকা কম। মঙ্গলবার পুঁজিবাজারটির লেনদেন ছিল ৪২৬ কোটি টাকা। তবে লেনদেন বৃদ্ধি পেয়েছে চট্টগ্রাম শেয়ারবাজারে। সিএসইতে গতকাল ৩৩ কোটি টাকার লেনদেন নিষ্পত্তি হয়, যা আগের দিন ছিল ৩০ কোটি টাকা।
এ দিকে সম্প্রতি প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) সম্পন্ন করা কুইন সাউথ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডের লেনদেন আগামী ১৩ মার্চ শুরু হবে। ওই দিন দুই স্টক এক্সচেঞ্জে কোম্পানিটি ‘এন’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন শুরু করবে।
ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সম্প্রতি ডিএসই পর্ষদ কোম্পানিটির লেনদেন শুরুর অনুমতি দেয়। এর আগে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি কোম্পানির লটারিতে বরাদ্দপ্রাপ্ত শেয়ার বিনিয়োগকারীদের বিও হিসাবে জমা হয়েছে। গত ১ ফেব্রুয়ারি কোম্পানিটি লটারির ড্র অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা কুইন সাউথ টেক্সটাইল গত ৭ জানুয়ারি থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত আইপিও আবেদন গ্রহণ করে।
গত বছরের ১৪ নভেম্বর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) নিয়মিত কমিশন সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে কোম্পানিটিকে ১ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করার অনুমোদন দিয়েছে কমিশন। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন অনুযায়ী আইপিওর মাধ্যমে কুইন সাউথ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড পুঁজিবাজার থেকে ১৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।
প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ি কোম্পানিটি স্বয়ংক্রিয় ওয়্যার হাউজ নির্মাণ, নতুন ম্যাশিনারিজ আমদানি, কারখানা আধুনিকায়ন, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ বাবদ এই টাকা ব্যয় করবে। ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার-প্রতি আয় (ইপিএস) হয় ১ টাকা ৪২ পয়সা। এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার-প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য (এনএভি) ১৬ টাকা ২০ পয়সা।
কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে আলফা ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।
গতকাল দিনের শুরুতে দুই পুঁজিবাজার সূচক কিছুক্ষণ ঊর্ধ্বমুখী থাকলেও পরে বিক্রয়চাপে পড়ে নেতিবাচক আচরণ শুরু করে। ঢাকা শেয়ারবাজারে ডিএসইএক্স সূচক ৫ হাজার ৮৪৭ দশমিক ৮১ পয়েন্ট থেকে দিন শুরু করে বেলা ১১টায় পৌঁছে যায় ৫ হাজার ৮৬৪ পয়েন্টে। সূচকের এ অবস্থান থেকে শুরু হয় বিক্রয়চাপ। দুপুর ১২টায় ডিএসই সূচক নেমে আসে ৫ হাজার ৮৪২ পয়েন্টে। লেনদেনের এ পর্যায়ে সাময়িকভাবে চাপ হ্রাস পেলেও পরে তা আবার বৃদ্ধি পায়। দিনের শেষ সময় পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকলে ২৫ দশমিক ৬২ পয়েন্ট হারিয়ে ৫ হাজার ৮২২ দশমিক ১৮ পয়েন্টে স্থির হয় ডিএসই সূচক।
ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও মিউচুয়াল ফান্ডসহ দুই পুঁজিবাজারের মূলধনসমৃদ্ধ খাতগুলো গতকাল বড় ধরনের দরপতনের শিকার হয়। অন্যান্য খাতগুলো কমবেশি দরপতনের মুখে পড়লেও প্রধান খাতগুলোর দরপতনই দুই পুঁজিবাজার সূচকের অবনতিতে বড় ভূমিকা রাখে। এ চারটি খাতে ৮০ শতাংশের বেশি কোম্পানি দর হারায় গতকাল। আর এতে দুই বাজারের পতনের তালিকায় উঠে আসে বেশির ভাগ কোম্পানি। ঢাকা শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া ৩৩৫টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ১১৫টির মূল্যবৃদ্ধির বিপরীতে দর হারায় ১৭৫টি। অপরিবর্তিত ছিল ৪৫টির দর। অপর দিকে চট্টগ্রাম শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া ২২৫টি সিকিউরিটিজের মধ্যে ৮২টির দাম বাড়ে, ১০৩টির কমে এবং ৩৫টি সিকিউরিটিজের দাম অপরিবর্তিত থাকে।
ডিএসইতে গতকাল লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ব্র্যাক ব্যাংক। ১২ কোটি ৯৯ লাখ টাকায় কোম্পানিটির ১৪ লাখ ১৫ হাজার শেয়ার হাতবদল হয়। ১২ কোটি ৩৯ লাখ টাকায় ৫০ লাখ ৮০ হাজার শেয়ার বেচাকেনা করে আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক উঠে আসে দ্বিতীয় অবস্থানে। ডিএসইর লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় আরো ছিল যথাক্রমে মুন্নু সিরামিকস, বেক্সিমকো ফার্মা, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, গ্রামীণফোন, ইফাদ অটোস, বিডি থাই অ্যালুমিনিয়াম, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল ও নাহি অ্যালুমিনিয়াম।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.