ইটিভির আবদুস সালামসহ তিনজনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

নিজস্ব প্রতিবেদক

একুশে টেলিভিশনের হিসাব থেকে প্রায় ২৭ লাখ টাকা তুলে ইউরো ক্রয়, পাচার ও সংরক্ষণের অপরাধে প্রতিষ্ঠানটির সাবেক চেয়ারম্যান আবদুস সালামসহ তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আজ সোমবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশন বৈঠকে ওই চার্জশিট অনুমোদন দেয়া হয়েছে। দুদকের উপপরিচালক ও তদন্তকারী কর্মকর্তা জনাব মো. সামছুল আলম শিগগিরই আদালতে চার্জশিট দাখিল করবেন। দুদক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

চার্জশিটভুক্ত অন্যান্য আসামিরা হলেন- একুশে টিভির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও আবদুস সালামের ভাই আশরাফুল আলম এবং জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক ফজলুর রহমান শিকদার।

তিনজনের বিরুদ্ধে পরস্পরের যোগসাজশে বৈদেশিক মুদ্রা ক্রয়, সংরক্ষণ ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়েছে।

এ বিষয়ে ২০১৬ সালের ১৩ এপ্রিল দুদকের উপপরিচালক সামছুল আলম বাদী হয়ে তেজগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন।

এর আগে ওই বছরের ২ মার্চ ভুয়া বিল-ভাউচারের মাধ্যমে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আবদুস সালামের বিরুদ্ধে আরো একটি মামলা করেছিল দুদক।

মামলা তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, আবদুস সালাম একুশে টিভির চেয়ারম্যান থাকাকালে প্রতিষ্ঠানের হিসাব থেকে ২৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। পরবর্তীকালে ওই টাকা দিয়ে ৩০ হাজার ইউরো কিনে সংরক্ষণ ও বিদেশে পাচার করেন বলে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। ইটিভির সাবেক চেয়ারম্যান আবদুস সালাম এক বছরেরও বেশি সময় ধরে কারাগারে আছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৪ জানুয়ারি রাতে যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত একটি সভায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫০ মিনিটের একটি বক্তব্য ইটিভিতে সরাসরি সম্প্রচারের এক দিন পর ৬ জানুয়ারি ভোরে আবদুস সালামকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ।

পরে তাকে পর্নোগ্রাফি আইনে দায়ের করা ক্যান্টনমেন্ট থানার একটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। এরপর ৮ জানুয়ারি ‘উসকানি দিয়ে পুলিশে বিদ্রোহের চেষ্টা’ ও রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে আবদুস সালাম ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে একটি মামলা করে পুলিশ। তখন থেকে কারাগারে রয়েছেন তিনি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.