মশাবাহিত ডেঙ্গু ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে সিঙ্গাপুরে৷
মশাবাহিত ডেঙ্গু ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে সিঙ্গাপুরে৷

মশাবাহিত রোগ থেকে বাঁচতে মশাকেই যেভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে

নয়া দিগন্ত অনলাইন

মশাবাহিত ডেঙ্গু ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে সিঙ্গাপুরে৷ এর দ্বিতীয় পর্বে আরও মশা ছাড়ার পরিকল্পনা করছে দেশটি৷

প্রকল্পের নাম ‘প্রোজেক্ট ওলবাকিয়া’৷ ওলবাকিয়া হচ্ছে একটি ব্যাকটেরিয়া৷ ডেঙ্গু ছড়ানোর জন্য দায়ী এডিস এজিপ্টি মশার মধ্যে এই ওলবাকিয়াকে ঢুকিয়ে দেয়া হবে৷ ফলে ঐ মশাগুলো বন্ধ্যা হয়ে যাবে৷ এই অবস্থায় সেগুলোকে চারদিকে ছড়িয়ে দেয়া হবে৷

উদ্দেশ্য হচ্ছে, ওলবাকিয়া সমৃদ্ধ পুরুষ এডিস এজিপ্টি মশা যখন নারী এডিস এজিপ্টি মশার সঙ্গে মিলিত হবে, তখন যে ডিম উৎপাদিত হবে, তা নিষিক্ত হবে না৷ ফলে এডিস মশার সংখ্যা আর বাড়বে না৷

সিঙ্গাপুরের ‘ন্যাশনাল এনভায়রনমেন্ট এজেন্সি’এনইএ সোমবার এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছে৷ এপ্রিল থেকে প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে৷

ওলবাকিয়া সমৃদ্ধ মশা দিয়ে এডিসকে নিধন করার এটিই প্রথম উদ্যোগ নয়৷ এর আগে গতমাসের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা রোগবাহী এডিস এজিপ্টির সংখ্যা কমাতে ওলবাকিয়াবাহী বন্ধ্যা মশা ছেড়েছিলেন৷ তারও আগে গত আগস্ট মাসে ব্রাজিলের রিও ডি জানিরোতেও একই উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল৷

এডিস এজিপ্টি মশার কারণে প্রতিবছর বিশ্বের ১০০টিরও বেশি দেশের দুই কোটিরও বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন৷ তবে শুধু ডেঙ্গু নয়, জিকা, চিকুনগুনিয়া ইত্যাদি রোগের জন্যও দায়ী এডিস এজিপ্টি মশা৷

ডেঙ্গুর কারণে জ্বর, মাথাব্যথা, পেশি ও গাঁটে ব্যথা, ত্বকে র‍্যাশ ইত্যাদি হয়৷ কখনও কখনও তা প্রাণঘাতীও হতে পারে৷

তাছাড়া জিকা ভাইরাসের কারণে নবজাতক শিশুর জন্মের সময় মারাত্মক ত্রুটি দেখা দেয়৷ ২০১৬ সালে এই রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছিল৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সেই সময় কিছুদিনের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল৷

২০০০ সালে বাংলাদেশে প্রথম ডেঙ্গু রোগ ধরা পড়েছিল৷ এরপর গতবছর চিকুনগুনিয়া রোগে ভুগেছিলেন অনেকে৷ এই রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি কম থাকলেও রোগীর কষ্ট হয় বেশি৷

মশাবাহিত রোগ ‘চিকুনগুনিয়া জ্বর’
এডিস অ্যালবোপিকটাস ও এডিস এজিপটি নামক মশার কামড়ে চিকুনগুনিয়া জ্বর হয়ে থাকে৷ তবে কেবল নারী এডিস মশাই এই জ্বরের জন্য দায়ী৷

লক্ষণ
মশার কামড় খাওয়ার পাঁচ দিন পর থেকে শরীরে এই রোগের লক্ষণ ফুটে ওঠে৷ এক্ষেত্রে মাথাব্যথা, সর্দি, বমি বমি ভাব, হাত ও পায়ের গিঁটে এবং আঙুলের গিঁটে ব্যথা, ফোসকা পড়া ও শরীর বেঁকে যেতে পারে৷ জ্বর উঠতে পারে ১০৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট পর্যন্ত৷ থাকতে পারে ২ থেকে ১২ দিন৷ তবে সাধারণত ৩ থেকে ৭ দিন পর্যন্ত জ্বর থাকে৷

ডেঙ্গু নয়
অনেকে চিকুনগুনিয়া জ্বরকে ডেঙ্গু জ্বর মনে করতে পারেন৷ কারণ এদের মধ্যে অনেক মিল রয়েছে৷ তবে ডেঙ্গুর সঙ্গে চিকুনগুনিয়ার মূল পার্থক্য হলো, এই জ্বরে হাড়ের জোড়াগুলো ফুলে যায়, ডেঙ্গু জ্বরে যেটা হয় না৷

চিকিৎসা
রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রোগটি শনাক্ত করা যায়৷ এখন পর্যন্ত চিকুনগুনিয়ার কোনো ভ্যাকসিন তৈরি হয়নি৷ তাই চিকুনগুনিয়া সারাতে সাধারণ জ্বরের চিকিত্সা নিলেই চলবে৷ বিশ্রাম, প্রচুর তরল খাবার ও প্যারাসিটামল সেবন করা যেতে পারে৷ তবে চিকুনগুনিয়া জ্বর প্রতিরোধে এডিস মশার প্রজনন বন্ধ করতে হবে৷

ঢাকায় চিকুনগুনিয়া
জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট বা আইইডিসিআর গত বছর এই রোগের উপর একটি সমীক্ষা চালায়৷ এ সময় ঢাকার মোট ৬০১ জনের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়৷ এদের মধ্যে ২০৭ জনই চিকুনগুনিয়া জ্বরে আক্রান্ত বলে পরীক্ষায় জানা যায়৷ সে হিসেবে ঢাকার প্রায় ৩৩ শতাংশ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত৷

ইতিহাস
১৯৫২-৫৩ সালে আফ্রিকার তাঞ্জানিয়ায় প্রথম এই রোগের আবির্ভাব ঘটে৷ বাংলাদেশে প্রথম এ রোগে আক্রান্ত রোগী পাওয়া যায় ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং ঢাকার দোহার ও কেরানীগঞ্জে৷ পরে ২০১১ সালের নভেম্বরে নতুন করে পাবনার সাঁথিয়ায় আবারও চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়৷ আর ঢাকায় প্রথম দেখা দেয় ২০১৩ সালের আগস্টে৷

সূত্র : ডয়চে ভেলে

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.